× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকরোনা আপডেটকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজান
ঢাকা, ১ জুন ২০২০, সোমবার

লালা ব্যবহার নিষিদ্ধ করতে যাচ্ছে আইসিসি

খেলা

স্পোর্টস ডেস্ক | ২০ মে ২০২০, বুধবার, ১২:২৫

পৃথিবীর চিত্র পুরোই বদলে গেছে করোনা ভাইরাসের কারণে। মরণঘাতী এ ভাইরাস থেকে রেহাই পেতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি) প্যানেল বলে থুতুর ব্যবহার নিষিদ্ধ করার সুপারিশ জানিয়েছে। এছাড়া ডিসিশন রিভিউ সিস্টেম (ডিআরএস) ও ম্যাচ অফিসিয়াল নিয়োগের নিয়মে পরিবর্তন আনছে সংস্থাটি। আইসিসি ক্রিকেট কমিটির এ প্রস্তাবনাগুলো আসছে জুনের প্রথম সপ্তাহে সংস্থার নির্বাহী কমিটিতে তোলা হবে। সেখানে অনুমোদন মিললেই কার্যকর হবে মাঠে।
থুতু ব্যবহার
করোনার আগমনের পর থেকে বলে থুতু ব্যবহার নিয়ে অনেক আলোচনা হচ্ছে। এটা নিষিদ্ধের পক্ষেই বেশিরভাগ মানুষ। কিন্তু এতে পেস বোলাররা বল উজ্জ্বল করতে পারবেন না। বিকল্প হিসেবে মোম জাতীয় দ্রব্য ব্যবহারের বিষয়টি সামনে এসেছে।
অস্ট্রেলিয়ার বিখ্যাত প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান কুকাবুরা জানিয়েছে, তারা এক ধরনের বিশেষ মোম তৈরি করছে যা দিয়ে বল শাইন করা যাবে। সাবেক অজি লেগস্পিনার শেন ওয়ার্নের পরামর্শ, বলের একদিক ভারী করে দেয়ার।  অনিল কুম্বলের নেতৃত্বাধীন ১৬ সদস্য বিশিষ্ট আইসিসির কমিটি সোমবার জানায়, ক্রিকেট পুনরায় মাঠে ফিরলে বলে লালা বা থুতু ব্যবহার নিষিদ্ধ করার পক্ষে তারা। আইসিসির মেডিকেল উপদেষ্টা কমিটির প্রধান ডা. পিটার হারকোর্ট কুম্বলের নেতৃত্বাধীন কমিটিকে জানিয়েছেন, লালার ব্যবহারে ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার ঝুঁকি বাড়তে পারে। তবে মেডিকেল কমিটি নিশ্চিত করেছে, ঘামের মাধ্যমে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা কম। তাই বলের ঔজ্জ্বল্য বাড়াতে ঘাম ব্যবহার নিষিদ্ধের প্রয়োজন দেখছে না আইসিসি কমিটি।

স্থানীয় ম্যাচ অফিসিয়াল নিয়োগ ও ডিআরএস বৃদ্ধি
কভিড-১৯ মহামারী আকার নেয়ার পর আন্তর্জাতিক ভ্রমণ নিষিদ্ধ করা হয়। এখনো বহাল আছে এ নিষেধাজ্ঞা। আইসিসি কমিটির পরামর্শ- স্বল্প মেয়াদের জন্য সকল আন্তর্জাতিক ম্যাচে স্থানীয় ম্যাচ অফিসিয়াল নিয়োগ দেয়ার। আগে আন্তর্জাতিক ম্যাচে আইসিসির আম্পায়ার থাকাটা ছিল বাধ্যতামূলক। ২০০২ থেকে নিরপেক্ষ আম্পায়ার আইন প্রবর্তন হওয়ার পর এলিট প্যানেলের ১০ জন আম্পায়ার প্রায় সব টেস্ট ম্যাচে দায়িত্ব পালন করেছেন। এলিট প্যানেল আম্পায়ারের সংখ্যা নির্দিষ্ট হওয়ায় আইসিসি তাদের ইন্টারন্যাশনাল প্যানেলের আম্পায়ারদের ব্যবহার করবে। প্রতি বছরের ১লা জুন আম্পায়ারদের প্যানেল হালনাগাদ করা হয়। আম্পায়ারদের সহযোগিতার উদ্দেশ্যে প্রযুক্তির ব্যবহার বৃদ্ধির জন্যও সুপারিশ করা হয়েছে। স্বল্প সময়ের জন্য দলগুলোর প্রতি ইনিংসে বাড়তি ডিআরএস (ডিসিশন রিভিউ সিস্টেম) যোগ করার প্রস্তাবনা দেয়া হয়েছে। যা সব ফরম্যাটেই কার্যকর হবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর