× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকরোনা আপডেট
ঢাকা, ৩০ মার্চ ২০২০, সোমবার

করোনার উপসর্গ নিয়ে পালিয়ে ফেনী থেকে ঢাকায় যুবক

বাংলারজমিন

ফেনী প্রতিনিধি | ২৪ মার্চ ২০২০, মঙ্গলবার, ৮:০২


জ্বর, সর্দি-কাশিসহ করোনা ভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে ফেনী থেকে পালিয়ে চিকিৎসার জন্য ঢাকায় ঘুরে বেড়াচ্ছেন এক যুবক। ঢাকার একটি বেসরকারি কোম্পানিতে অফিস সহকারী যুবকটি গত কয়েক দিন প্রবাসফেরত কয়েকজনকে বিভিন্ন স্থানে দায়িত্ব পালন করেছিল। পরে ওই ব্যক্তির খোঁজে তার অবস্থান করা বাড়িতে যায় স্বাস্থ্য বিভাগের লোকজন। কিন্তু তিনি আগেই পালিয়ে যাওয়ায় ওই ‘বাড়ি লকডাউন’ করে দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েন ফেনীর সিভিল সার্জন সাজ্জাদ হোসেন।
ফেনীর সিভিল সার্জন সাজ্জাদ হোসেন আরো জানান, ফেনীর শহরতলীর পাঁচগাছিয়া এলাকায় (ফেনী-নোয়াখালী আঞ্চলিক মহাসড়কের পাশে) ‘করোনা ভাইরাস সংক্রামিত’ হয়ে বাসায় অবস্থান করছে এমন খবর বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। পরে ওই ব্যক্তির খোঁজে রোববার রাতে তার অবস্থান করা বাড়িতে যায় স্বাস্থ্য বিভাগের লোকজন। কিন্তু সে আগেই পালিয়ে যাওয়ায় রাতেই ওই বাড়ি (সেতু বিল্ডিং) লকডাউন করে দেয়া হয়। এদিকে তার পারিবারিক একটি সূত্র জানায়, রোববার রাতেই ওই ব্যক্তি নিজেই করোনা ভাইরাস শনাক্তের জন্য ঢাকার রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানে (আইইডিসিআর) যান বলে তাদের নিশ্চিত করে।
তবে তিনি কোন বাহনে কিভাবে ঢাকায় পৌঁছান তার সঠিক তথ্য দিতে পারেনি কেউই। অপরদিকে ওই ব্যক্তির স্বজনদের সাথে কথা বলে জানা যায়, ভোর রাতে ওই যুবক আইইডিসিআরে পৌঁছালেও সকাল সাড়ে ৯টার দিকে প্রতিষ্ঠানের সংশ্লিষ্টদের দেখা পান তিনি। তখন প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তারা তাকে একটি কার্ড নিয়ে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে পাঠান। তবে সেখান থেকে পাঠানোর সময় কোনো ধরনের সুরক্ষা ব্যবস্থা ছিল না বলে পারিবারিক ভাবে জানান। এখন তিনি কুর্মিটোলা হাসপাতালে অবস্থান করছেন বলে পরিবার নিশ্চিত করেছেন।
এদিকে ফেনীতে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে সোমবার দুপুর গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ১৪৬ জন প্রবাসীকে হোম কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়েছে। এ নিয়ে জেলার ছয় উপজেলায় ৫২১ জন প্রবাসফেরত হোম কোয়ারেন্টিনে রয়েছে। ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার পর করোনা ভাইরাসের কোন উপসর্গ না পাওয়ায় ২১ জন প্রবাসীকে স্বাভাবিক ভাবে চলাফেরা করার অনুমতি দিয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলা সিভিল সার্জন মো. সাজ্জাদ হোসেন।


অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর