× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকরোনা আপডেটকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজান
ঢাকা, ৮ জুলাই ২০২০, বুধবার

গাংনীতে করোনা আক্রান্তের অযুহাতে বাবাকে বিতাড়িত করল সন্তানেরা

বাংলারজমিন

গাংনী (মেহেরপুর) প্রতিনিধি | ৫ জুন ২০২০, শুক্রবার, ৪:৫৮

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে এমন অযুহাতে বাবাকে মারধর করে বাড়ি থেকে বিতাড়িত করেছে ছেলে সজল ও সাগর। এমনকি বাবার মাথা গোঁজার ঠাঁই ছোট্ট কুঁড়ে ঘরটিও ভেঙ্গে দেয়া হয়েছে। বিচারের দাবিতে বিতাড়িত বাবা সাইফুল ইসলাম (৪৮) দ্বারে-দ্বারে ঘরছে। বৃহস্পতিবার বিকেলে ঘটনাটি ঘটেছে গাংনী উপজেলার কুলবাড়ীয়া গ্রামে।
জানা গেছে, কুলবাড়ীয়া গ্রামের সাইফুল ইসলাম ১ম স্ত্রী ও ৩ ছেলে-মেয়েকে রেখে দীর্ঘ সময় ক্ষুদ্র ব্যবসার সুবাদে ঢাকাতে অবস্থান করে আসছিলেন। এমনকি সেখানে তিনি ২য় বিয়ে করে বসবাস করে আসছেন। গ্রামের বাড়ীতে মাঝে মধ্যে আসলেও সে ১ম  স্ত্রীর কোন খোঁজ খবর রাখেন না। তারপরেও বাবা সন্তানের কল্যাণে তাকে বিদেশে পাঠানোর সময় ২য় স্ত্রীর নিকট থেকে  ১ লাখ টাকা দেয়। সম্প্রতি প্রবাস ফেরত ছেলে সজল আলী (৩০)  বাড়ীতে অবস্থান করছে।
এই খবর পেয়ে বাবা টাকা  ফেরত চাইতে সম্প্রতি ঢাকা থেকে বাড়ীতে আসেন। ছেলে সজল ও সাগর টাকার কথা অস্বীকার করে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত বলে বাবাকে মারধর করে বাড়ি থেকে বিতাড়িত করে । বাবা সাইফুল ইসলাম বর্তমানে গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
১ম স্ত্রী রেহেনা খাতুন জানান,  অনেক আগে আমার ছোট্ট ছেলে-মেয়ের রেখে সে বাড়ি থেকে চলে গেছে। সে কোন দিন আমাদের কোন খোঁজ খবর নেয় না। কোন টাকা পয়সাও দেয়না। ২য় বিয়ে করে সেখানেই সে থাকে। তবে আমার ছেলে বিদেশ যাওয়ার সময় ৭০ হাজার টাকা দিয়েছিল। আমার ছেলেরা তাকে মারধর বা বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয়নি। করোনা ভাইরাসে  আক্রান্ত হতে পারে ভেবে তাকে পরিবারের  বাইরে থাকার জন্য বলা হয়েছিল।
আহত সাইফুল ইসলাম জানান, আমি টাকা ফেরত চাইতে বাড়ীতে আসলে আমাকে মারধর করে তাড়িয়ে দিয়েছে। আমি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত নই। ইতোমধ্যই নমুনা পরীক্ষা করে নেগিটিভ হয়েছে।
   
গাংনী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ওবাইদুর রহমান জানান,অভিযোগ  পেলে ঘটনা তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর