× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার
বুন্দেসলিগা অভিষেকেই হ্যাটট্রিক হালান্দের

‘নতুন লেভানদোস্কি’ পেয়ে গেছে ডর্টমুন্ড!

খেলা

স্পোর্টস ডেস্ক | ২০ জানুয়ারি ২০২০, সোমবার, ৮:৪৯

লুকাস পিসচেকের বদলি হিসেবে মাঠে নামলেন ৫৬তম মিনিটে। তিন মিনিট পরই করলেন নিজের প্রথম গোল। আর ২৩ মিনিটের ভেতর পূর্ণ করলেন হ্যাটট্রিক! বরুশিয়া ডর্টমুন্ডের জার্সিতে বুন্দেসলিগায় নিজের অভিষেকটা এভাবেই রাঙালেন আরলিং ব্রট হালান্দ। ১৯ বছর বয়সী এই নরওয়েজিয়ান তারকার হ্যাটট্রিকে শনিবার অগসবুর্গের মাঠে ৩-১ গোলে পিছিয়ে থেকেও ৫-৩ ব্যবধানে জয় কুড়ায় ডর্টমুন্ড। ম্যাচের পর বরুশিয়া ডর্টমুন্ডের জার্মান তারকা মার্কো রয়েস বলেন, ‘আমার মনে হয় না, রবার্ট লেভানদোস্কির পর এমন স্ট্রাইকার পেয়েছি আমরা।’ কোচ লুসিয়েন ফাভরে বলেন, ‘দারুণ শুরু। অভিষেকে অসাধারণ তিন গোল!’
শীতকালীন দলবদলে অস্ট্রিয়ান ক্লাব রেড বুল সালজবুর্গ থেকে খ্যাত আরলিং ব্রট হালান্দকে দলে ভেড়ায় বরুশিয়া ডর্টমুন্ড। ১৯ বছর বয়সী এই নরওয়েজিয়ান স্ট্রাইকারকে নিতে ২০মিলিয়ন ইউরো খরচ হয় জার্মান লীগের দ্বিতীয় শীর্ষ ধনী ক্লাবটি। হালান্দের সঙ্গে সাড়ে চার বছরের চুক্তি করেছে ডর্টমুন্ড।
যা শেষ হবে ২০২৪ সালে। উচ্চতায় সুইডিশ স্ট্রাইকার জ্‌লাতান ইব্রাহিমোভিচের মতো প্রায় সাড়ে ৬ ফুট। গোল করার দক্ষতাও ইব্রাহিমোভিচের মতো। চলতি বছরের শুরুতে রেড বুল সালজবুর্গে যোগ দেন হালান্দ। তিন মাসের মধ্যে অস্ট্রিয়ান বুন্দেসলিগায় সালজবুর্গের হয়ে তিনটি হ্যাটট্রিক করেন হালান্দ। এরপর চ্যাম্পিয়ন্স লীগ অভিষেকে গেঙ্কের বিপক্ষে করেন আরেকটি হ্যাটট্রিক। সালজবুর্গের হয়ে ২২ ম্যাচে ২৮ গোল করেন তিনি। এরমধ্যে অস্ট্রিয়ান বুন্দেসলিগায় ১৪ ম্যাচে করেন ১৬ গোল। আর ৬ ম্যাচে ৮ গোল করেন উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগে। ১৯ বছর বয়সী হালান্দকে দলে ভেড়াতে মুখিয়ে ছিল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, জুভেন্টাস, লাইপজিগের মতো শীর্ষ ক্লাবগুলো । তবে তিনি নিজেই বেছে নেন ডর্টমুন্ডকে। আনুষ্ঠানিকভাবে চুক্তি করার পর হালান্দ বলেন, ‘আমার শুরু থেকে বরুশিয়া ডর্টমুন্ডে খেলার জন্য অনুভূতি কাজ করেছে। আমি এখানে খেলতে চেয়েছিলাম। ৮০ হাজারেরও বেশি সমর্থকের সামনে খেলার জন্য আমি উন্মুখ হয়ে আছি।’ আর শনিবার অভিষেকে হ্যাটট্রিকের পর হালান্দ বলেন, ‘এটা একটা দারুণ ক্লাব। সতীর্থরা আর ভক্ত-সমর্থকরাও অসাধারণ। আমি এখানে গোল করতেই এসেছি। চমৎকার একটা অভিষেক হলো।’ ঘরের মাঠে ফ্লোরিয়ান নেদারলেখনারের গোলে ৩৪তম মিনিটে এগিয়ে যায় অগসবুর্গ। ৪৬তম মিনিটে ব্যবধান বাড়ান মার্কো রিখটার। ৪৯তম মিনিটে ডর্টমুন্ডের হয়ে এক গোল শোধ করেন জুলিয়ান ব্রান্ট। তবে ৫৫তম মিনিটে ফ্লোরিয়ানের দ্বিতীয় গোলে ব্যবধানটা ৩-১ বানিয়ে ফেলে অগসবুর্গ। এরপরই হালান্দ চমক। ৫৯তম মিনিটে জ্যাডন সানচোর অ্যাসিস্টে নিজের প্রথম গোল করেন তিনি। আর ৭০তম মিনিটে থরগান হ্যাজার্ডের পাস থেকে করেন দ্বিতীয়টি। আর ৭৯তম মিনিটে মার্কো রয়েসের অ্যাসিস্টে গোল করে হালান্দ পূর্ণ করেন হ্যাটট্রিক। তিন গোলই আসে বাঁ পায়ের মাটি কামড়ানো শটে। মাঝে ৬১তম মিনিটে ডর্টমুন্ডের হয়ে চতুর্থ গোলটি করেন সানচো। এ জয়ে ১৮ ম্যাচে ৩৩ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট তালিকার চতুর্থ স্থানে উঠে এসেছে ডর্টমুন্ড।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর