× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ঢাকা সিটি নির্বাচন- ২০২০ষোলো আনা মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ২০ জানুয়ারি ২০২০, সোমবার

ঘাটাইলে ইউপি চেয়ারম্যানের ছেলের বিরুদ্ধে ছাত্রী অপহরণের অভিযোগ

বাংলারজমিন

ঘাটাইল (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি | ৮ ডিসেম্বর ২০১৯, রবিবার, ৯:০০

ঘাটাইলের সাগরদীঘি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হেকমত সিকদারের ছেলে আপন ও তার তিন বখাটে বন্ধুর নামে এক স্কুলছাত্রীকে অপহরণের অভিযোগে থানায় মামলা হয়েছে। জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার বেলা একটার দিকে ঘাটাইল সদর থেকে ৩০ কি.মি. পূর্বে সাগরদীঘি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী এবং সাগরদীঘি বেতুয়াপাড়া গ্রামের মুনছুর আলীর মেয়েকে স্কুলে আসার সময় রাস্তা থেকে জোর করে সাগরদীঘি ইউপি চেয়ারম্যান হেকমত সিকদারের ছেলে আপন (১৪) একটি প্রাইভেটকারে অপহরণের চেষ্টা করে। অপহরণের শিকার ছাত্রী বলে, দীর্ঘদিন ধরে চেয়ারম্যানের ছেলে আপন আমাকে স্কুলে যাওয়ার পথে নানাভাবে উত্ত্যক্ত করে আসছে। বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে আমি বাড়ি থেকে বের হয়ে স্থানীয় বিট অফিসের সামনে সেগুন বাগানের কাছে গেলে আমার পথরোধ করে। পরে জামানের দোকানের সামনে গেলে আমাকে গাড়িতে উঠতে বলে। দৌড়ে আমি স্কুল গেট পর্যন্ত গেলে আপনসহ আরো কয়েকজন আমার পথরোধ করে আমাকে জোর করে গাড়িতে তুলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। আমার চিৎকার শুনে স্কুলের শিক্ষকসহ স্থানীয়রা এসে আমাকে উদ্ধার করে। পরে উত্তেজিত জনতার তোপের মুখে তারা পালিয়ে যায়।
ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সালমা খানম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, সকালের পরীক্ষা শেষ হওয়ার পর একটার দিকে হাউমাউ কান্নার শব্দ শুনে স্কুল গেটে বের হয়ে দেখি অপহরণকারীরা আমার স্কুলের ছাত্রীকে একটি গাড়িতে তুলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছে। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় তাকে উদ্ধার করা হয়। এদিকে স্কুলছাত্রী অপহরণের চেষ্টা ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যানের ছেলেসহ তিনজনকে আসামি করে থানায় মামলা করা হয়েছে। স্কুলছাত্রীর মা বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার রাতে মামলাটি করেন। আসামিরা হলো উপজেলার সাগরদীঘি ইউপি চেয়ারম্যান হেকমত সিকদারের ছেলে আপন (১৫), বেতুয়াপাড়া গ্রামের কামাল হোসেনের ছেলে ফিরোজ (১৬), উজ্জল ড্রাইভারের ছেলে ইমন (১৮)। ঘাটাইল থানার ওসি মাকছুদুল আলম বলেন, এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার রাতে তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর