× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ৯ আগস্ট ২০২০, রবিবার
কলকাতা কথকতা

জলের রুপালি শস্য ইলিশ এলো কলকাতার বাজারে, লকডাউনে আরও সুস্বাদু

কলকাতা কথকতা

জয়ন্ত চক্রবর্তী, কলকাতায় | ১৯ জুন ২০২০, শুক্রবার, ১১:৩২

মরশুমের প্রথম ইলিশ শুক্রবার এসে পৌছালো কলকাতার বাজারে। ১৫ জুন ইলিশ ধরার নিষেধাজ্ঞা উঠে যাওয়ার পর বদর বদর আওয়াজ তুলে যে ট্রলারগুলো মোহনা যাত্রা করেছিল, তারই কয়েকটি বৃহস্পতিবার ফিরে এসে ডায়মন্ডহারবার এর নগেন্দ্র মার্কেটে উগরে দিয়েছে প্রায় চল্লিশ টন ইলিশ। সেই ইলিশ শুক্রবার ভোরে এসে পৌঁছেছে গড়িয়াহাট মার্কেট, লেক মার্কেট, মানিকতলা বাজার, বেহালা বাজার, টালিগঞ্জ মার্কেটে। পুষ্ট, রুপালি মাছের দাম ছ শো থেকে সাতশো গ্রাম ওজনের ইলিশ কিলোপ্রতি ন'শো টাকা। ন’শো গ্রাম ওজনের মাছ কিলোপ্রতি সাড়ে এগারোশ টাকা। তবে, এবারের ইলিশ অনেক বেশি সুস্বাদু হবে বলে জানাচ্ছেন সেন্ট্রাল ইনল্যান্ড ফিসারিজ রিসার্চ ইনস্টিটিউট। তারা জানাচ্ছে, ইলিশ হলো পরিযায়ী মাছ। বঙ্গপোসাগর থেকে ফারাক্কা পর্যন্ত প্রায় পাঁচশো কিলোমিটার তারা পাড়ি দেয় প্রজনন ঋতুতে মিষ্টি জলের সন্ধানে।
ইলিশের পোনা তিন থেকে চার ইঞ্চি আকার হওয়ার পর আবার একই পথ ধরে ফিরে যায় সাগরে। এই যাত্রাকে পরিযান বলে। এই সময় জল যত বেশি স্বচ্ছ হয় ইলিশ তত সুস্বাদু হয়। কারণ এই সময়টাতে ইলিশ কিছু খায়না। তাদের শরীর থেকে খনিজ লবন ও আয়োডিন নিঃসৃত হয়। এবার মার্চ এর শেষ থেকে লকডাউন চলায় কল কারখানার বর্জ্য জলকে দূষিত করতে পারেনি। নদীপথে জাহাজ, ট্রলার কিংবা ভুটভুটি চলেনি। পেট্রল - ডিজেল অধ্যুষিত হয়নি জল। বৃষ্টির ফলে জলের জোগানও আছে। ফলে, এবার ইলিশের স্বাদ হবে অনেক ভালো। বাঙালি অন্তত লকডাউন এর একটি সুফল পাবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর