× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার

সিটি করপোরেশনের মার্কেট দখল নিতে হামলা, ব্যবসায়ী নেতাসহ আহত ৭

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার | ২৬ জানুয়ারি ২০২০, রবিবার, ৯:০৪

সিটি করপোরেশনের মার্কেট দখল নিতে সশস্ত্র হামলা চালিয়েছে সন্ত্রাসীরা। এতে রাজধানীর গুলিস্তানের সুন্দরবন স্কয়ার সুপার মার্কেটের ব্যবসায়ী সমিতির নেতাসহ অন্তত সাত জন আহত হয়েছেন। গতকাল বেলা সাড়ে ১২টার দিকে ওই মার্কেটে এ ঘটনা ঘটে। আহতদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। আহতরা হলেন, মাইনুল ইসলাম মামুন খান (৪৮), এমদাদুল ইসলাম (৩৫), ফারুক হোসেন পলাশ (৩৫), সাকিব (৪০) কাউসার (৩৫) ও মনির (৪০), সাজু (৩৪)। আহতদের মধ্যে সুন্দরবন স্কয়ার সুপার মার্কেট দোকান মালিক সমিতির সহ-সাধারণ সম্পাদক মাইনুল ইসলাম মামুন খান ও সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক হোসেন পলাশের অবস্থা গুরুতর। দুজনই মাথায় গুরুতর আঘাত পেয়েছেন বলে চিকিৎসকরা জানান। ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করেছেন, ক্যাসিনোকাণ্ডে আত্মগোপনে থাকা যুবলীগ নেতা শাহাবুদ্দিন আহমেদের নেতৃত্বে এই হামলা চালানো হয়।
দোকান মালিক সমিতির সহ-সভাপতি আবু বক্কার সিদ্দিক জানান, মার্কেটের পঞ্চম তলায় দুপুরে দোকান মালিক সমিতির অফিসে মিটিং করছিলেন ব্যবসায়ীরা। এসময় ঢাকা মহানগর দক্ষিণের ২০ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি শাহাবুদ্দিনের নেতৃত্বে ৪০-৫০ জন সশস্ত্র সন্ত্রাসী হামলা চালায়। আহত ব্যবসায়ীরা জানান, হামলাকারীদের হাতে ধারালো অস্ত্র, স্ট্যাম্প, রডসহ দেশীয় বিভিন্ন অস্ত্র ছিল। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নেয় পুলিশ। তাৎক্ষণিকভাবে আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। এ ঘটনায় যুবলীগ নেতা শাহাবুদ্দিন, ৩৪ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগ নেতা রনি ও ওই ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক  আহাদ বাপ্পিসহ ৫০-৬০ জনকে আসামি করে বংশাল থানায় মামলা করা হয়েছে। ব্যবসায়ীরা জানান, কয়েক বছর আগে ক্যাসিনোকাণ্ডে গ্রেপ্তার যুবলীগ নেতা ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাটের সহায়তায় সিটি করপোরেশনের এই মার্কেটটি দখল করে শাহাবুদ্দিন আহমেদের লোকজন। এরপর সিটি করপোরেশনের নিয়ম কানুনের তোয়াক্কা না করেই ওই মার্কেটে অবৈধভাবে ১২’শ দোকান তৈরি করে নিজেরাই বিক্রি করে দেয়। এ নিয়ে সিটি কর্পোরেশনসহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ করেও কোনও প্রতিকার পাননি মার্কেটের নির্বাচিত কমিটির নেতৃবৃন্দ। সম্রাট গ্রেপ্তারের পর দীর্ঘদিন আত্মগোপনে ছিলেন শাহাবুদ্দিন। এরমধ্যেই দোকান মালিক সমিতি সক্রিয় হয়। সম্প্রতি শাহাবুদ্দিন প্রকাশ্যে আসেন। এরপরই গতকাল এই হামলার ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। বংশাল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহীন ফকির বলেন, বহিরাগতরা হামলা চালিয়েছে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যাই। ততক্ষণে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর