× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ১৫ আগস্ট ২০২০, শনিবার

চাকপাড়া-লংগদুর মুখ সড়ক নির্মাণ পাল্টে যাবে পাহাড়ের চিত্র

দেশ বিদেশ

নুরুল কবির, বান্দরবান থেকে | ৩০ জুন ২০২০, মঙ্গলবার, ৭:৫৮

বান্দরবান পার্বত্য জেলার নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার বাইশারী ইউনিয়নের চাক হেডম্যান পাড়া  থেকে পিএইচপি রাবার বাগান হয়ে লংগদুর মুখ পর্যন্ত নির্মাণাধীন ব্রিক সলিং দ্বারা উন্নয়নমূলক সড়কের কাজ দ্রুত সম্পন্ন হলে পাল্টে যাবে পাহাড়ের চিত্র। এই সড়কটি নিজেদের ভাগ্য পরিবর্তন ঘটাবে, এমনটাই দাবি দুর্গম জনপদে বসবাসকারী হাজারো পাহাড়ি-বাঙালিদের। পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড পরিচালিত ১০ কিলোমিটার রাস্তাটি ব্রিক সলিং দ্বারা উন্নয়নমূলক কাজটি পেয়েছেন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মনি কনস্ট্রাকশন। ২০১৮ থেকে ২০২০ সালের মধ্যে কাজটি সম্পন্ন করার কথা রয়েছে। কিন্তু করোনা আর আগাম বৃষ্টির কারণে কাজের মেয়াদ আরো দু’বছর বাড়ানো হয়েছে। আগামী ২০২২ সালে ডিসেম্বর মাসে অসম্পন্ন কাজটি সম্পন্ন করা হবে বলে জানিয়েছেন পাবত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড। ইতিমধ্যে ৬ কিমি কাজ সম্পন্ন হলেও আরো ৪ কিমি কাজ অসম্পন্ন রয়েছে বলে জানালেন স্থানীয় বাসিন্দা ও ইউপি সদস্য থোয়াইচাহ্লা চাক। স্থানীয় বাসিন্দা খিজারী চাক জানান, রাস্তাটি নির্মাণ হলে বাদুড়ঝিরি চাকপাড়ায় সন্ত্রাসীদের হুমকি ও অত্যাচারে উচ্ছেদ হওয়া পরিবারগুলো সহজে আবারো ছেলে-  মেয়েদের নিয়ে বসবাস শুরু করতে পারবে।
পাশাপাশি নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা টহল দিতে পারবে অনেক সহজে। তাই পাড়াবাসী ও দ্রুত নির্মাণাধীন কাজটি শেষ করার দাবি জানান। নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় কয়েকজন বাসিন্দা জানান, কিছু কুচক্রী মহল রাস্তাটির উন্নয়ন কাজে বাধা প্রদান করছে। এ নিয়ে আমরা কর্তৃপক্ষ বরাবর আবেদন করেছি। যাতে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখে এবং ওই দুষ্টুচক্রের বিরুদ্ধে আমরা তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। বাইশারী চাকপাড়া হতে পিএইচপি রাবার বাগান হয়ে লংগদুর মুখ পর্যন্ত সড়কটি নির্মাণাধীন অবস্থায় রয়েছে। সড়কের কাজ শেষ হলে ভাগ্যের পরিবর্তন হবে হাজারো খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষের। পাহাড়ে বসবাসরত ৫টি গ্রামের লোকজনও একইভাবে সুযোগ-সুবিধার আওতায় আসবে। পাহাড়ে উৎপাদিত পণ্য সহজে বাজারজাত করে ন্যায্যমূল্য পাবেন চাষিরা। গাড়িযোগে যাতায়তসহ দ্রুত মালামাল নিয়ে এসে বাজারে বিক্রি করতে পারবে এবং উৎপাদিত পণ্য আর পচন ধরবে না।
রাস্তাটি নির্মাণ হলে রাবার বাগানের কয়েকশ’ শ্রমিক সহজে যাতায়ত ও কাঁধে বহন করে রাবার আনা নেয়া বন্ধ হবে। সরকার পাবে লাখ লাখ টাকার রাজস্ব। তাছাড়া পার্শ্ববর্তী দোছড়ি ইউনিয়ন ও উপজেলার সঙ্গে যোগাযোগব্যবস্থা সহজ হবে এবং আলী কদম উপজেলার সঙ্গে  যোগাযোগের মাধ্যম হবে বলে আওয়ামী লীগ সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম বাহাদুর জানান। তিনি আরো জানান, পার্বত্যমন্ত্রী মহোদয়ের আন্তরিকতায় শুধু বাইশারী লংগদুর মুখ সড়ক নয়, পুরো উপজেলার চিত্রও পাল্টে গেছে।
ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের মালিক লিটন জানান, একদিকে করোনাভাইরাস ও অন্যদিকে আগাম বর্ষা হওয়ার কারণে কাজ একটু ধীর গতিতে চলছে। অবশ্যই শিডিউল  মোতাবেক কাজ গুণগত মানেই সম্পন্ন করবে। এ বিষয়ে স্থানীয়দের সহযোগিতা চান তিনি।
বাইশারী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা মো. আলম বলেন, জনগণের আস্থা ও ভালোবাসা এবং পার্বত্যমন্ত্রী মহোদয়ের সুনজরে পাল্টে যাচ্ছে বাইশারী ইউনিয়নের চিত্র। তিনি আরো বলেন, বাইশারীতে শত শত কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ হয়েছে এবং বর্তমানে কয়েকশ’ কোটি টাকার কাজ চলমান রয়েছে। এসব পার্বত্য বীরের অবদান।
এ বিষয়ে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড (বান্দরবান) এর নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আবু বিন ইয়াছির আরাফাত জানান, চাক  হেডম্যান পাড়া থেকে পিএইচপি রাবার বাগান হয়ে লংগদুর মুখ পর্যন্ত নির্মাণাধীন ব্রিক সলিং এর ১০ কিলোমিটার রাস্তাটি কাজের গুণগত মান ঠিক রেখে সড়কের উন্নয়ন কাজ চলমান রয়েছে। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান থেকে শতভাগ কাজ বুঝে নেয়া হবে এবং যত দ্রুত সম্ভব কাজ সম্পন্ন করার চেষ্টা করা হবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর