× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকরোনা আপডেটকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজান
ঢাকা, ৭ জুলাই ২০২০, মঙ্গলবার

ইউরোপীয় দুই কোম্পানির বিরুদ্ধে ডিমে বিষ মেশানোর অভিযোগ প্রমাণিত

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ৩০ মে ২০২০, শনিবার, ১০:৪৮

নেদারল্যান্ডস ও বেলজিয়ামের দুটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ডিমে বিষ মেশানোর অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিলো, তারা ডিম জীবাণুমুক্ত করার নামে এতে বিষাক্ত ফিপ্রোনিল কেমিকেল মিছিয়েছে। বুধবার নেদারল্যান্ডের আরনেম শহরের আদালতে তাদের বিরুদ্ধে থাকা অভিযোগ প্রমাণিত হলে আদালত প্রতিষ্ঠান দুটিকে দোষি সাব্যস্ত করে। ২০১৭ সালে তাদের বিরুদ্ধে ওই অভিযোগ আনা হয়। এতে বলা হয়, ডিমের জীবানু ধ্বংসের নামে তারা এতে মাছি ও উকুন মারার কীটনাশক ছিটিয়েছে। প্রতিষ্ঠান দুটো ইউক্যালিপটাস এবং মেন্থল মিশিয়ে তৈরি করা নিরাপদ জীবাণুনাশক বলে চালিয়ে দিলেও সেই ওষুধে আসলে ফিপ্রোনিল থাকে৷ এর ফলে তখন ৩০ লাখের বেশি মুরগি মেরে ফেলতে হয়েছিল। ধ্বংস করা হয়েছিল কোটি ডিম। ইউরোপের ২৫ টি দেশ ও হংকংয়ের বাজার থেকে লক্ষ লক্ষ ডিম ফিরিয়ে নিয়ে নষ্ট করতে বাধ্য হন মুরগি খামারিরা৷ ২০১৭ সালে চিকফ্রেন্ড এবং চিকক্লিনের দুই নির্বাহীকে গ্রেপ্তার করা হলেও পরে মামলা নিষ্পত্তির আগ পর্যন্ত তারা জামিনে মুক্তি পান৷ আড়াই বছর আগে ইউরোপের ১২০ জন মুরগি খামারি নেদারল্যান্ডস ও বেলজিয়ামের প্রতিষ্ঠান দুটির মালিকের বিরুদ্ধে মামলা করেছিল৷ মামলায় ক্ষতিপূরণও দাবি করেছিলেন তারা৷

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর