× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ১৫ আগস্ট ২০২০, শনিবার

মুসলিম নির্যাতন: চীনা কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের অবরোধ

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ১০ জুলাই ২০২০, শুক্রবার, ১০:০২

সিনজিয়াং প্রদেশে মুসলিম সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘনের দায়ে অভিযুক্ত চীনা রাজনীতিকদের বিরুদ্ধে অবরোধ ঘোষণা করেছে যুক্তরাষ্ট্র। ওই প্রদেশে উইঘুর ও অন্যদের ব্যাপকহারে বন্দি রাখা, ধর্মীয় নিপীড়ন ও জোরপূর্বক বন্ধ্যাকরণের অভিযোগ আছে চীনা কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে। এসব নির্যাতনের বিরুদ্ধে দীর্ঘদিন ধরেই সোচ্চার পশ্চিমা সরকারগুলো। তারই ধারাবাহিকতায় এবার চীনা কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে অবরোধ দিল যুক্তরাষ্ট্র। এর আওতায় পড়বেন আঞ্চলিক কমিউনিস্ট পার্টির বস বলে পরিচিত চেন কুয়াংগু এবং অন্য তিন কর্মকর্তা, যাদের যুক্তরাষ্ট্র সংশ্লিষ্ট আর্থিক স্বার্থ রয়েছে। তবে সিনজিয়াংয়ে মুসলিমদের বিরুদ্ধে কোনো অশোভন আচরণ করার অভিযোগ অস্বীকার করেছে চীন। কয়েক বছরে তারা নতুন করে শিক্ষিত করার নাম দিয়ে প্রায় ১০ লাখ মানুষকে আটক করেছে। বলা হচ্ছে, সেখানে তাদেরকে ভোকেশনাল প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে, যা উগ্রপন্থা এবং বিচ্ছিন্নতাবাদ থেকে তাদের রক্ষার জন্য প্রয়োজন।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প প্রশাসন বলেছে, যাদের বিরুদ্ধে অবরোধ দেয়া হয়েছে তার মধ্যে চেন কুয়াংগু চাইনিজ কমিউনিস্ট পার্টির শক্তিধর পলিটব্যুরোর সদস্য। এযাবতকালে যুক্তরাষ্ট্র চীনের যেসব কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অবরোধ দিয়েছে তার মধ্যে তিনিই সর্বোচ্চ উচ্চ পদের কর্মকর্তা। সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে বেইজিংয়ের নীতির কারিগর হিসেবে দেখা হয় তাকে। এর আগে তিনি তিব্বত বিষয়ক ইনচার্জ ছিলেন। অন্য যে তিন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অবরোধ দেয়া হয়েছে তারা হলেন ওয়াং মিঙ্গশান। তিনি সিনজিয়ান পাবলিক সিকিউরিটি ব্যুরোর পরিচালক। ঝু হেইলান। তিনি সিনজিয়াংয়ে পার্টির সিনিয়র সদস্য। শেষ জন হলেন সাবেক নিরাপত্তা বিষয়ক কর্মকর্তা হুও লিউজুন। এসব ব্যক্তির সঙ্গে কোনো আর্থিক লেনদেন এখন যুক্তরাষ্ট্র অপরাধ হিসেবে দেখবে। যুক্তরাষ্ট্রে তাদের যেসব সম্পদ আছে তা জব্দ করা হবে। তবে যুক্তরাষ্ট্রের ভিসায় হুও লিউজুনের বিরুদ্ধে বিধিনিষেধ দেয়া হয় নি। অন্যরা ও তাদের পরিবারের বিরুদ্ধে এমন বিধিনিষেধ আছে। এ ছাড়া অবরোধ দেয়া হয়েছে সিনজিয়াং পাবলিক সিউরিটি ব্যুরোর পুরোটার বিরুদ্ধে।
অবরোধ ঘোষণা করে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও বলেছেন, সিনজিয়াং অঞ্চলে ভয়াবহ ও পর্যায়ক্রমিক নির্যাতনের বিরুদ্ধে এই ব্যবস্থা নিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। চাইনিজ কমিউনিস্ট পার্টি যখন উইঘুর, জাতিগত কাজাখ এবং সংখ্যালঘু অন্য সম্প্রদায়ের লোকজনের বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘন করে যাচ্ছে তখন অলস বসে থাকতে পারে না যুক্তরাষ্ট্র। তিনি আরো জানিয়েছেন, সিনজিয়াংয়ে এসব নির্যাতনের দায়ে কমিউনিস্ট পার্টির আরো যেসব ব্যক্তি জড়িত বলে বিশ্বাস করা হয়, এমন অজ্ঞাত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ভিসায় কড়াকড়ি দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। এসব ব্যক্তির পরিবারও এই বিধিনিষেধের আওতায় পড়বেন।
উল্লেখ্য, করোনা ভাইরাস মহামারি নিয়ে এমনিতেই যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে উত্তেজনা তুঙ্গে। তার পাশাপাশি হংকং বিষয়ক নিরাপত্তা আইন পাস করেছে চীন। এ নিয়ে পশ্চিমা দুনিয়া ক্ষুব্ধ।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
রিপন
১১ জুলাই ২০২০, শনিবার, ৫:৪৫

অথচ মুসলিম বিশ্ব নীরব। এরকম মুর্দা দিল মুসলিম, জগতে থাকার চাইতে না থাকাই উত্তম। "আমি খোদার অভিশাপ। যদি তোমরা বড় ধরণের কোন পাপে লিপ্ত না থাকতে, তবে খোদা আমায় তোমাদের ওপর হামলে পড়তে পাঠাতেন না।" -চেঙ্গিস খান। দুনিয়ার মুসলমান! তোমাদের ওপর খোদায়ী অভিশাপ অত্যাসন্ন। ঝাড়ে বংশে দুনিয়ার বুক থেকে তোমরা নির্মূল হয়ে যাবে। হয়তো নয়া কোন চেঙ্গিস, নয়তো অনুরূপ কোন সংহারী শক্তি আসছে নেমে তোমাদের ওপর। সুদ খাবে, সুদের কারবার চালাবে, জাকাত দেবে না, সুদিদেরকে আইনি বৈধতা দিয়ে পারলামেনটে আইন পাস করনেওয়ালা মাদারচোতেরা, নিস্তার নাই কারো। মানুষের সম্পদকে নিজেদের সম্পদজ্ঞানে যথেচ্ছ লুটপাট করবে আর সুদিচক্রের পদলেহন করে ক্ষমতায় টিকে থাকার চেষ্টা করে যাবে? মনে রেখ, নিকট আগামীর বিশ্ব সুর বনাম অসুরের আবহমানকালের লড়াইয়ের বিশ্ব। সেই খরতেজী লড়াইয়ে তোমরা ভণ্ডেরা চর্বিত তৃণের ন্যায় মরে পড়ে থাকবে জমিনে। শেয়ালে শকুনে খাবলে খুবলে খাবে তোমাদের লাশ।

অন্যান্য খবর