× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, বুধবার

বড় হতে কঠোর পরিশ্রমের বিকল্প নেই: প্রেসিডেন্ট

শেষের পাতা

ইকবাল আহমদ সরকার, গাজীপুর থেকে | ২১ জানুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার, ১০:১০

প্রেসিডেন্ট ও চিফ স্কাউট মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, স্কাউটিং একজন শিক্ষার্থীকে লেখাপড়ার পাশাপাশি সুনাগরিক হিসেবে গড়ে উঠতে হাতে কলমে শিক্ষা দেয়। স্কাউটিংকে দেশ সেবা ও মানবিক কল্যাণে কাজে লাগাতে হবে। স্কাউটিং এর শিক্ষা ব্যক্তি, পরিবার ও সামাজিক জীবনে প্রতিফলিত করা গেলে জাতীয় উন্নয়ন ত্বরান্বিত হবে। জীবনে বড় হতে হলে কঠোর পরিশ্রম আর অনুশীলনের বিকল্প নেই। প্রেসিডেন্ট ও চিফ স্কাউট গতকাল সোমবার বিকেলে গাজীপুরের মৌচাক জাতীয় স্কাউট প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে বাংলাদেশ স্কাউটস আয়োজিত ৯ম জাতীয় কাব ক্যামপুরি-২০২০ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন। প্রেসিডেন্ট আরও বলেন, রাজনৈতিক স্বাধীনতার পাশাপাশি অর্থনৈতিক মুক্তি ছিল আমাদের স্বাধীনতার লক্ষ্য। জাতির পিতা সে লক্ষ্যকে সামনে রেখে যুদ্ধবিদ্ধস্ত দেশের অর্থনীতি ও অবকাঠামো পুর্নগঠনের মাধ্যমে অর্থনৈতিক মুক্তির সংগ্রাম শুরু করেছিলেন। কিন্তু ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট জাতির পিতা সহ তার পরিবারের আপনজনদের নৃশংস হত্যাকাণ্ডের ফলে দেশে গণতন্ত্র ও উন্নয়ন অগ্রযাত্রা থমকে দাঁড়ায়।
উত্থান ঘটে স্বৈরশাসন ও অগনতান্ত্রিক সরকারের। দেশে আজ মুক্তিযুদ্ধের পতাকাবাহী গণতান্ত্রিক সরকার প্রতিষ্ঠিত। বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কাজকে পরিপুর্নতা দানের লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, ভিশন ২০২১ ভিশন ২০৪১ এবং শতবর্ষ মেয়াদি ব-দ্বীপ পরিকল্পনা ২০২১ গ্রহণ করেছেন।

তিনি আরও বলেন, জাতিসংঘ টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট ২০৩০ অর্জন সহ ২০৪১ সালের মধ্যে দেশকে উন্নত সমৃদ্ধ দেশে পরিণত করা এসব মহাপরিকল্পনার উদ্দেশ্য। তবে উন্নয়নকে এগিয়ে নিতে জনগণকে ইতিবাচক, আধুনিক ও বিজ্ঞান মনস্ক দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে উন্নয়ন অগ্রযাত্রায় শামিল হতে হবে। স্কাউটিং কার্যক্রম পারে ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে আধুনিক, প্রগতিশীল, সৃজনশীল হিসেবে গড়ে তুলতে এবং সমাজকে এগিয়ে নিতে।
তিনি বলেন, ২০২১ সালে স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তিতে বাংলাদেশে স্কাউট সদস্য সংখ্যা বর্তমানে প্রায় ১৯ লাখ থেকে ২১ লাখে উন্নীত করার উদ্যোগকে স্বাগত জানাই। ২০২১ সালে বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত হবে ৩২তম এপিআর স্কাউট জাম্বুরী। আমি জেনে আনন্দিত যে, স্কাউট সদস্য সংখ্যা ক্রমাগত বৃদ্ধির জন্য বাংলাদেশ বিশ্ব স্কাউট সংস্থার, টপ ফাইভ কান্ট্রি এওয়ার্ড, এবং এপিআর সাসটেনেবল গ্রোথ এওয়ার্ড অর্জন করেছে। কাব স্কাউট ও স্কাউটদের উদ্দেশ্যে প্রেসিডেন্ট বলেন, আগামী দিনে তোমরাই বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দেবে। তোমরাই জাতির পিতার স্বপ্নের ক্ষুধা দারিদ্র্য মুক্ত, ধর্মনিরপেক্ষ উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণ করবে। সবসময় মনে রাখতে হবে অনেক ত্যাগের বিনিময়ে অর্জিত এ দেশ আমাদের। এজন্য তোমাদের যোগ্য ও দক্ষ হয়ে গড়ে উঠতে হবে। সমাজ সেবা,সমাজ উন্নয়ন মুলক কর্মকান্ডে তোমরা সক্রিয় ভূমিকা রাখবে।

স্কাউটদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন,আমি আশাকরি ৯ম জাতীয় কাব ক্যামপুরিতে অংশগ্রহণকারী স্কাউটগণ নিজেদের উন্নয়নের পাশাপাশি পরোপকারি ও স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে গড়ে তুলবে। তাহলেই তোমরা সমাজের কাজ থেকে আরো ভালোবাসা পাবে এবং অন্যেরা তোমাদেরকে অনুসরণ করে স্কাউটিং-এ আসতে উৎসাহিত হবে।
বাংলাদেশ স্কাউটস সভাপতি মোঃ আবুল কালাম আজাদের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ.ক.ম মোজাম্মেল হক এমপি, বাংলাদেশ স্কাউটস এর প্রধান জাতীয় কমিশনার ও ক্যামপুরী চীফ ড. মোঃ মোজাম্মেল হক খান, ক্যামপুরী সাংগঠনিক কমিটির সভাপতি মোঃ আলমগীর প্রমুখ।
এসময় রাষ্ট্রপতি আরও বলেন, বন্যা, ঘূর্নিঝড়, ভবন ধস ও ভয়াবহ অগ্নিকান্ডের ঘটনায় উদ্ধার কাজে তথা জাতীয় দুর্যোগে স্কাউটদেরকে সবার আগে এগিয়ে আসতে হবে। আমি আশাকরি মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গীবাদ, বাল্যবিবাহ ও ধর্মান্ধতা রোধসহ সামাজিক জন সচেতনতা সৃষ্টিতে স্কাউটরা বরাবরের মতো নিজেদের সক্রিয় রাখবে।

এর আগে রাষ্ট্রপতি অনুষ্ঠানস্থলে পৌঁছলে তাকে স্কাউটের উর্ধতন কর্মকর্তারা অভ্যর্থনা জানান এবং ক্যামপুরী স্কার্ফ, ব্যাজ ও টুপি পড়িয়ে দেন। পরে তিনি কৃতি স্কাউটসদের মাঝে প্রেসিডেন্ট'স স্কাউট ও প্রেসিডেন্ট রোভার স্কাউটস এওয়ার্ড প্রদান এবং ক্যামপুরী স্মারক ডাকটিকেট ও উদ্বোধনী খাম অবমুক্ত করেন। তিনি বিভিন্ন এলাকা থেকে অংশগ্রহণকারী স্কাউটদের পরিবেশিত মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করেন এবং ক্যামপুরীর শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করেন। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, মেহের আফরোজ চুমকি এমপি, ইকবাল হোসেন সবুজ এমপি, গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, জেলা প্রশাসক এসএম তরিকুল ইসলাম, পুলিশ সুপার শামসুন্নাহারসহ সকারি বেসরকারি বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা এবং রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর