× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ৩১ অক্টোবর ২০২০, শনিবার

করোনা আতঙ্কে ভারতে মন্দিরে বিগ্রহের মুখেও মাস্ক

ভারত

কলকাতা প্রতিনিধি | ১০ মার্চ ২০২০, মঙ্গলবার, ১:৩৭

করোনা ভাইরাস আতঙ্ক গ্রাস করেছে অন্য দেশের মতো ভারতকেও। ইতিমধ্যেই ভারতে ৪৭ জনের শরীরে এ ভাইরাস সংক্রমণ হয়েছে বলে শনাক্ত হয়েছে। এখন পর্যন্ত পুনে, বেঙ্গালুরু, পাঞ্জাব, জয়পুর, আগ্রা, কেরালা, জম্মু, দিল্লি, উত্তর প্রদেশ, তেলেঙ্গানা, লাদাখ ও তামিলনাড়ু থেকে নিশ্চিত করোনা সংক্রমণের খবর পাওয়া গেছে। ফলে চারদিকে সতর্কতা নেয়া হয়েছে। মানুষও অনেক বেশি সচেতন হয়েছে। ফলে অনেকেই এই সংক্রামক ভাইরাস থেকে বাঁচতে নাক-মুখ ঢাকা মুখোশ বা মাস্ক পরে ঘুরছেন। তবে এবার দেখা গেল মন্দিরের বিগ্রহকেও পরানো হয়েছে মাস্ক। উত্তর প্রদেশ রাজ্যের বারানসী তীর্থ ক্ষেত্রে  প্রতিদিন প্রচুর ভক্ত সমাগম হয়।
বিশ্বের বহু জায়গা থেকেই সেখানে যান সাধারণ মানুষ। তাই বারানসীর একটি মন্দিরের পুরোহিত বিশ্বনাথের (শিব) মূর্তিতে পরিয়েছেন মাস্ক। পুরোহিত কৃষ্ণ আনন্দ পান্ডে ভক্তদের কাছে মূর্তি না ছোঁয়ার আবেদনও করেছেন। সংবাদ মাধ্যমকে ওই পুরোহিত বলেছেন, আমরা শীতকালে বাবা বিশ্বনাথকে ঠান্ডার পোশাক পরাই, গরমকালে শীতাতপ যন্ত্র ব্যবহার করি। তাহলে এ সময় মাস্ক পরাতেই পারি। তাছাড়া কেউ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত থাকলে তিনি যদি বিগ্রহ স্পর্শ করেন, তাহলে পরের যে ভক্ত আবার বিগ্রহ ছোঁবেন, তারও সেই রোগ হতে পারে। তাই সকলকেই আবেদন করেছি, দূর থেকে প্রণাম করতে। আপাতত দেখা যাচ্ছে পুরোহিতের কথামতো সেই মন্দিরে দূর থেকে ভক্তরা পুজো সারছেন। বিগ্রহ স্পর্শ করছেন না কেউই। মন্দিরের সকল পুরোহিত এবং ভক্তরা পরে থাকছেন মাস্ক।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Faruque Ahmed
১০ মার্চ ২০২০, মঙ্গলবার, ৫:৫৯

What about "Gomutro" technic. ha.....? tell the drink...

করোনা ভাইবোন রাস
১০ মার্চ ২০২০, মঙ্গলবার, ৫:৫৩

তারচে' এ-ই ভালো - ক'দিন পূজো অর্চনা বন্ধ রাখো। করোনা আতঙ্কে মুদি তা-ই করছে, নয় কি? যেখানে যেখানে করোনা আছে, সেখানে সেখানে যাওয়াটা বাতিল করে দিচ্ছে দেখছি ক'দিন ধরে।

অন্যান্য খবর