× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ৬ আগস্ট ২০২০, বৃহস্পতিবার

বন্যা কবলিত জনপদে নেই ঈদ আনন্দ

অনলাইন

অনলাইন ডেস্ক | ১ আগস্ট ২০২০, শনিবার, ৬:৪০

বন্যা ও নদী ভাঙনের কবলে পড়েছে কুড়িগ্রাম ও লালমনিরহাট জেলার ব্রহ্মপুত্র, তিস্তা, ধরলার তীরবর্তী ও চরাঞ্চলের ১৪টি উপজেলার ৫৫০টি গ্রামের প্রায় ৫ লাখ মানুষ। আজ ঈদের দিনেও মাথা গোজার ঠাই নেই তাদের। অনেকে নিজের ভিটেমাটি ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছে। আবার কেউ এখনো পানিবন্দি। এই অবস্থায় ঈদের আনন্দ যেনো সুদুর পরাহত তাদের কাছে। ঈদ উপলক্ষে নুতন জামা-কাপড় ও মাংস কেনা তো দূরের কথা অনেকের ঘরে ঈদের দিনও একমুঠো খাবারের ব্যবস্থাও নেই।

ভাত রান্না করলেও নেই তরকারি। আলুভর্তা দিয়ে ভাত খেতে হচ্ছে ঈদের দিনটিতেও। বন্যা ও ভাঙনে তাদের বসতভিটা, ঘর-বাড়ি, ফসলি জমি ও গৃহপালিত প্রাণী হারিয়ে যাওয়ায় তারা আরও বেশি দরিদ্র হয়ে গেছেন।
দু’মুঠো খেয়ে লড়াই করে বাঁচতে হচ্ছে তাদের।

কুড়িগ্রাম ও লালমনিরহাটের বন্যাদুর্গত মানুষেরা জানান, তারা পরিবারের সঙ্গে ঈদ উদযাপনের জন্য খাবার ও অন্যান্য সামগ্রী কিনতে পারেননি। সরকারি ও বেসরকারি সংস্থাগুলোর সহায়তার আশায় ছিলেন। তবে তারা কোনো সহায়তা পাননি।

বানভাসি মানুষেরা জানান, ঈদ উপলক্ষে তারা তাদের সন্তানের জন্য পোশাক কিনতে পারিনি। হাতে কোনো টাকা না থাকায় ঈদের জন্য ভালো খাবার ও অন্যান্য জিনিসও কিনতে পারেননি। কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার শিমুলবাড়ী ইউনিয়নের চর সোনাইগাজীর এক অসহায় বানভাসি মাজেদুল ইসলাম বলেণ, ঈদের দিন সন্তানদের নিয়ে আলুভর্তা দিয়ে ভাত খেয়েছি। সন্তানরা মাছ-মাংসের জন্য কান্নাকাটি করছে। কিন্তু, তাদের আশা পূরণ করতে পারিনি।

একই জেলার চিলমারী উপজেলার ব্রহ্মপুত্র নদীর অববাহিকা নয়ারহাট চরে বন্যাদুর্গত আফরোজা পরিবারের লোকজনের জন্য নতুন জামা-কাপড়, ভালো খাবার বা মাংসের ব্যবস্থা হয়নি। পরিবারের বাচ্চারা কান্নাকাটি করছে। তিনি বলেন, আমরা এখনও পানি উন্নয়ন বোর্ডের বাঁধে রয়েছি। বন্যার পানি এখনও আমাদের বাড়িতে। ঈদ আমাদের জন্য কোনো আনন্দ বয়ে আনেনি। রমনা এলাকার বন্যাদুর্গত সায়েদুর রহমান বলেন, ঘরে খাবার নেই। তাই ঈদ উপভোগ করা আমাদের কাছে স্বপ্নের মতো।

বন্যা ও ভাঙনের কারণে আমাদের ইউনিয়নের বিপুল সংখ্যক মানুষ এবার ঈদ উদযাপন করতে পারছেন না বলে জানান লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার তিস্তার তীরবর্তী মহিষখোচা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোসাদ্দেক হোসেন। কুড়িগ্রাম ও লালমনিরহাটের জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন অফিস জানিয়েছে, সরকার ঈদুল আজহার আগে অতি-দরিদ্র পরিবারের মধ্যে লালমনিরহাটে ৮৫ হাজার ও কুড়িগ্রামে ৪ লাখ ১৫ হাজার ভিজিএফ চাল বিতরণ করেছে এবং প্রতিটি কার্ডধারীকে ১০ কেজি চাল দেয়া হয়েছে। তবে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে জেলা ত্রাণ ও পুর্নবাসন অফিস কোনো আদেশ না পাওয়ায় বন্যাকবলিত মানুষদের ঈদ উদযাপনে সহায়তা করার জন্য বিশেষ বরাদ্দ দেয়া হয়নি বলেও জানান কুড়িগ্রামের জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা আবদুল হাই সরকার।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর