× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকরোনা আপডেটকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজান
ঢাকা, ১৩ জুলাই ২০২০, সোমবার

কভিড-১৯ শ্বেতাঙ্গদের চেয়ে মৃত্যুর দ্বিগুণ ঝুঁকিতে বৃটিশ-বাংলাদেশিরা

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ২ জুন ২০২০, মঙ্গলবার, ১১:২৮

বৃটেনে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূতরা শেতাঙ্গদের তুলনায় কভিড-১৯ রোগে মৃত্যুর দ্বিগুণ ঝুঁকিতে রয়েছে। অপরদিকে চীনা, ভারতীয়, পাকিস্তানি, অন্যান্য এশিয়ান বংশোদ্ভূত, ক্যারিবিয়ান ও কৃষ্ণাঙ্গরাও বৃটিশ শ্বেতাঙ্গদের তুলনায় ১০-৫০ শতাংশ বেশি মৃত্যুর ঝুঁকিতে আছে। পাবলিক হেলথ ইংল্যান্ড-এর করা এক সাম্প্রতিক প্রতিবেদনে এমনটা বলা হয়েছে। ‘কভিড-১৯ রোগের ঝুঁকি ও ফলাফলে বৈষম্য’ শীর্ষক ওই প্রতিবেদক বৃটিশ সরকারি ওয়েবসাইটে মঙ্গলবার প্রকাশিত হয়েছে। এতে বলা হয়, ‘কভিড-১৯ রোগীদের মধ্যে বেঁচে যাওয়ার হার তুলনা করে লিঙ্গ, বয়স, বঞ্চনা, ধর্ম ইত্যাদি বিবেচনায় নিয়ে দেখা গেছে যে, শ্বেতাঙ্গ বৃটিশদের চেয়ে বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত বৃটিশদের মৃত্যুর ঝুঁকি প্রায় দ্বিগুণ বেশি।’ শ্বেতাঙ্গ ব্যতিত অন্যান্য জাতির মানুষেরও এই ঝুঁকি বেশি দেখা গেছে। কিন্তু অন্যান্য সব ধরণের মৃত্যুর কারণের দিক থেকে শ্বেতাঙ্গরাই এতদিন বেশি মৃত্যুর ঝুঁকিতে ছিল। কিন্তু কভিড-১৯ রোগের ক্ষেত্রে সম্পূর্ণ বিপরীত চিত্র দেখা যাচ্ছে। তবে প্রতিবেদনে এ-ও বলা হয়েছে যে, এই বিশ্লেষণের একটি সীমাবদ্ধতা হচ্ছে, রোগীর পেশাকে এখানে আমলে ধরা হয়নি।
এই কভিড-১৯ মহামারির সময় অনেক ঝুঁকিপূর্ণ পেশায় কর্মরতদের বেশিরভাগই হলেন বাংলাদেশী বা দক্ষিণ এশিয় বংশোদ্ভূত বৃটিশরা। এছাড়া আরও কিছু দুর্বলতাও রয়েছে প্রতিবেদনে। এখন পর্যন্ত যুক্তরাজ্যে ২ লাখ ৭৬ হাজার রোগী শনাক্ত হয়েছে। মঙ্গলবার পর্যন্ত ৩৯ হাজার মানুষ দেশটিতে মারা গেছেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর