× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকরোনা আপডেটকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজান
ঢাকা, ৭ জুন ২০২০, রবিবার
কলকাতা কথকতা

কলকাতা আছে সেই কলকাতাতেই

কলকাতা কথকতা

জয়ন্ত চক্রবর্তী, কলকাতা | ৪ মে ২০২০, সোমবার, ৪:২৫

দক্ষিণ কলকাতার  কসবা অঞ্চলে বিজন সেতু৷ বাল্লিগঞ্জ এর সঙ্গে কসবার সংযুক্তি ঘটিয়েছে এই সেতু৷  সেতুর কসবার দিকে রাজপথে বিশাল বাজার বসেছে৷ মাছ,  মুরগি,  আলু,  ঢেঁড়শ,  পটল কিনছে মুক্তকচ্ছ মানুষ৷  যে পুলিশ দুদিন আগে কসবার একটা অঞ্চলকে কন্টেনমেন্ট জোন  ঘোষণা করেছিল,  সেই পুলিশই  আবার বাজার পাহারা দিচ্ছে৷  করোনার আবহে  এই পরস্পরবিরোধিতার ছবি সর্বত্র৷ কেন্দ্র একরকম বলছে,  রাজ্য অন্যরকম৷ পুলিশ আবার নিজের নিয়মে  চলছে৷  সব কিছু মিলে লকডাউনের তৃতীয় পর্ব শুরু হাতেই কলকাতা যেন পুরোনো চেনা ছন্দে৷ গড়িয়াহাট,  চেতলা,  নিউ আলিপুর,  হাজরা,  পার্ক সার্কাস,  থিয়েটার রোড ঘুরলাম গাড়িতে৷  রাস্তায় হৈহৈ করে বেরিয়ে পড়েছে গাড়ি,  টু  হুইলার৷ বেশ  কয়েকটা জায়গায় মানুষ পিলপিল করে  বাজার করছে৷ দেখে মনে হচ্ছে লকডাউন উৎসব চলছে৷ প্রচুর দোকানপত্র খোলা৷ জেরক্স সেন্টার থেকে শুরু করে  দর্জির দোকান৷  সেলুন এখনো খোলেনি,  তাই বেশিরভাগ লোকই চুল দাড়িতে রবীন্দ্রনাথ৷ কিন্তু মানুষের ফুর্তি দেখলে অবাক হতে হয়৷  চেতলা মার্কেট এর সামনে দাঁড়িয়ে গাড়ির চালক শৈলেন দাস বললেন,  একটু দাঁড়াবেন,  দেখে আসবো কেলভিন মুরগি আছে কিনা৷ আহা,  ঠিক যেন পাঁঠার মাংস৷ একে লকডাউন এর উৎসব ছাড়া আর কী বলবেন !  পার্কসার্কাস এর মোড়ে ভিড় জজমাট৷  পুলিশের টহলদারি আর নাকা  চেকিং আছে৷  কিন্তু হতভম্ব পুলিশও বুজছেনা কী করা উঁচিত আর কী নয়৷  লকডাউন চলার কথা সতের মে পর্যন্ত৷  কিন্ত তার আগেই মানুষ তালা ভাঙছে৷  সিঁদ  কেটে হয়তো ডাকাতকে আমন্ত্রণ জানাচ্ছে৷

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর