× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ১১ আগস্ট ২০২০, মঙ্গলবার

দেশের মানুষকে খোঁয়াড়ে রেখেছে সরকার: রিজভী

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার | ২৯ জুলাই ২০২০, বুধবার, ১২:২৫

মধ্যরাতের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সারা বাংলাদেশের মানুষকে গরু-ছাগলের খোঁয়াড়ে পরিণত করেছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী।

তিনি বলেন, এদেশের মানুষ গরু-ছাগলের খোঁয়াড় না তারাও মানুষ, মানুষ চিন্তা করে, মানুষ স্বাধীনভাবে চিন্তা করে, সেটা সে লিখতে বা বলতে চায়। কিন্তু শেখ হাসিনা সারা বাংলাদেশের মানুষকে গরু-ছাগলের খোঁয়াড়ে পরিণত করেছে। কারণ সে মনে করে এই ঘরের মধ্যে মানুষ বন্দী থাকলে আমার বিরুদ্ধে কোনো কথা বলবে না। সে দিনের ভোট রাতে করে। সে জনপ্রতিনিধি কাকে ঠিক করবে সেটি আগেই ঠিক করে রাখে। নির্বাচনের নামে সেটি ঘোষণা দেয় মাত্র। প্রকৃত ভোটাররা ভোটকেন্দ্রে গিয়ে ভোট দিতে পারে না।


বুধবার সকালে মুন্সিগঞ্জ জেলার শ্রীনগর আড়িয়াল খাঁ বিলে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী মৎস্যজীবী দল মুন্সিগঞ্জ উপজেলা শাখার উদ্যোগে জাতীয় মৎস সপ্তাহ ২০২০ উপলক্ষে উন্মুক্ত জলাশয়ে মৎস অবমুক্ত অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

সরকারের জুলুম-নির্যাতন সহ্য করে বিএনপি আন্দোলন সংগ্রাম করছে মন্তব্য করে রিজভী বলেন, বিএনপি গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনার আন্দোলন করছে। এটি আজকে বর্তমান সরকার কেড়ে নিয়েছে। আজকে যদি আপনারা মত প্রকাশের জন্য ফেসবুকে কিছু লেখেন দিনে রাতে যেকোন সময় সাদা পোশাকধারীরা আপনাকে তুলে নিয়ে যাবে। আজকে ভোটের অধিকার নেই। আজকে কথা বলার অধিকার নেই। মানুষের গণতান্ত্রিক যে অধিকার গুলো রয়েছে সব কেড়ে নেয়া হয়েছে। সেটি ফিরেয়ে আনার জন্য আমরা গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দল হিসেবে লড়াই করছি। এই লড়াই করতে গিয়ে শুধু আমি আপনারই শুধু কারাগারে যাইনি। দেশের কোটি কোটি মানুষের যিনি আশা-আকাঙ্ক্ষার প্রতীক সেই দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে তারা অন্যায় ভাবে মিথ্যা মামলায় দুই বছরের অধিককাল কারাগারে বন্দী করে রেখেছিলো। সরকারের রোষাণলে পড়ে আজকে দেশছাড়া হয়েছেন সারাদেশে কোটি মানুষের নয়নের মনি বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। দেশ এবং দেশের মানুষের জন্য কথা বলেছেন বলেই তিনি আসলে দেশ ছাড়া।

বিএনপির এই মুখপাত্র বলেন, বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের রাজনীতি ছিল বহুদলীয় গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা করা। গণতন্ত্র হত্যা করছিলো আজকে যারা ক্ষমতায় আছে তাদেরই পূর্বপুরুষেরা তারা সেই সময়ে এই কাজগুলো করেছিলেন। সংবাদ পত্রগুলো বন্ধ করে দিয়েছিল তারা, কয়েকটি পত্রিকা ছাড়া কোন পত্রিকা চলতে দেয়নি। এক দল এক নেতা ছাড়া কথা বলা যাবে না। জিয়াউর রহমান ক্ষমতায় এসে এগুলো চালু করে দিয়েছিলেন। বহুদলীয় গণতন্ত্র সংবাদপত্রের স্বাধীনতা, কথা বলার স্বাধীনতা, লেখার স্বাধীনতা, চিন্তার স্বাধীনতা এটি দিয়েছিলেন জিয়াউর রহমান।

রিজভী আরো বলেন, জিয়াউর রহমানের আরো একটি কাজ ছিল উন্নয়ন এবং উৎপাদনের রাজনীতি। দুই একটা ফ্লাইওভার করে আওয়ামী লীগের নেতারা পকেট ভারি করে কানাডায় বাড়ি বানাবেন, সেকেন্ড হোম করবেন মালয়েশিয়ায়। এটা জিয়াউর রহমানের নীতি ছিল না।

অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন বিএনপির কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক মীর সরাফত আলী সপু, মৎসজীবী দলের সভাপতি রফিকুল ইসলাম মাহতাব, সদস্য সচিব আব্দুর রহিম, মৎস্যজীবী দল মুন্সিগঞ্জ জেলার সদস্য সচিব আলমগীর হোসেন সামি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর