× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, বুধবার

গোয়েন্দা জালে ধরা পড়লো মোবাইল টাওয়ার ব্যাটারি চোর চক্রের ৭ হোতা

বাংলারজমিন

স্টাফ রিপোর্টার, যশোর থেকে | ২৮ জানুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার, ৮:৩৬

আন্তঃজেলা মোবাইল টাওয়ারের ব্যাটারি চোর চক্রের মূলহোতাসহ ৭ জনকে আটক করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। এ সময় তাদের কাছ থেকে চোরাই ১০০টি ব্যাটারি, ৪৯টি সার্কিট, ২২টি কুলিংফ্যান এবং চুরির কাজে ব্যবহৃত ১টি ডাবল কেবিন পিকআপ, ৩টি ভাঙা তালা, তালা ভাঙার বিভিন্ন সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়েছে। যশোর খুলনা ও সাতক্ষীরায় অভিযান চালিয়ে তাদেরকে আটক করা হয়। যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বিশেষ শাখা) তৌহিদুল ইসলাম গতকাল দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান। আটককৃতরা হলো, যশোর শহরের বারান্দি মোল্যাপাড়া আমতলার হারেজ মৃধার ছেলে হারুন অর রশিদ মিঠু, সদর উপজেলার ঝুমঝুমপুরের খায়রুজ্জামানের ছেলে মেজবাহ উদ্দিন মিরাজ, শহরের বকচর র‌্যাব অফিস এলাকার মাহাবুব আলমের বাড়ির ভাড়াটিয়া ও ইউনুচ আলীর ছেলে মোস্তাফিজুর রহমান রিমু, সদর উপজেলার রাজারহাট সিতারামপুর  গ্রামের আবদুর রহিম মোল্যার ছেলে রাকিবুল ইসলাম রাকিব ওরফে চঞ্চল, একই উপজেলার রাজারহাট সীতারামপুর গ্রামের জামাল উদ্দিন মোল্যার ছেলে ও সাতক্ষীরা জেলার কলারোয়া থানার তুলসীডাঙ্গা গ্রামের দীন মোহম্মাদের বাড়ির ভাড়াটিয়া আবদুর রহিম মোল্যা (অবসরপ্রাপ্ত কারারক্ষী), সাতক্ষীরা কলারোয়া থানার রঘুনাথপুর মোড়ল পাড়ার ইউসুফ আলীর ছেলে নিজাম উদ্দিন, যশোর সদর উপজেলার এনায়েতপুর গ্রামের হিরু মোল্যার ছেলে খায়রুল ইসলাম। সংবাদ সম্মেলনে দাবি করা হয়েছে, আটককৃতরা অধিকাংশরাই ডিপ্লোমাধারী ইঞ্জিনিয়ার এবং তারা বিভিন্ন মোবাইল কোম্পানির টাওয়ারে কাজ করতেন। যার কারণে  টাওয়ার থেকে ব্যাটারি চুরি করে তার থেকে সিসা বের করে ফের  মোবাইল কোম্পানি অথবা ইজিবাইক কোম্পানিতে বিক্রি করার সিস্টেম তারা জানেন। মোবাইল কোম্পানিতে চাকরি না থাকায় তারা চুরির কাজে নেমে পড়েছে।
এ চক্রের ৭ জনকে আটক করা হলেও যশোর খুলনা এবং সাতক্ষীরা এলাকায় আরো সদস্য রয়েছে। পুলিশ জানায়, ১২ই জানুয়ারি যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার বল্লামুখ থেকে গ্রামীণফোন লি. কোম্পানির টাওয়ার থেকে  অজ্ঞাতনামা চোরেরা ব্যাটারি চুরি করে নিয়ে যায়। ব্যাটারির আনুমানিক মূল্য ৬ লাখ টাকা। এ ঘটনায় ২২শে জানুয়ারি বাঘারপাড়া থানায় মামলা হয়।  ওই মামলাটি যশোর গোয়েন্দা পুলিশকে তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর