× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, রবিবার

নৌকাডুবিতে নিখোঁজ রাকিবুলের পিতার আহাজারি

অনলাইন

মজিবুর রহমান, কেন্দুয়া থেকে | ৬ আগস্ট ২০২০, বৃহস্পতিবার, ১২:০৬

আমার বাবা কই গো,আমার পুত (পুত্র) কই গো, আমার বাজান কই? সবাইরে পাওয়া গেল আমার বাজান কই?। নেত্রকোনার মদন উপজেলার উচিতপুর হাওড়ে ঘুরতে এসে নৌকাডুবিতে নিখোঁজ হাফেজ রাকিবুল ইসলামের (২৫) বাবা শফিকুল ইসলাম মঙ্গলবার সন্ধ্যায় এভাবেই মদন থানা প্রাঙ্গণে পুত্র শোকে অঝোরে কাঁদছিলেন। এসয়ম তার কান্নায় আকাশ বাতাস ভারী হয়ে ওঠে। ছেলেকে হারিয়ে শফিকুল পাগল প্রায়। ছেলের মুখটা এক নজর দেখতে উদ্ধার হওয়া লাশগুলি ঘুরে ঘুরে বার বার দেখেন। সবাই তো যার যার বাড়িতে যাইতাছে আমি কি নিয়ে বাড়িতে যাইয়াম। ছেলেকে ফিরে পেতে এমন হাজারো আকুতি জানাচ্ছিলেন শফিকুল ইসলাম। মঙ্গলবার (৫ আগষ্ট) ময়মনসিংহের বিভিন্ন এলাকার কওমি মাদ্রাসা ও নেত্রকোণার আটপাড়া উপজেলার তেলিগাতি ইউনিয়নের জামিয়া আরাবিয়া মঈনুল ইসলাম মাদ্রাসার শিক্ষক, হাফেজ ও শিক্ষার্থীসহ ৪৮ জনের একটি দল মদন উপজেলার মিনি কক্সবাজার হিসেবে পরিচিত উচিতপুর এলাকা ঘুরতে গিয়ে নৌকাডুবির কবলে পড়েন।
ডুবন্ত নৌকা থেকে ১৭ জনের মৃত দেহ ও ৩০ জনকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করেছে স্থানীয় লোকজন,পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। এতে নিখোঁজ রয়েছে হাফেজ রাকিবুল ইসলাম। সে ময়মনসিংহের সদর উপজেলার কোনাপাড়া গ্রামের বাসিন্দা। নিখোঁজ হাফেজ রাকিবুল ইসলামও একটি মাদ্রাসার শিক্ষক ছিলেন। মঙ্গলবার রাত ১০টার দিকে মদন থানার তদন্ত ওসি স্বপন চন্দ্র জানান নিখোঁজ হাফেজ রাকিবুল ইসলামকে এখনো খুজে পাওয়া যাচ্ছে না। ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা উদ্ধারের চেষ্টা করছেন বলে জানান তিনি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর