× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকরোনা আপডেটকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজান
ঢাকা, ৩০ মে ২০২০, শনিবার

উপসর্গ কমলে টেস্ট ছাড়াই হাসপাতাল থেকে ছুটি নিয়ে বিতর্কে ভারতে

ভারত

কলকাতা প্রতিনিধি | ১০ মে ২০২০, রবিবার, ১:১৫

ভারতে করোনা সংক্রমণ ও মৃতের সংখ্যা যখন বেড়ে চলেছে, তখন তার পরীক্ষা নিয়ে ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রকের সর্বশেষ এক সিদ্ধান্ত নতুন করে বিতর্ক তৈরি করেছে। শনিবার স্বাস্থ্য মন্ত্রকের জারি করা এক গাইডলাইনে জানানো হয়েছে, জ্বর, সর্দি কাশির মতো মৃদু উপসর্গ নিয়ে ভর্তি হওয়া কোনও রোগী হাসপাতালে ১০ দিন কাটানোর পর তাঁকে ছেড়ে দেওয়ার সময় আর তাঁর রিভার্স ট্রান্সক্রিপশন পিসিআর (আরটি-পিসিআর) টেস্ট করানোর দরকার নেই। পরীক্ষা করে দেখার দরকার নেই, শেষ মুহূর্তে কোভিড-১৯ তাঁর শরীরে বাসা বেঁধেছে কি না। তবে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের মতে, এই গাইডলাইন আগামী দিনে করোনা সংক্রমণের আশঙ্কা আরও বাড়িয়ে তুলবে। শনিবার ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রকের এই গাউডলাইন প্রকাশ্যে আসার পর প্রবল বিতর্ক শুরু হয়েছে। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের নতুন গাইডলাইন অনুযায়ী, খুব মৃদু, মৃদু এবং কোনও উপসর্গ মেলেনি, এমন রোগীদের ক্ষেত্রে টানা তিন দিন জ্বর আর না এলে, তাঁদের অক্সিজেন দেওয়ার আর প্রয়োজন না হলে হাসপাতালে ১০ দিন কাটানোর পর ছেড়ে দেওয়া যাবে। আর সেই ডিসচার্জের সময় কোনও রক্তপরীক্ষা, আরটি-পিসিআর টেস্ট করানোর প্রয়োজন নেই। তবে বাড়িতে ফিরে গিয়ে তাঁদের এক সপ্তাহ আইসোলেশনে থাকতে হবে বলে জানানো হয়েছে।
চিকিৎসকদেও মতে, ১০ দিন বা ১৪ দিন পর যে কোভিড-১৯-এর সংক্রমণ হবে না, এ ব্যাপারে এখনও তো নিশ্চিত হতে পারেননি বিজ্ঞানী বা চিকিৎসকেরা। গবেষণা চলছে। এখনও শেষ হয়নি। সে ক্ষেত্রে ১০ দিন কাটানোর পর হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়ার সময় যদি রোগীর রক্তপরীক্ষা না করা হয়, তা হলে তিনি যে তত দিনে সংক্রমিত হননি, তার কী নিশ্চয়তা আছে। অনেকে উপসর্গহীনও তো হন। কারণ, বিদেশে দেখা গিয়েছে, ১০ বা ১৪ দিন পরেও কোভিড-১৯ ভাইরাসে রোগী আক্রান্ত হয়েছেন। তবে স্বাস্থ্য মন্ত্রকের এক কর্তা বলেছেন, আমরা রোগটি সম্পর্কে যেমন যেমন জানতে পারছি, সেই ভাবেই গাইডলাইন বদলানো হচ্ছে। আগামী দিনে ভাইরাসটি সম্পর্কে আরও জানতে পারলে আমাদের গাইডলাইন আরও বদলাবে। আমরা অভিজ্ঞতা থেকে শিখছি। কোভিড-১৯ ভাইরাস নিয়ে অন্য দেশগুলির গবেষণা থেকে জানছি। রোগ প্রতিরোধে বিভিন্ন সময়ে আমেরিকার ‘সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন’ কী ভাবে তাদের গাইডলাইন তৈরি করছে, বদলানো হচ্ছে, আমরা তার উপরেও নজর রাখছি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর