× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ১৫ আগস্ট ২০২০, শনিবার

চীনের সঙ্গে সীমান্ত বিরোধ চলছে, নিষ্পত্তি হয়নি সমস্যা: ভুটান

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ১০ জুলাই ২০২০, শুক্রবার, ১১:২৩

চীনের সঙ্গে সীমানা নিয়ে বিরোধ এখনো শেষ হয়নি বলে জানিয়েছে ভুটান। ভারতে অবস্থিত ভুটান দূতাবাস মঙ্গলবার জানিয়েছে, চীনের সঙ্গে দুই দেশের মধ্যে সীমানা নিয়ে এখনো আলোচনা চলছে এবং এই সীমান্ত এখনো চিহ্নিত হয়নি। এ নিয়ে একটি বিবৃতিও দেয়া হয়েছে। এতে বলা হয়, সীমান্ত সমস্যা নিস্পত্তির জন্য এ পর্যন্ত মন্ত্রী পর্যায়ে প্রায় ২৪ দফা আলোচনা হয়েছে।
সাউথ এশিয়ান মনিটর জানিয়েছে, করোনা ভাইরাস সংক্রমণের কারণে ২৫তম দফা আলোচনা বিলম্বিত হচ্ছে বলে ভুটানের বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়েছে। এতে বলা হয়, পরবর্তী দফা সীমান্ত আলোচনায় সব বিতর্কিত এলাকা নিয়ে কথা হবে। পরস্পরের সুবিধাজনক সময়ে শিগগিরই এই আলোচনা অনুষ্ঠিত হবে বলেও উল্লেখ করা হয়েছে।
উলে­খ্য, গত জুন মাসের শেষ দিকে চীন দাবি করে যে ভুটানের উত্তর-পূর্ব দিকে অবস্থিত সাকতেং বণ্যপ্রাণী অভয়ারণ্য একটি বিতর্কিত ভূখণ্ড। গ্লোবাল এনভায়রনমেন্ট ফ্যাসিলিটি কাউন্সিলের ৫৮তম বৈঠকে চীন ওই মন্তব্য করে। সেখানে সাকতেং বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্যে একটি প্রকল্পে তহবিল প্রদানের বিরোধিতা করে চীন।
এসময় একে বিতর্কিত ভূখণ্ড হিসেবে অভিহিত করে। তবে তখনই ভুটান এর বিরুদ্ধে প্রতিক্রিয়া দেখায় এবং চীনা প্রতিনিধির কাছে একটি কঠোর প্রতিবাদলিপি পাঠায়। এতে বলা হয়, সাকতেং বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্য ভুটানের অবিচ্ছেদ্য ও সার্বভৌম ভূখণ্ড।
এই অভয়ারণ্য কখনোই কোন বৈশ্বিক তহবিলের অংশ ছিলো না। এই প্রথম কোনো আন্তর্জাতিক প্লাটফর্মে এখানকার জন্য একটি প্রকল্প গ্রহণ করা হয়। এই সুযোগে চীন স্থানটির উপর তার দাবি নিয়ে হাজির হয়েছে। কিন্তু স্থানটি চীনের দাবি করা ভারতের অরুনাচল প্রদেশের প্রধান শহর তেওয়াংয়ের কাছাকাছি হওয়ায় নয়া দিল্লি সতর্কতার সঙ্গে চীনের এই তৎপরতার উপর নজর রাখছে। পুরো অরুনাচল প্রদেশকে দক্ষিণ তিব্বত হিসেবে মনে করে চীন এবং দীর্ঘদিন ধরে এর মালিকানা দাবি করে আসছে দেশটি।
ভুটানের সর্বপূর্বে তারাশিগাং জংখায় অবস্থিত এই সাকতেং বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্য। এর আয়তন ৭৪০.৬০ বর্গ কিলোমিটার। দেশের একেবারে প্রত্যন্ত এলাকায় এই অভয়ারণ্যের অবস্থান বিধায় সেখানে তেমন কোনো উন্নয়ন কাজ হয় না। সাকতেং অভয়ারণ্যের সঙ্গে ভারতের অরুনাচল প্রদেশেরও সীমানা রয়েছে। এই বনে বিচিত্র ইকোসিস্টেম রয়েছে। যার মধ্যে ওয়ার্ম ব্রডলিফ ফরেস্ট থেকে শুরু করে আলপাইন মিডোও রয়েছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর