× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার

ইমরুলের মুখোমুখি মোসাদ্দেক

খেলা

স্পোর্টস রিপোর্টার | ১১ ডিসেম্বর ২০১৯, বুধবার, ৯:১৮

বঙ্গবন্ধু বিপিএলের মাঠের লড়াই শুরু হচ্ছে আজ। দিনের প্রথম ম্যাচেই মুখোমুখি হবে ইমরুল কায়েসের চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স ও মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের সিলেট থান্ডার্স। আজ দুপুর দেড়টায় দু’দল নামছে মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে। বিপিএলের আগের কোনো আসরেই নেতৃত্বের অভিজ্ঞতা নেই মোসাদ্দেকের। তবে জাতীয় দলের এই অলরাউন্ডার আত্মবিশ্বাসী।  সৈকত বলেন, ‘প্রথম থেকেই সবাই জানি এটা চ্যালেঞ্জিং টুর্নামেন্ট। অধিনায়ক হিসেবে মনে করি আমাদের দলের জন্যও চ্যালেঞ্জ অপেক্ষা করছে। আমরা জেতার জন্যই নামবো। জেতার চ্যালেঞ্জই আমার কাছে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ।
আমার মনে হয় আমরা দারুণ দল। এখানে সব দলই ভালো। কেউ বিদেশি খেলোয়াড়ে বলীয়ান। কেউ আবার দেশি খেলোয়াড়ে। সব দল ভারসাম্যপূর্ণ।’

অন্যদিকে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের নেতৃত্ব দিচ্ছেন বিপিএলে শিরোপাজয়ী অধিনায়ক ইমরুল কায়েস। যদিও তার নেতৃত্ব দেয়ার কথা ছিল না। জাতীয় দলের টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ইনজুরিতে থাকায় ইমরুলকে দায়িত্ব দেয়া হয় অধিনায়কত্বের। গতকাল অনুশীলন শেষে সংবাদ মাধ্যমকে ইমরুল বলেন, ‘শুরুটা আসলে ভালো করতে চায় সবাই। যদি প্রথম ম্যাচ জিততে পারি, আত্মবিশ্বাস বাড়বে। আমাদের  দেশি প্লেয়ার এবং আমাদের টিমের জন্যও ভালো হবে। সিজনটাও ভালোভাবে শুরু হবে।’ ইনজুরির কারণে দলের শুরুর দুই বা তিন ম্যাচ খেলতে পারবেন না মাহমুদুল্লাহ। এ নিয়ে ইমরুল বলেন, ‘রিয়াদ ভাইয়ের না থাকায় দলে সমন্বয় করা কঠিন। উনাকে দুটো ম্যাচ মিস করবো। বিদেশি প্লেয়ারও খেলতে পারে আবার দেশি প্লেয়ারও খেলতে পারে তার জায়গায়। যারাই এই জায়গায় সুযোগ পাবে তারা এটার সদ্ব্যবহার করার চেষ্টা করবে।’

চট্টগ্রামের সঙ্গে টি-টোয়েন্টি দানব ক্রিস গেইল চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন। তবে তাকে শুরু থেকে পাচ্ছে না দলটি। আরো বেশ কয়েকজন বিদেশি ক্রিকেটার আছেন দলটিতে- কেসরিক উইলিয়ামস, আভিষ্কা ফার্নান্দো, রায়াড এমরিটস, রায়ান বার্ল ও ইমাদ ওয়াসিম। এছাড়াও দলে দেশিদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য নাম জুনায়েদ সিদ্দিকী, এনামুল হক বিজয়, রুবেল হোসেন, নাসির হোসেন ও নূরুল হাসান সোহান। দল নিয়ে অধিনায়ক বলেন, ‘টিম মিটিংয়ে প্রত্যেকটা প্লেয়ারের শক্তিশালী ও দুর্বল দিক নিয়ে আলোচনা হয়। আমাদেরটাও হয়েছে। সবাই সবার কাজটা ঠিক ভাবে করলে ভালো কিছু হওয়া সম্ভব। আমি যখন একটা টিমে চার পাঁচ বছর খেলেছি কুমিল্লায়, সেখান থেকে আরেকটা টিমে যখন আসবো নতুন একটা পরিবেশ থাকবে। আমরা লোকাল প্লেয়াররা একসঙ্গেই খেলি এদিক দিয়ে কোনো চেঞ্জ নাই। দুই একটা ম্যাচ খেললে আমরা আরও ভালোভাবে মানিয়ে নিতে পারবো। একতা বাড়বে।’

সিলেট থান্ডারও ভারসাম্যপূর্ণ দল। বাংলাদেশ জাতীয় দলে খেলা ৪ ক্রিকেটার মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, মোহাম্মদ মিঠুন, নাজমুল ইসলাম অপু, রনি তালুকদার, নাইম হাসান সঙ্গে উদীয়মান দেশি ও বিদেশি ক্রিকেটার আছেন। প্রথম ম্যাচ থেকেই পুরো টুর্নামেন্টে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের সামর্থ্য রাখে দলটি- এমনটাই বলছেন সিলেট অধিনায়ক মোসাদ্দেক। তিনি বলেন, ‘স্থানীয় খেলোয়াড়ের দিক থেকে ম্যাচ বদলে দেয়ার সামর্থ্য অবশ্যই আছে। আমরা ৩-৪ জন আছি যারা জাতীয় দলে বর্তমানে খেলছি। জাতীয় দলে ঢুকবে এমনও কয়েকজন আছে।  এছাড়াও যারা আছে ওরাও একসময় খেলেছেন। বিদেশিরাও নিজ দেশের জাতীয় দলের খেলোয়াড়। তাই আমি মনে করি টুর্নামেন্টে ফাইট করার মত ভারসাম্যপূর্ণ দল আমরা।’

দুই দলের ক্রিকেটারদের তালিকা
সিলেট থান্ডার
মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, মোহাম্মদ মিঠুন, নাজমুল ইসলাম অপু, সোহাগ গাজী, শারফিন রাদারফোর্ড, শফিকুল্লাহ শাফাক, রনি তালুকদার, নাঈম হাসান, দেলোয়ার হোসেন, মনির হোসেন খান, নাভিদুল হক, জনসন চার্লস, রুবেল মিয়া, জীবন মেন্ডিস।
চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স
মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, ইমরুল কায়েস, নাসির হোসেন, রুবেল হোসেন, ক্রিস গেইল, কেসরিক উইলিয়ামস, নুরুল হাসান সোহান, এনামুল হক জুনিয়র, মোক্তার আলী, পিনাক ঘোষ, আভিষ্কা ফার্নান্দো, রায়াড এমরিটস, নাসুম আহমেদ, জুনায়েদ সিদ্দিকী, রায়ান বার্ল ও ইমাদ ওয়াসিম।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর