× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ১৫ আগস্ট ২০২০, শনিবার

ভেঙে পড়েছে ঢালাই কোম্পানীগঞ্জে হুমকির মুখে ‘ধলাই সেতু’

বাংলারজমিন

স্টাফ রিপোর্টার, সিলেট থেকে | ৫ জুলাই ২০২০, রবিবার, ৭:৩৭

ঢালাই ভেঙে পড়েছে সিলেট-কোম্পানীগঞ্জ সড়কের ধলাই সেতুর। এ কারণে ঝুঁকির মুখে সিলেটের দীর্ঘতর এ সেতু। জেলার কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার ধলাই নদীর ওপর নির্মিত ধলাই সেতু। খসে পড়ছে ঢালাই, বেরিয়ে পড়ছে রড, ভেঙে পড়েছে উভয় পার্শ্বের এপ্রোচ। উভয় পার্শ্বের কয়েকটি স্থানে রেলিংও ভেঙে গেছে। ফলে চরম ঝুঁকির মধ্য দিয়ে জন ও যানচলাচল করছে। যেকোনো সময় সেতুটি ধসে পড়ে ঘটে যেতে পারে বড় ধরনের অঘটন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুমন আচার্য ও সড়ক ও জনপথ (সওজ)-এর নির্বাহী প্রকৌশলী রিতেশ বড়ুয়া বৃহস্পতিবার সেতুটি পরিদর্শন করেছেন।
কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার উপর দিয়ে প্রবাহিত ভারতের মেঘালয় রাজ্যের পাহাড় থেকে নেমে আসা ধলাই নদী। এ নদীর কারণে উপজেলার পূর্ব ও পশ্চিম পারের লাখ লাখ মানুষ ছিল এক বিচ্ছিন্ন জনপদে। দেশের সর্ববৃহৎ পাথর খনি থেকে আহরিত পাথর ও বালু সরবরাহ ও জনসাধরণের পারাপারের একমাত্র মাধ্যম ছিল নৌকা। পাথর সরবরাহ সহজীকরণ ও উভয় পারের জনগণের বঞ্চনা লাঘব ও বন্ধন সৃষ্টির লক্ষ্যে নির্মিত হয় সিলেটের দীর্ঘতর এই সেতু। শত শত বছরের অমানিশা দূর হয়ে আলোর মুখ দেখে উভয় পারের লাখো মানুষ। এক অভিনব প্রাণচাঞ্চল্য ফিরে আসে এ দুই জনপদে। দীর্ঘকালের প্রত্যাশিত সড়ক যোগাযোগের আওতায় আসেন তারা। বিএনপি নেতৃত্বাধীন বিগত চারদলীয় জোট সরকারের আমলে ২০০৩ সালে শুরু হয় এ সেতুর নির্মাণকাজ। ৪৩৪ দশমিক ৩৫ মিটার দীর্ঘ ও ৯ দশমিক ৫ মিটার প্রস্থের এ সেতুর নির্মাণে তখন ব্যয় ধরা হয় ১২ কোটি ৩১ লাখ ৫০ হাজার টাকা। টানা তিন বছরে সম্পন্ন করা হয় এ সেতুর নির্মাণকাজ। সেতুর স্থায়িত্ব নিরূপণ করা হয় ৭৫ বছর। পরে ২০০৬ সালের সেপ্টেম্বর থেকে যান ও জনচলাচলের উন্মুক্ত করে দেয়া হয় এই সেতু। ওই বছরের ৯ই সেপ্টেম্বর সিলেট উন্নয়নের রূপকার তৎকালীন অর্থ ও পরিকল্পনামন্ত্রী মরহুম এম, সাইফুর রহমান সেতুটির উদ্বোধন করেন। নির্মাণকালে সেতুটির স্থায়িত্ব ৭৫ বছর মেয়াদ ধরা হলেও উদ্বোধনের মাত্র ৮ বছরের মাথায় ২০১৪ সালে সেতুর মধ্যে পরিলক্ষিত হতে থাকে বিভিন্ন ত্রুটি। এ নিয়ে সে সময় লেখালেখি হলে ধলাই সেতু পরিদর্শন করতে আসেন বর্তমান আওয়ামী সরকারের সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। সেতুর ঝুঁকিপূর্ণ দিক খতিয়ে দেখে ঝুঁকি কাটাতে অচিরেই ত্রুটি সারানোর কাজ শুরুর নির্দেশ দিলেও দীর্ঘ ৭ বছরেও ত্রুটি সারানো ও মেরামতের কাজ করেনি সেতুর দায়িত্বে থাকা সড়ক ও জনপথ বিভাগ সওজ। ফলে উদ্বোধনের ১৪ বছরের মাথায় এসে ভেঙে পড়তে শুরু করে সিলেটের দীর্ঘতর এই ধলাই সেতু।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর