× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০, শুক্রবার

নন্দীগ্রামে দাদন ব্যবসায়ীর মারপিটে স্কুল শিক্ষকের মৃত্যু

বাংলারজমিন

নন্দীগ্রাম (বগুড়া) প্রতিনিধি | ২৩ জানুয়ারি ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৯:০৭

বগুড়ার নন্দীগ্রামে দাদন ব্যবসায়ীদের মারপিটে সাইফুল ইসলাম (৫০) নামের এক স্কুল শিক্ষকের মুত্যু হয়েছে। গতকাল সকালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তিনি মারা যান। সাইফুল ইসলাম নন্দীগ্রাম উপজেলার  পেং হাজারকি হুঁশিয়ারপাড়া গ্রামের মজিবর রহমানের ছেলে এবং পার্শ্ববর্তী  দোলছাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক।
স্থানীয়রা জানায়, সোমবার সন্ধ্যার পর সাইফুল ইসলাম বাড়ি না ফেরায় পরিবারের লোকজন খোঁজ-খবর করতে থাকে। একপর্যায় তার কর্মস্থল  দোলগাছি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বারান্দায় হাত-পা বাঁধা অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার সকালে তিনি মারা যান। নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, সাইফুল ইসলামের ছেলে শুভ এলাকার একাধিক দাদন ব্যবসায়ীর কাছ থেকে ১৫-১৬ লাখ টাকা দাদনে নিয়ে পরিশোধ করতে পারছেন না। সাইফুল ইসলামের বেতনের চেক বইও দাদন ব্যবসায়ীদের কাছে রয়েছে। টাকা আদায়ের জন্য দাদন ব্যবসায়ীরা সাইফুল ইসলামকে চাপ দিয়ে আসছিল।
দাদন ব্যবসায়ীরাই সাইফুল ইসলামকে মারপিট করে হাত-পা  বেঁধে স্কুলের বারান্দায় ফেলে রেখে যায় বলে পরিবারের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে। বুড়ইল ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ নূর মোহাম্মদ বলেন, সাইফুল ইসলাম সোমবার সন্ধ্যায় দোলগাছি বাজারে যান। সেখান থেকে কে বা কারা তাকে ধরে নিয়ে হাত-পা বেঁধে মারপিট করে ফেলে রেখে যায়। নন্দীগ্রাম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শওকত কবীর বলেন, সাইফুল ইসলাম হাসপাতালে মারা গেছেন বলে শুনেছি। তবে কীভাবে মারা গেছেন তা জানা যায়নি। মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর