× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ঢাকা সিটি নির্বাচন- ২০২০ষোলো আনা মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ২১ জানুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার
অনিশ্চয়তায় পাকিস্তান সফর

তবে কি দুবাইয়েই ফয়সালা!

খেলা

স্পোর্টস রিপোর্টার | ১৪ জানুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার, ৯:০৩

আইসিসি’র সভায় অংশ নিতে গতকাল রাতেই দেশ ছেড়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। সেখানে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) চেয়ারম্যান এহসান মানিও উপস্থিত থাকবেন। দুবাইয়ে আইসিসির সেই সভার কোনো এক অবসরে দুই দেশের বোর্ড প্রধান মিলিত হবেন। চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত আসবে টাইগারদের পাকিস্তান সফরে যাওয়ার বিষয়ে। দুই দেশের বোর্ড প্রধানের আলোচনা যে হবে তা নিশ্চিত করেছেন বিসিবির মিডিয়া বিভাগের চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস। গতকাল তিনি দৈনিক মানবজমিনকে বলেন, ‘আজ (গতকাল) রাতেই আমাদের বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন দুবাইয়ে আইসিসির মিটিংয়ে অংশ নিতে যাচ্ছেন। সেখানে পিসিবি প্রধানের সঙ্গে বৈঠক হবে। এটাও বলতে পারি সেই বৈঠক থেকেই সিদ্ধান্ত আসবে আমরা আসলে সফরে যাচ্ছি কি না!’
বিসিবি এরই মধ্যে জানিয়েছে পাকিস্তান সফরে কেবল টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতে চায় বাংলাদেশ।
টেস্ট হলে খেলবে না। বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকেও সবুজ সংকেত দেয়া হয়েছে সফরে যেতে তবে সেটি স্বল্প সময়ের জন্য। কারণ মধ্যপ্রাচ্যের বৈরী পরিস্থিতি। এরই মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র ও ইরান মুখোমুখি অবস্থানে। এজন্য সরকারও বেশ সতর্ক অবস্থানে। এ বিষয়ে রোববার নাজমুল হাসান বলেন, ‘পাকিস্তান সফর নিয়ে নিরাপত্তা বিষয়ক নির্দেশনা পাওয়ার পর আমরা সরকারি অনুমতির (জিও) জন্য আবেদন করি। মধ্যপ্রাচ্যের বর্তমান যে অবস্থা, সেটা অবশ্যই অন্য যেকোনো সময়ের চেয়ে ভিন্ন। মধ্যপ্রাচ্যের উত্তেজনাকে বিবেচনায় রেখে পাকিস্তান সফর যতটা সম্ভব সংক্ষিপ্ত করার কথাই সরকার বলেছে।’
কী সিদ্ধান্ত আসতে পারে তা নিয়ে গতকাল জালাল ইউনুস বলেন, ‘আমরাতো তাদের জানিয়েছি টি-টোয়েন্টিই খেলবো। সেটি হলে আমরা যাবো। আর টেস্টের বিষয়টা আমরা বলতে পারবো না। সেখানে আলোচনায় টেস্ট খেলার সিদ্ধান্ত শেষ পর্যন্ত হলেও আমাদের তা নিয়ে নিজস্ব প্রস্তাব থাকবে। আমরাও আমাদের যুক্তিগুলো সরাসরি তাদের জানাবো। আমি মনে করি সরাসরি বৈঠকেই একটা ফলাফল আসবে।’ বাংলাদেশ দল বেশ কিছু কারণেই টেস্ট খেলতে রাজি নয়। একটি কারণ হচ্ছে পাকিস্তানে টেস্ট খেলতে হলে খেলোয়াড়দের লম্বা সময় সেখানে অবস্থান করতে হবে। তাতে নিরাপত্তা ঝুঁকি আছে। টেস্ট খেলতে গেলে লম্বা সময়ের জন্য বাংলাদেশ দলের কোনো বিদেশি কোচই রাজি হবেন না। তাই বিকল্প হিসেবে দেশি কোচ নিতে হবে। অনেক সিনিয়র ও তারকা ক্রিকেটার পাকিস্তান সফরে যেতে রাজি নয়, অনভিজ্ঞ দল পাঠাতে হবে। তাতে টেস্ট চ্যাম্পিয়ানশিপের গুরুত্বপূর্ণ এই সিরিজে ভরাডুবির সম্ভাবনা থাকবে বাংলাদেশের। আবার সফরে না গেলেও বাংলাদেশ পয়েন্ট হারাবে। তবে সিরিজটি খেলার জন্য দুই বছর হাতে রয়েছে। এই সময়ের মধ্যে পাকিস্তানকে বিকল্প ভেন্যুতে টেস্ট খেলতে রাজি করাতে প্রক্রিয়া চলাবে বিসিবি। দেখা যাচ্ছে, পিসিবি টি-টোয়েন্টি সিরিজে রাজি না হলে পাকিস্তান সফরটাই আটকে যাবে টাইগারদের।
শেষ পর্যন্ত টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতে পিসিবি রাজি হলে কবে নাগাদ বাংলাদেশ দল দেশ ছাড়বে। আগের সূচি অনুসারে ১৮ই জানুয়ারি পাকিস্তান যাওয়ার কথা টাইগারদের। কিন্তু ১৭ই জানুয়ারি মিরপুর শেরেবাংলায় বঙ্গবন্ধু বিপিএল’র ফাইনাল। তাই এত দ্রুত যাওয়া সম্ভব নয়। যে কারণে সূচিতে পরিবর্তন আসবে বলেই জানিয়েছেন জালাল ইউনুস। বিসিবির এই পরিচালক বলেন, ‘যদি টি-টোয়েন্টি খেলতে যেতে সিদ্ধান্ত হয় তাহলে সফর সূচিতে পরিবর্তন আসতে পারে। এখন পর্যন্ত সূচি অনুসারে আমাদের এই মাসের ১৮ তারিখ যাওয়ার কথা রয়েছে। কিন্তু তার একদিন আগেই বিপিএল’র ফাইনাল। তাই ক্রিকেটারদের যারা যাবেন তাদের অনেকেই হয়তো বিপিএলের ম্যাচ নিয়ে ব্যস্ত থাকবে। যে কারণে ফাইনালের পর দিনই যাওয়া সম্ভব নয়। তাই যাওয়ার সময়টা পিছিয়ে যেতে পারে ৩ থেকে ৪ দিন। আর টেস্ট খেলার সিদ্ধান্ত হলে সেটি কবে হবে তা বলা যাচ্ছে না।’
পাকিস্তান কেন টি-টোয়েন্টি খেলতে চাচ্ছে না, কেন জোর দিচ্ছে টেস্ট খেলতে? এ বিষয়ে নানা সূত্রে জানা গেছে পিসিবি টি-টোয়েন্টির চেয়ে টেস্ট খেলাতেই লাভ দেখছে। কারণ টেস্ট চ্যাম্পিয়ানশিপের দুটি ম্যাচে নিজেদের পয়েন্ট নেয়া সহজ হবে তাদের জন্য। সেখানে বাংলাদেশের দুর্বল দল পাঠানো হবে সেটি তারা অনেকটাই নিশ্চিত। তাই বিশেষ নিরাপত্তার জন্য অনেক টাকা খরচ করে তারা টি-টোয়েন্টি খেলতে রাজি নয়।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর