× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ঢাকা সিটি নির্বাচন- ২০২০ষোলো আনা মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ২১ জানুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার

র‌্যাঙ্কিং বাড়ানোর সুযোগ বাংলাদেশের

খেলা

স্পোর্টস রিপোর্টার | ১৪ জানুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার, ৯:০৩

১৫ই জানুয়ারি শুরু হতে যাওয়া বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক গোল্ডকাপ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ ফিফার সর্বোচ্চ র‌্যাঙ্কিংয়ের অনুমোদন পেয়েছে। টুর্নামেন্টের ম্যাচগুলোর প্রভাব থাকবে র‌্যাঙ্কিংয়ে। এতে র‌্যাঙ্কিংয়ের নিচের দিকে থাকা বাংলাদেশের জন্য সুযোগ তৈরি হলো দেশের মাটিতে নৈপুণ্য দেখিয়ে রেটিং পয়েন্ট বাড়ানোর। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) কম্পিটিশনস ম্যানেজার জাবের বিন তাহের আনসারী গতকাল বলেন, ‘বাফুফে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপকে র‌্যাঙ্কিংয়ের আওতায় আনতে আবেদন করেছিল ফিফার কাছে। ফিফা অনুমোদন দিয়েছে। ফিফার টায়ার-ওয়ান ম্যাচ হিসেবে বিবেচিত হবে। টুর্নামেন্টটা র‌্যাঙ্কিং বাড়িয়ে নিতে বাংলাদেশের জন্য বড় সুযোগ।’
আফ্রিকান ফুটবলের প্রতিনিধি হিসেবে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপে দেখা যাবে মরিশাস, সেশেলস ও বুরুন্ডিকে। ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে ১৫১-তে থাকা বুরুন্ডির সঙ্গে মরিশাসও (১৭২) র‌্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশের (১৮৭) চেয়ে এগিয়ে।
আর সিশেলস আছে র‌্যাঙ্কিংয়ের ২০০তম স্থানে। সিশেলসের চেয়েও নিচে শ্রীলঙ্কা। ২০৫তম স্থানে দক্ষিণ এশিয়ার দ্বীপরাষ্ট্রটি। ১০৬তম দল ফিলিস্তিনই এ টুর্নামেন্টের ফেভারিট। যাদের সঙ্গে উদ্বোধনী ম্যাচে মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। র‌্যাঙ্কিংয়ে ৮১ ধাপ এগিয়ে থাকা ফিলিস্তিনকে রুখে দিতে পারলেই র‌্যাঙ্কিং পয়েন্ট বাড়বে বাংলাদেশের। দলের হেড কোচ জেমি ডে’র মুখেও একই সুর। বাংলাদেশের বৃটিশ কোচ বলেন, ‘র‌্যাঙ্কিং বাড়ানোর সুযোগ আছে আমাদের। আমরা ধাপে ধাপে এগোতে চাই।’ বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের ৬ দেশের তিনটি এশিয়ান, তিনটি আফ্রিকার। লটারির মাধ্যমে করা ড্রয়ে এশিয়ার তিন দেশ ফিলিস্তিন, শ্রীলঙ্কা ও স্বাগতিক বাংলাদেশ পড়েছে ‘এ’ গ্রুপে। ‘বি’ গ্রুপে আফ্রিকার তিন দেশ বুরুন্ডি মরিশাস ও সিশেলস। বাংলাদেশ গ্রুপ পর্ব পার হয়ে সেমিফাইনালে উঠতে পারলে প্রথমবারের মতো আফ্রিকান কোনো দেশের বিপক্ষে খেলবে। অবশ্য আফ্রিকান ফুটবলারদের সঙ্গে খেলার অভিজ্ঞতা নতুন নয় জামাল-সুফিলদের। বাংলাদেশের ঘরোয়া ফুটবলে অংশগ্রহণকারী বিদেশি খেলোয়াড়দের সিংহভাগই আফ্রিকার। তবে আফ্রিকার কোনো জাতীয় দলের সঙ্গে লড়াইয়ের অভিজ্ঞতা নেই লাল-সবুজ জার্সিধারীদের। ঢাকায় সেই অভিজ্ঞতা হবে, যদি বাংলাদেশ উঠতে পারে শেষ চারে। আফ্রিকান দল বাংলাদেশের জন্য যেমন হবে নতুন অভিজ্ঞতা, তেমন অন্যরকম চ্যালেঞ্জও। কারণ আফ্রিকানরা শক্তিনির্ভর ফুটবল খেলে। দৈহিকভাবে ও শক্তিতে তারা অন্যদের চেয়ে এগিয়ে। বাংলাদেশের ইংলিশ কোচ জেমি ডে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের অনুশীলনে যোগ দিয়ে সে কথাটিই মনে করিয়ে দিলেন সবাইকে। জেমি ডে বলেন, ‘আফ্রিকান দলগুলো শক্তিশালী। তারা শারীরিকভাবে খুবই শক্তিশালী। আমরা যদি সেমিফাইনালে উঠতে পারি, তাহলে আফ্রিকান একটি দল পাবো। সেটা হবে আমাদের জন্য নতুন এক চ্যালেঞ্জ।’ আগামীকাল ফিলিস্তিন ম্যাচ দিয়ে শুরু হবে বাংলাদেশের নতুন মিশন। ‘এ’ গ্রুপের দ্বিতীয় ও শেষ ম্যাচ খেলবে জামাল ভূঁইয়ারা শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে আগামী ১৯শে জানুয়ারি। টুর্নামেন্টের সব ম্যাচ হবে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে। সব ম্যাচই শুরু হবে বিকাল ৫টায়।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর