× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার

বিয়ানীবাজারে সীমান্তহাট স্থাপনে অবকাঠামো নির্মাণ করবে ভারত

বাংলারজমিন

বিয়ানীবাজার (সিলেট) থেকে | ২৩ জানুয়ারি ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৯:০৭

বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তে বিয়ানীবাজারের মুড়িয়ায় সিলেট জেলার তৃতীয় বর্ডার হাট (সীমান্ত হাট) চালু হচ্ছে। এ হাট বসানোর লক্ষ্যে সবধরনের প্রশাসনিক কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।
সীমান্তহাটের ক্রেতা-বিক্রেতাকে বর্ডার হাটে ক্রয়-বিক্রয় করার জন্য জেলা প্রশাসন হতে পরিচিত কার্ড ইস্যু করা হবে, হাটে প্রবেশের জন্য উভয় দেশের দু’দিকে ২টি গেট থাকবে। ওয়াচ টাওয়ার, শৌচাগার ও নিরাপত্তা ব্যবস্থাও থাকবে। সীমান্ত হাটের অবকাঠামোগত উন্নয়ন ভারতীয় কর্তৃপক্ষ শিগগিরই শুরু করবে। সীমান্তহাট স্থাপন নিয়ে সম্প্রতি মুড়িয়া এলাকায় সীমান্ত পিলার মেইন পিলারের (১৩৬৩-১৩৬৪) মধ্যবর্তী নো-ম্যানস ল্যান্ডে বাংলাদেশ-ভারতের যৌথ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় বাংলাদেশের দলের পক্ষে সিলেটের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ আবুল কালাম নেতৃত্ব দেন। অন্যদিকে ভারতের করিমগঞ্জ জেলার অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে ১০ সদস্যের প্রতিনিধি দল সভায় অংশগ্রহণ করে।
সীমান্ত হাটে কাপড়, সাবান, মসলা, বাচ্চাদের জিনিসপত্র, গৃহস্থালি নানা জিনিসপত্র, তেল, ঘি, মশার কয়েল, প্লাস্টিক জাতীয় টেবিল-চেয়ার, সিরামিকস, কসমেটিকস সামগ্রী বিক্রি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
সিলেটের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ আবুল কালাম জানান, সীমান্তহাট স্থাপনের জন্য নো-ম্যানস ল্যান্ডে এক একর ১৭ শতক জমি চিহ্নিত করা হয়েছে। বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে সম্পর্ক আরো সুদৃঢ় করতে উভয় দেশের সীমান্তবর্তী এলাকায় সিলেট জেলার তৃতীয় সীমান্ত হাট চালু করা হচ্ছে।
তিনি জানান, বিয়ানীবাজার সীমান্তে উভয় দেশের (১৩৬৩-১৩৬৪) মেইন পিলারের পাশে সীমান্ত বাজার স্থাপনের লক্ষ্যে প্রশাসনিক পর্যায়ে সব ধরনের কাজ বৈঠকে সম্পন্ন করা হয়েছে। আবুল কালাম বলেন, ‘আমাদের পক্ষ থেকে সীমান্ত হাটের যাবতীয় ফাইল চূড়ান্তভাবে বাণিজ্য ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে।’ প্রসঙ্গত, সিলেটের সীমান্তবর্তী কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার ভোলাগঞ্জে এবং কানাইঘাট উপজেলার সনাতনপুঞ্জি এলাকায় দুটি সীমান্ত হাট স্থাপনের কাজ বর্তমানে চলমান। চলতি বছর এসব সীমান্তহাট চালুর কথা রয়েছে। বাংলাদেশ ও ভারতের সর্বোচ্চ ৫০ জন করে মোট ১০০ জন ব্যবসায়ী সীমান্তহাটে পণ্য বিক্রি করতে পারবেন। হাটকে ঘিরে পূর্ণ নিরাপত্তা ব্যবস্থাও থাকবে। সপ্তাহের রবি ও বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৯টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত চলবে সীমান্ত হাটের কার্যক্রম।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর