× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ঢাকা সিটি নির্বাচন- ২০২০ষোলো আনা মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ২১ জানুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার

শেয়ারবাজারের সূচক তলানিতে, বিক্ষোভ

অনলাইন

অর্থনৈতিক রিপোর্টার | ১৪ জানুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার, ৬:০৪

মঙ্গলবারও মূল্য সূচকের বড় ধরনের পতনে লেনদেন শেষ হয়েছে পুঁজিবাজারে। পতনে সূচক আরো তলানিতে নেমে গেছে। এদিন ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান মূল্য সূচক ডিএসইএক্স ৮৭ পয়েন্ট কমেছে। অপর বাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের সার্বিক সূচক কমেছে ২৬৯ পয়েন্ট। কমেছে উভয় বাজারে লেনদেনও।

বাজার বিশ্লেষণে দেখা যায়, ডিএসই প্রধান বা ডিএসইএক্স সূচক ৮৭ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ৪ হাজার ৩৬ পয়েন্টে; যা গত ৪ বছর ৭ মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন। এর আগে ২০১৫ সালের ৫মে এই সূচকের অবস্থান ছিল ৪ হাজার ১৪ পয়েন্ট। অন্য সূচকগুলোর মধ্যে ডিএসইএস বা শরিয়াহ সূচক ২২ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ৯০৭ পয়েন্টে এবং ডিএস৩০ সূচক ২৬ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৩৬১ পয়েন্টে।


ডিএসইতে আজ ২৬২ কোটি ৮১ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। যা গত কার্যদিবস থেকে ২৩ কোটি ৯৬ লাখ টাকা কম। গতকাল লেনদেনের পরিমাণ ছিল ২৮৬ কোটি ৭৭ লাখ টাকা।

ডিএসইতে ৩৫৫টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের শেয়ার লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৩২টির, কমেছে  ২৯৩টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩০টির।

অপরদিকে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ২৬৯ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১২ হাজার ৩০০ পয়েন্টে। সিএসইতে টাকার অংকে ৯ কোটি ৬৮ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

এদিকে পুঁজিবাজারে ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারীরা আবারো বিক্ষোভ করেছেন। সেখানে বিভিন্ন ধরনের স্লোগান দিয়েছেন তারা। দাবি জানিয়েছেন পুঁজিবাজারে স্বাভাবিক অবস্থা ফিরিয়ে আনার। তারা আগামী ১৭ই মার্চ, জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর আগেই পুঁজিবাজারকে স্বাভাবিক করার দাবি জানান বিনিয়োগকারীরা।

তারা বলেন, আগামী ১৭ই মার্চ, পুরোজাতি আনন্দের সঙ্গে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন করবেন। তিনি তাদেরকে ওই কর্মসূচিতে কান্না নিয়ে অংশ নিতে হবে। কিন্তু অন্যদের মত তারাও আনন্দের সঙ্গে, হাসিমুখে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন করতে চান। তাই এর আগেই বাজারকে স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে দেয়ার দাবি জানান। দুপুরে মতিঝিলের ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের সামনে বাংলাদেশ পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী পরিষদ এ বিক্ষোভের আয়োজন করে। সংগঠনের সদস্যরা এ সময় নানা স্লোগানে মুখরিত হয়ে উঠেন।

স্লোগানের মধ্যে ছিল-শেয়ারবাজার ঠিক কর নইলে, বুকে গুলি করে; শেয়ারবাজার পড়ল কেন, খায়রুল তুই জবাব দে; সেল বাই বন্ধ কর, করতে হবে; আমার টাকা আমার টাকা, ফিরিয়ে দাও ফিরিয়ে দাও ইত্যাদি।

বিক্ষোভ সমাবেশে বাংলাদেশ পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদের সভাপতি মিজানুর রহমান চৌধুরী বলেন, গত ১০ বছরে ৯৫টি বস্তাপঁচা কোম্পানি মার্কেটে যুক্ত করা হয়েছে। নিজেদের স্বার্থ হাসিল করে বহু টাকা লুটে নিয়েছে তারা। তাদেরকে বিচারের আওতায় আনার দাবি তাদের। বিক্ষোভের পর মিছিল করার ইচ্ছা থাকলেও প্রশাসনের চাপে আমরা তা করতে পারিনি। আগামীকাল বুধবারও বিক্ষোভের প্রদর্শনের ঘোষণা দেন তিনি।

বিনিয়োগকারী সাকিল বলেন, শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ করতে এসে অনেকটাই নিঃস্ব হয়ে গেছি। বাজার থেকে বেরিয়ে যাব তারও কোনো পথ পাচ্ছি না। সবাই ২০১০ সালের ধসের কথা বলেন। কিন্তু এখন শেয়ারবাজারের যে অবস্থা তা ২০১০ সালের থেকেও খারাপ। এ বাজারে যত অপেক্ষা করা হচ্ছে লোকসান ততই বাড়ছে।

উল্লেখ্য,দীর্ঘদিন ধরে দরপতনের ভেতরে থাকা পুঁজিবাজারের পরিস্থিতি সম্প্রতি চরম নাজুক হয়ে পড়েছে। নতুন বছরে ১০ কার্যদিবসের মধ্যে ৮দিনই মূল্যসূচক কমেছে বাজারে। এই সময়ে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৪১৬ পয়েন্ট বা প্রায় ১০ শতাংশ কমেছে। দরপতনের এই ধাক্কায় ইতিমধ্যে অনেক বিনিয়োগকারী সর্বস্বান্ত হয়ে পড়েছেন, বিশেষ করে যারা মার্জিন ঋণ নিয়ে শেয়ারে বিনিয়োগ করেছিলেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর