× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৮ নভেম্বর ২০২০, শনিবার

‘অপরাধ করে থাকলে আমার ছেলেকে জেলে দিন’

খেলা

স্পোর্টস ডেস্ক | ২৪ মার্চ ২০২০, মঙ্গলবার, ৮:৪৭

রিয়াল মাদ্রিদ ১৪ দিনের জন্য সেল্ফ কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশ দিয়েছিল লুকা ইয়োভিচকে। কিন্তু সার্বিয়ান এই ফুটবলার নির্দেশনা মানেননি। কোয়ারেন্টিন ভেঙে সার্বিয়াতে চলে যান প্রেমিকার জন্মদিন পার্টি করতে। এ কারণে সার্বিয়ার প্রেসিডেন্ট-প্রধানমন্ত্রীও তিরস্কার করেন ইয়োভিচকে। এমনকি রিয়াল স্ট্রাইকারের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার কথাও বলা হয়। তবে ২২ বছর বয়সী লুকার বাবা মিলান ইয়োভিচের দাবি, তার ছেলে পার্টি করেননি। তবে তিনি জানিয়েছেন, দোষী সাব্যস্ত হয়ে জেলে গেলে নির্দ্বিধায় মেনে নেবেন তিনি।
সংবাদমাধ্যম প্লাস অনলাইনকে ইয়োভিচের বাবা বলেন, ‘লুকার দুটি করোনা টেস্ট করা হয়েছিল, দুটিই নেগেটিভ আসে। এজন্যই ও সার্বিয়ায় ফেরার চিন্তা করে।
এখন মনে হচ্ছে ও অনেক বড় অপরাধী। এর কারণে ওর যদি জেলে যেতে হয়, যাবে। আমি প্রেসিডেন্ট ও প্রাইম মিনিস্টারের সঙ্গে একমত। ও যদি ভুল কিছু করে থাকে আমি সেটা মেনে নিতে রাজি। কিন্তু বেলগ্রেডে ফিরে ও ঘরেই ছিল। ওর প্রেমিকা গর্ভবতী। সেও জন্মদিন পালন করতে বাইরে বের হয়নি। ওদের পার্টি করার যেসব ছবির কথা বলা হচ্ছে সেগুলো সব স্পেনে তোলা।’
এর আগে সার্বিয়ার প্রধানমন্ত্রী ব্রানাবিচ ইয়োভিচের কোয়ারেন্টিন ভাঙা নিয়ে বলেন, ‘আমাদের ফুটবল তারকারাই নেতিবাচক দৃষ্টান্ত স্থাপন করছেন। যা খুবই দুর্ভাগ্যজনক। তারা বিদেশে খেলে কোটি কোটি ইউরো উপার্জন করেন, কিন্তু দেশে ফেরার পর বাধ্যতামূলক ঘরে থাকার নির্দেশটা মানতে পারছেন না!’ এরপর দুঃখ প্রকাশ করেন ইয়োভিচ।
চলতি মৌসুমের শুরুতে আইনট্রাখট ফ্রাঙ্কফুর্ট থেকে ৬০ মিলিয়ন ইউরো ট্রান্সফার ফির বিনিময়ে রিয়াল মাদ্রিদে নাম লেখান ইয়োভিচ। সম্ভাবনা নিয়ে রিয়ালে গেলেও, এখনও পর্যন্ত তেমন কিছুই করতে পারেননি তিনি। মৌসুমের প্রায় মাঝামাঝি পর্যন্ত তিনি খেলতে পেরেছেন ১৫টি ম্যাচের মাত্র ৩৯১ মিনিট, যেখানে গোল মাত্র ২টি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর