× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকরোনা আপডেটকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজান
ঢাকা, ১৩ জুলাই ২০২০, সোমবার

অবশেষে নিঃশর্ত মুক্তি পেলেন নিরপরাধ সেই রুবেল

অনলাইন

অনলাইন ডেস্ক | ৩ জুন ২০২০, বুধবার, ৯:১৪

অবশেষে নিঃশর্ত মুক্তি পেলেন দুই মাস ২৩ দিন কারাগারে থাকা নিরপরাধ মো. রুবেল (২৩)। হাইকোর্টের নির্দেশ ও শিবগঞ্জ থানা পুলিশের আবেদনে বুধবার নির্দোষ রুবেলকে নিঃশর্ত মুক্তির আদেশ দেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক আবু কাহার।
পরে সন্ধ্যায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা কারাগার থেকে ছাড়া পান রুবেল। রুবেল চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার পাকা ইউনিয়নের ছোপাক গ্রামের মো. মন্টুর ছেলে।

গত ১০ই মার্চ পুলিশ ভুলক্রমে প্রকৃত আসামি রুবেল আলী ওরফে রুবেল বাবুলের বদলে মো. রুবেলকে একটি মামলার গ্রেফতারি পরোয়ানায় গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠায়। সেই থেকে মো. রুবেল কারাবন্দী ছিলেন।

এর আগে একটি জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত সংবাদ সূত্রের উল্লেখ করে বিনা অপরাধে কারাগারে থাকা মো. রুবেলের বিষয়টি হাইকোর্টের দৃষ্টিতে আনেন অ্যাডভোকেট শিশির মনির। বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিমের হাইকোর্টের একক বেঞ্চে মো. রুবেলের গ্রেফতার ও বিনা অপরাধে কারাবন্দী থাকার বিষয়টি নিয়ে শুনানির আবেদন করেন আইনজীবী। হাইকোর্ট আবেদনটি মঞ্জুর করে শুনানি করেন।

স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে মানবিক কারণে মো. রুবেলের পক্ষে শুনানিতে অংশ নেন হাইকোর্টের আইনজীবী শিশির মনির ও রাষ্ট্রপক্ষে শুনানিতে অংশ নেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অমিত তালুকদার।

শুনানি শেষে বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম মামলার আসামি না হয়েও এবং বিনা অপরাধে কারাগারে থাকা মো: রুবেলকে দ্রুত সময়ে নিঃশর্ত মুক্তির আদেশ দেন। আদেশটি চাঁপাইনবাবগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে যথাযথ মাধ্যমে পাঠানো হয়।

অন্যদিকে নির্দোষ মো. রুবেলকে কারামুক্ত করতে শিবগঞ্জ থানার ওসি শামসুল আলম শাহ বুধবার মো. রুবেলকে ভুলক্রমে গ্রেফতারের বিষয়টি জানিয়ে তাকে মুক্তি দিতে চাঁপাইনবাবগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তৃতীয় আদালতে একটি আবেদন করেন।

থানার ওসি আতিকুল ইসলামকে বিষয়টি তদারকির জন্য আদালতে পাঠানো হয়। বিকালে এই বিষয়ে শুনানি শেষে বিচারক আবু কাহার ভুলক্রমে গ্রেফতার হওয়া মো. রুবেলকে নিঃশর্ত মুক্তির আদেশ দেন।

একই সঙ্গে আলোচিত মামলাটির প্রকৃত আসামি পলাতক মো. রুবেল আলী ওরফে বাবুলের বিরুদ্ধে পুনরায় গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির আদেশ দেন।
তবে তথ্য যাচাই না করে একজন নিরপরাধ ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠানো ও তাকে দুই মাস ২৩ দিন কারাবাসে বাধ্য করার অপরাধে ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা পুলিশসহ শিবগঞ্জ থানা পুলিশের সংশ্লিষ্টদের কারণ দর্শানোর আদেশ দেন।

মামলার পরবর্তী নির্ধারিত তারিখে আদালতে উপস্থিত হয়ে তাদেরকে এর জবাব দিতে বলা হয়েছে। এদিকে আদালতের আদেশের কপি জেলা কারাগারে পৌঁছালে সন্ধ্যায় মো. রুবেল মুক্তি পান।

কারাগার থেকে মুক্তির পর মো. রুবেল বলেন, তিনি কোনো অপরাধ করেননি। স্থগিত হওয়া ইউপির উপনির্বাচনে তিনি নৌকা প্রার্থীর হয়ে কাজ করছিলেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Hasnat
৩ জুন ২০২০, বুধবার, ৪:১১

আমার পিতার জন্ম 24 August 1931আমাদের ছোট একটা পারিবরিক বিবাদের জের ধরে আমার পিতার কমিয়ে 60 Sixty লিখে দিয়েছে. আমার পিতা বয়সের ভারে ভালভাবে হাঁটা চলা করতে পারেন না আমরা বুঝতে পারি না তিনি কিভাবে ঝগড়া ঝাটিতে লিপ্ত হবেন. Rab এর উপমহাপরিচালক ও একজন সাবের সচিব সহ অনেকে ফোন করেছেন সুনামগঞ্জ জেলার জগন্নাথ পুর থানার ওসির কাছে তিনি কার কথা কর্নপাত করেন নাই তিনি ঘোষ ছাড়া কিছুই বুঝেন না.

আনিস উল হক
৩ জুন ২০২০, বুধবার, ১১:০০

যে কোনো প্রকার ক্ষমার অযোগ্য ভুল।

Kamal
৩ জুন ২০২০, বুধবার, ১০:৫৯

Bina oporad 83 days already in the jail. How much his family waste money for this false or mistake. General people suffering from the policeman mistake. How we claim that, Bangladesh is Digital country??? Where police cannot identify the real victim.

অন্যান্য খবর