× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকরোনা আপডেট
ঢাকা, ২৮ মার্চ ২০২০, শনিবার

এ পর্যন্ত করোনায় প্রাণ হারিয়েছেন ১৯ বাংলাদেশি

করোনা আপডেট

অনলাইন ডেস্ক | ২৫ মার্চ ২০২০, বুধবার, ৩:১৪

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বিশ্বজুড়ে এখন পর্যন্ত অন্তত ১৯ বাংলাদেশি প্রাণ হারিয়েছেন। এরমধ্যে বাংলাদেশেই মারা গেছেন ৫ জন। এছাড়া যুক্তরাষ্ট্রে ৮ জন, যুক্তরাজ্যে ৫ জন ও ইতালিতে ১ জন বাংলাদেশি মারা যান।

গত ১৮ই মার্চ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ঢাকায় এক বৃদ্ধের মৃত্যুর খবর দেয় জাতীয় রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা বিভাগ (আইইডিসিআর)। দেশের মাটিতে এটিই ছিল করোনায় প্রথম মৃত্যু। এরপর ২১শে মার্চ মহাখালীর স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের জরুরি সংবাদ সম্মেলনে করোনায় আক্রান্ত হয়ে বাংলাদেশে আরেকজনের মৃত্যুর খবর জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। গত ২৩শে মার্চ করোনা ভাইরাসে দেশে আরেকজনের মৃত্যু হয় বলে জানায় আইইডিসিআর। ওই দিন বিকেলে অনলাইন ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান আইইডিসিআর-এর পরিচালক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা। মঙ্গলবার বিকেলে অনলাইন লাইভ ব্রিফিংয়ে আইইডিসিআরের পক্ষ থেকে পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা চতুর্থ ব্যক্তির মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেন।
সবশেষ আজ আরেকজনের মৃত্যুর খবর জানিয়েছে আইইডিসিআর। আজ দুপুরে আইইডিসিআর পরিচালক মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা অনলাইন ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান। তবে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত নতুন কোনো রোগী শনাক্ত হয়নি বলে জানান তিনি।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মঙ্গলবার চারজন বাংলাদেশি মারা গেছেন। তাদের মধ্যে দু’জন নারী ও দু’জন পুরুষ। এ নিয়ে নিউইয়র্কে করোনা ভাইরাসে মোট আটজন বাংলাদেশি মারা গেলেন। এলমহার্স্ট হসপিটালে ৬০ বছরের আবদুল বাতেন, ৭০ বছরের নূরজাহান বেগম এবং ৪২ বছরের এক বাংলাদেশি প্রবাসী নারী মারা যান। প্লেইনভিউ হসপিটাল নর্থওয়েলে মারা গেছেন ৫৯ বছরের এটিএম সালাম। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

এর আগে যুক্তরাষ্ট্রে গত ২৩শে মার্চ মারা গেছেন ৩৮ বছরের আমিনা ইন্দ্রালিব তৃষা এবং ৬৯ বছরের মোহাম্মদ ইসমত। তার আগের সপ্তাহে মারা গেছেন মোতাহের হোসেন ও মোহাম্মদ আলী নামের দু’জন বাংলাদেশি।

লন্ডনে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে সবশেষ মঙ্গলবার সকালে খসরু মিয়া নামে এক বাংলাদেশি মারা গেছেন। তার বয়স হয়েছিল ৪৯ বছর। তিনি পেশায় ব্যবসায়ী ছিলেন। এ পর্যন্ত যুক্তরাজ্যে সর্বমোট ৫ জন বাংলাদেশির মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। মঙ্গলবার একই হাসপাতালে হাজি জমসেদ আলী (৮০) নামের আরেকজন বাংলাদেশি মৃত্যুবরণ করেন। হাজি জমসেদ আলীও পূর্ব লন্ডনের বাঙালি অধ্যুষিত হোয়াইট চ্যাপেলের সেটেলস স্ট্রিট এলাকায় বসবাস করতেন। যুক্তরাজ্যে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত  হয়ে মৃত্যুবরণকারী প্রথম ব্যক্তি ছিলেন ম্যানচেস্টারে বসবাসরত ৬০ বছর বয়সী এক বাংলাদেশি। তিনি পাঁচ থেকে ছয় বছর আগে ইতালি থেকে এসে স্থায়ীভাবে বসবাস করছিলেন বৃটেনে।

দ্বিতীয় বাংলাদেশি মৃত্যুবরণ করেছেন লন্ডনের বাঙালি অধ্যুষিত টাওয়ার হ্যামলেটসে। করোনা ভাইরাসের সঙ্গে হাসপাতালে আটদিন যুদ্ধ করার পর পূর্ব লন্ডনের রয়েল লন্ডন হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন ৬৬ বছর বয়সী ওই ব্যক্তি। তৃতীয় বাংলাদেশি মৃত্যুবরণ করেছেন যুক্তরাজ্যে সফররত এক বাংলাদেশি। লন্ডনের গ্রেট অরমন্ড হাসপাতালে তিনি চিকিৎসাধীন ছিলেন।

এছাড়া ইতালির মিলানে গত ২০শে মার্চ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা যান এক বাংলাদেশি। পাসপোর্টের তথ্য অনুযায়ী, তার বয়স ৫০ হলেও ঘনিষ্ঠজনেরা জানান, প্রায় ৬০ বছর বয়সী ছিলেন ওই ব্যক্তি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর