× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকরোনা আপডেট
ঢাকা, ৩০ মার্চ ২০২০, সোমবার

শিবচরের অবরুদ্ধ এলাকায় খাবার পৌঁছে দিচ্ছে প্রশাসন

বাংলারজমিন

শিবচর (মাদারীপুর) প্রতিনিধি | ২৪ মার্চ ২০২০, মঙ্গলবার, ৭:৫২

সোমবার দুপুরে শিবচরের অবরুদ্ধ এলাকায় হোম কোয়ারেন্টিনে থাকা পরিবার ও নিম্নআয়ের মানুষের বাড়িতে জরুরি প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী ও জীবন রক্ষাকারী ওষুধ পৌঁছে দিয়েছে শিবচর উপজেলা প্রশাসন।
জানা যায়, সম্প্রতি করোনা ভাইরাসের ঝুঁকিতে শিবচরের ৪টি এলাকা চতুর্থ দিনের মতো অবরুদ্ধ রয়েছে। অবরুদ্ধ এলাকাগুলো হলো- শিবচর পৌরসভার ২টি ওয়ার্ড, পাঁচ্চর ইউনিয়নের ২টি গ্রাম ও দক্ষিণ বহেরাতলা ইউনিয়নের ২টি গ্রামে। এসকল গ্রামের হোমকোয়ারেন্টাইনে থাকা পরিবার ও নিম্ন আয়ের মানুষের বাড়িতে প্রত্যেক পরিবারকে চাল, ডাল, তেল, পেয়াজ, লবণ, সাবান ও ওষুধসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য বিতরণ করেছে শিবচর উপজেলা প্রশাসন। প্রথম পর্যায়ে ১৫ টন চাল বরাদ্দ করা হয়েছে বলে জানা গেছে। এছাড়া মাদারীপুর জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকা বাড়ির দেয়ালে স্টিকার ও লাল পতাকা টাঙ্গিয়ে দেওয়া হয়। এসময় শিবচর উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শামসুদ্দিন খান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আঃ লতিফ মুন্সী, সাধারণ সম্পাদক ডা. মো. সেলিম, পৌর মেয়র আওলাদ হোসেন খান, উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা শশাংক চন্দ্র ঘোষ, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. নজরুল ইসলাম, শিবচর প্রেসক্লাবের সভাপতি একেএম নাসিরুল হক প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। উল্লেখ্য, গত ১৯শে মার্চ বৃহস্পতিবার মাদারীপুর জেলা প্রশাসন, স্বাস্থ্য বিভাগ ও পুলিশ বিভাগের সমন্বয় শিবচর পৌরসভার ২টি ওয়ার্ড, পাঁচ্চর ইউনিয়নের ২টি গ্রাম ও দক্ষিণ বহেরাতলা ইউনিয়নের ২টি গ্রামে কনটেইনমেন্ট ঘোষণা করে এলাকার মানুষদের চলাচল সীমিত করা হয়।
এসব এলাকায় ১৬টি পয়েন্টে পুলিশ টহল দিচ্ছে যেন কেউ এসব এলাকায় ঢুকতে না পারে। কিছু প্রয়োজন হলে পুলিশের সহযোগিতায় তা সংগ্রহ করছে। এছাড়া কালকিনি উপজেলা থেকে বরিশালগামী কোন পরিবহন চলাচল করতে দেয়া হচ্ছে না। এতে দক্ষিণাঞ্চলের অন্য জেলার সাথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। আজ মাদারীপুর জেলায় হোম কোয়ারেন্টাইনে আছে ২৯৮ জন, আইসোলেশনে ৩ আছে জন ও প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে আছে ৩ জন। শিবচর পৌর মেয়র আওলাদ হোসেন খান জানান, অবরুদ্ধ মানুষের মাঝে খাবারের ব্যবস্থা করায় তারা অনেক উপকৃত হয়েছেন। যেহেতু তারা ঘর থেকে বের হচ্ছে না তাই তাদের জন্য খাবার ব্যবস্থা প্রয়োজন ছিল অবশ্যই। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আসাদুজ্জামান জানান, চিফ হুইপের নির্দেশে অবরুদ্ধকৃত সকল এলাকায় খাদ্য সামগ্রী ঘরে ঘরে পৌঁছে দিয়েছি। বিদেশ ফেরত প্রবাসীরা যেহেতু হোম কোয়ারেন্টিনে তাদের এবং সমাজের নিরাপত্তার জন্য পুলিশিং পাহারার ব্যবস্থা করেছি। সে কারণে তারা কেনাকাটা করতে বাহিরে যেতে পারছে না। এই উপলব্দি থেকেই আমরা হোম কোয়ারেন্টেইনে থাকা মানুষের কাছ থেকে নিরাপদ দূরুত্বে থেকে আমরা খাবার পৌঁছে দিচ্ছি। চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী এমপি বলেন, প্রথম পর্যায়ে আমরা পৌরসভার ২ ওয়ার্ডে অবরুদ্ধ মানুষের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেছি। পরবর্তীতে দ্বিতীয় পর্যায়ে উপজেলা ব্যাপী অবরুদ্ধ মানুষের মাঝে এই খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হবে।



অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর