× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকরোনা আপডেটকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজান
ঢাকা, ১৪ জুলাই ২০২০, মঙ্গলবার

ডক্টর ইউনূস দেদীপ্যমান অগ্নি

মত-মতান্তর

শহীদুল্লাহ ফরায়জী | ২৮ জুন ২০২০, রবিবার, ৪:৫৩

দারিদ্র বৈষম্য ও প্রকৃতি নিধন চিরতরে পৃথিবী থেকে বিলোপ করার স্বপ্ন বাস্তবায়নের দেদীপ্যমান অগ্নি যার মাঝে বিরাজমান তিনি হচ্ছেন ডক্টর মুহাম্মদ ইউনূস। যার জীবনের একটিই লক্ষ্য দারিদ্র্যকে জাদুঘরে পাঠানো। দারিদ্র্যকে জাদুঘরে পাঠানোর বিশ্বব্যাপী বিশাল কর্মযজ্ঞের নায়ক তিনি। সকল মানুষের মাঝে সৃজনশীলতার উজ্জ্বল আলো দেখতে পারেন তিনি।
ডক্টর ইউনূস দারিদ্র, বঞ্চনা, বৈষম্য অসমতার বিরুদ্ধে আজীবন নিবেদিত। শোষণ নিপীড়নের অন্যায্য সমাজ ব্যবস্থা উচ্ছেদের স্বপ্নে তিনি বিভোর। দারিদ্র শূন্য, বেকারত্ব শূন্য ও শূন্য কার্বন-এই তিন শূন্যের উদ্ভাবক তিনি, তিন শূন্যের একমাত্র স্বপ্নচারীও তিনি।

তিনি আমাদের গর্বিত সন্তান নোবেল লরিয়েট ড. মুহাম্মদ ইউনূস ।
আজ তাঁর ৮০তম জন্মদিন। ১৯৪০ সালের ২৮ জুন এই মাটিতে তিনি জন্মগ্রহণ করেন।বৈশ্বিক ভাবে পালিত হচ্ছে এই দিবস।
করোনায় বিপর্যস্ত সারা বিশ্বের অর্থনীতি পুনর্গঠনের সুযোগ কে কাজে লাগানোর আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।
পুঁজিবাদী অর্থনীতির অধঃপতন ও নির্মমতার বিপরীতে পৃথিবীকে বদলে দিতে তাঁর সামাজিক ব্যবসার নতুন দর্শন সারা বিশ্বকে আলোড়িত করছে। তাঁর চিন্তার অভিঘাত ছড়িয়ে পড়ছে সারা বিশ্বজুড়ে। ৩৩ টি দেশে ৮৩ টি বিশ্ববিদ্যালয়ে তাঁর নামে ইউনূস সোশ্যাল বিজনেস সেন্টার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। পুঁজি বিনিয়োগ হবে অথচ মুনাফা পাবেনা এটা আমাদের অর্থশাস্ত্রের কথা নয়। অথচ তিনি বলেছেন পুঁজি বিনিয়োগ হবে লক্ষ্য থাকবে মুনাফার পরিবর্তে মানব কল্যাণ।
৪২টি দেশে অনুসরণ করা হয় গ্রামীণ ব্যাংকের মডেল। তাঁর বক্তব্য শোনার জন্য বিশ্বের তাবৎ অর্থনীতিবিদ প্রযুক্তিবিদ ও পরিকল্পনাবিদরা অপেক্ষায় উন্মুখ হয়ে থাকেন।
তিনি নোবেল শান্তি পুরস্কার ছাড়াও বিশ্ব খাদ্য পুরস্কার, গান্ধী পুরস্কার , হো চি মিন পুরস্কার, সাইমন বলিভার পুরস্কার, প্রেসিডেন্সিয়াল মেডেল অব ফ্রিডম পুরস্কার, কংগ্রেসনাল গোল্ড মেডেল পুরস্কারসহ পৃথিবীর তাবৎ উচ্চ মর্যাদার পুরস্কার লাভ করেছেন।
ডক্টর ইউনূস আমাদের অহংকার। কিন্তু জাতিগতভাবে আমরা তার যথার্থ মর্যাদা দিতে পারিনি।
বিশ্ব বিখ্যাত ঐতিহাসিক থমাস বেবিংটন মেকলে 'ওয়ারেন হেস্টিং' বইয়ে (ডক্টর আকবর আলী খান কৃত অনূদিত) বলেছেন ‘মোষের যেমন সিং আছে মৌমাছির আছে হুল, গ্রীক সংগীতে যেমন মেয়েদের সৌন্দর্য তেমনি বাঙ্গালীদের বিশেষত্ব প্রতারণা। প্রতিজ্ঞা ভঙ্গ করার সুন্দর অজুহাত দেখায়, প্রতারণা মিথ্যা হলফ জালিয়াতি এসব তারা আত্মরক্ষার্থে কিংবা অন্যের ক্ষতি করার জন্য অস্ত্র হিসাবে ব্যবহার করতে দ্বিধা করে না গাঙ্গেয় নিম্নাঞ্চলের লোকদের স্বভাবই এরকম।
আর বঙ্গবন্ধু অসমাপ্ত আত্মজীবনীতে বলেছিলেন'পরশ্রীকাতরতা এবং বিশ্বাসঘাতকতা আমাদের রক্তের মধ্যে রয়েছে। বোধহয় দুনিয়ার কোন ভাষায়ই এই কথাটি পাওয়া যাবে না 'পরশ্রীকাতরতা'। পরের শ্রী দেখে যে কাতর হয় তাকে পরশ্রীকাতর বলে।
আমরা অনেক বাঙালিরা ডক্টর ইউনূসের শ্রী দেখে কাতর হয়েছি। অভিসম্পাত করেছি। মর্যাদা নষ্ট করার হেন কোন শব্দ নাই যা ব্যবহার করতে আমরা পিছপা হয়েছি। কিন্তু ডক্টর ইউনূস কারো কথার কোন প্রতিবাদ করেননি।
বিশ্বের মাঝে গ্রহণীয় বরণীয় আরেক জন ডক্টর ইউনূস আমাদের জীবদ্দশায় আর পাওয়া সম্ভব হবে না। যার মানসিক শক্তি অসাধারণ, যার চেতনা অতি সমুন্নত।

বিশ্ব বিখ্যাত দার্শনিক ফ্রেডরিক নিৎসে বলেছিলেন' যারা আমার লেখা ঘ্রাণ নিঃশ্বাসে গ্রহণ করতে পারেন তারাই জানেন যে, এই বাতাস অনেক উঁচু অবস্থানের এবং অনেক তেজি। এটাকে গ্রহণ করার জন্য একজনকে প্রথমে যোগ্য হতে হয়।'
আমরা অনেকেই ডক্টর ইউনূসকে বুঝার যোগ্য হয়ে উঠিনি।
শুভ জন্মদিন। জয়তু ডক্টর ইউনূস।

২৮ জুন ২০২০
উত্তরা ঢাকা।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
মোঃ সাইফুল ইসলাম
২৮ জুন ২০২০, রবিবার, ১০:২৪

সারা বিশ্ব শ্রদ্ধেয় ডক্টর মুহাম্মদ ইউনূস স্যারকে চিনলো আর যে দেশে জন্ম নিলো সে দেশের মানুষ চিনতে পারলো না এবং জন্ম নেয়া দেশেই অনেক অপমাণ-অপদস্থ হতে হয়েছে। সারা বিশ্ব ডক্টর মুহাম্মদ ইউনূস স্যার এর কর্মকান্ড অনুস্মরণ, দেশের অর্থনীতির বিষয়ে নতুন নতুন যেসব ধারণা আবিস্কার করেন সেগুলো অনুস্মরণ করে দেশের অর্থনীতি পূর্বের চেয়ে অনেক বেশী অগিয়ে নিছেন কিন্তু ভিন্নতা শুধু নিজ দেশেই। শুভ জন্মদিন স্যার।

Mohammed khan
২৮ জুন ২০২০, রবিবার, ১১:০৪

I have seen abroad how talented people respect him. But it is very sad that we could not show him due respect in our country whatever the reasons behind of it. We forget that we should value another opinion,( even it goes against our thoughts) in fact, it is the beauty of democracy. Happy Birth Day Sir ! May Allah long live you.

Mohammed khan
২৮ জুন ২০২০, রবিবার, ১১:০৪

I have seen abroad how talented people respect him. But it is very sad that we could not show him due respect in our country whatever the reasons behind of it. We forget that we should value another opinion,( even it goes against our thoughts) in fact, it is the beauty of democracy. Happy Birth Day Sir ! May Allah long live you.

রিপন
২৮ জুন ২০২০, রবিবার, ১০:৩২

অগ্নি তো বটেই, তবে কি-না, হাবিয়া দোজখের। সুদিদের পরিণতি এ ছাড়া আর কী হতে পারে? সুদকে গ্রামেগঞ্জে আনাচে কানাচে ছড়িয়ে দিতে পারার জন্যেই সুদিচক্র এত এত স্বীকৃতি ইনাম দিয়েছে তাকে। সুদ দারিদ্র্য নির্মূল করে না, বরঞ্চ দারিদ্র্যের বিকাশ ঘটায়। সুদের বণ্টন ব্যবস্থা হলো, গরিবের কাছ থেকে নিয়ে ধনীদের মাঝে বিতরণ, ভাগ বাঁটোয়ারা করে দেয়া। এতে কল্যাণের কিছু নেই, আছে শোষণ, বঞ্চনা, ধোঁকা, প্রতারণা, মিথ্যাচার। এর বিপরীত বণ্টনব্যবস্থার কল্যাণকর অর্থনীতি যে থাকতে পারে, তা সুদিদের লাগাতার প্রোপাগান্ডায় বিভ্রান্ত মানুষজন ভুলেই গেছে। ধনীদের কাছ থেকে নিয়ে গরিবের মাঝে বিতরণ করার জাকাতভিত্তিক অর্থনীতির সফল প্রয়োগ যিনি দুনিয়ার বুকে প্রথমবার সফলভাবে স্থাপন করে হাতে কলমে দেখিয়ে গেলেন, কই, তাঁর কথাতো একটিবারও স্মরণ করছে না কেউ? সুদিরা জানে, জাকাতভিত্তিক অর্থনীতি কায়েম হয়ে গেলে সুদিদের ডাকাতভিত্তিক সুদি অর্থনীতির কবর হয়ে যাবে। তাইতেই শুভ শক্তির উত্থান ঠেকাতে নানা মিথ্যা প্রোপাগান্ডা চালিয়ে যাচ্ছে, মানুষের মনকে বিষিয়ে দিতে আরও হরেক কৌশল অবলম্বন করে চলেছে। আমি তামাম সুদিকে 'মাদারচোত" জ্ঞান করে জাকাতভিত্তিক অর্থনীতির প্রবক্তা সেই প্রিয় নেতা, প্রিয় ব্যক্তিত্বের (সা.) প্রতি শ্রদ্ধা ভালোবাসা সংহতি জ্ঞাপন করি। কারণ তিনি বলে গেছেন, সুদের সর্বনিম্ন গুনাহ হলো আপন মাকে ধর্ষণ করার গুনাহ। সেই হিসেবে, সুদি, - সুদদাতা, সুদখোর, সুদপ্রথার সমর্থক, সুদপ্রথার স্বপক্ষে আইন প্রণেতা, বলপূর্বক সেই আইন প্রয়োগকারী, সম্ভাব্য সকল উপায়ে সমর্থনকারী, প্রচারণাকারী -সব ক'টির সামাজিক স্ট্যাটাস হলো - মাদারফাকার, তথা, মাদারচোত। অশ্লীলতার, নোংরামির কিছুই নেই এখানে, - আছে নব্য আইয়ামে জাহেলিয়াতের, তথা আঁধার যুগের স্রোতের উজানে দাঁড়িয়ে দ্রোহী দ্রঢ়িমায় "চির উন্নত মম শির" নির্ভীক সত্যকথন। বিশ্ববিধাতা বুঝার ও মেনে চলার সক্ষমতা দিন।

SAIFUL MURTAZA
২৮ জুন ২০২০, রবিবার, ৮:৪৬

HAPPY BIRTH DAY. LONG LIVE DR.YUNUS. ALLAH BLESS HIM.

Leakat
২৮ জুন ২০২০, রবিবার, ৭:৩৮

We fail to use his actual talent in our nation. "Profit goes to workers" excellent idea's father dr.younus

sajjad
২৮ জুন ২০২০, রবিবার, ৮:৩৩

Mane hoy uni Nurer tairy,,, ,,, ,,

Shahab
২৮ জুন ২০২০, রবিবার, ৫:৪১

Happy birthday mr. Yunu.& long live.

nurul choudhury
২৮ জুন ২০২০, রবিবার, ৬:৩৪

Happy birth Day Dr. Yunus. Bangladesh government intentionally failed to appreciate and honor this world famous person. I wish him a long and very productive life. May Allah SWT bless you.

Md. Harun Al-Rashid
২৮ জুন ২০২০, রবিবার, ৬:২৬

বাহ! কি চমৎকার মূল্যায়ন! তিনি সুস্হ্য থাকুন ও দীর্ঘজীবি হোন।

Farjana
২৮ জুন ২০২০, রবিবার, ৫:২৪

সত্যিই তাই। বোঝার জন্য আগে যোগ্য হয়ে উঠতে হয়। হৃদয় ছুঁয়ে গেল লেখাটি।

অন্যান্য খবর