× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, রবিবার

করোনার মধ্যেও পাট রপ্তানিতে সাড়ে ৫ শতাংশ প্রবৃদ্ধি

দেশ বিদেশ

অর্থনৈতিক রিপোর্টার | ৯ আগস্ট ২০২০, রবিবার, ৯:৪৬

নতুন অর্থবছরের (২০২০-২১) প্রথম মাস জুলাইয়ে পাট ও পাটজাত দ্রব্য রপ্তানি করে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৫.৪৪ শতাংশ বেশি আয় করেছে বাংলাদেশ। করোনা মহামারির মধ্যেও এটা ভালো অর্জন। বিশ্লেষকদের মতে, সুষ্ঠু পরিচালনার মাধ্যমে এ খাতকে আরো সামনের দিকে এগিয়ে নেয়া সময়ের দাবি। এই খাত থেকে এক মাসে ১০ কোটি ৩৫ লাখ ডলার আয় হয়েছে, যা গত অর্থবছরের জুলাই মাসের চেয়ে ৩৮.২৩ শতাংশ বেশি। মহামারির পর থেকে পাটপণ্য রপ্তানি বেড়ে যাওয়ার মধ্যে গত জুলাই মাসে সরকার রাষ্ট্রায়ত্ত ২৬টি পাটকলে উৎপাদন বন্ধ করে ২৪ হাজার ৮৮৬ জন স্থায়ী শ্রমিককে অবসরে পাঠায়। বিজেএমসি’র আওতাধীন এই পাটকলগুলোতে উৎপাদিত চট, বস্তা, থলে বিদেশে রপ্তানি হতো। রপ্তানি বাড়ায় রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলগুলোর অভাব অনুভব করছেন এই খাত সংশ্লিষ্টরা।
রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) সবশেষ হালনাগাদ তথ্যে দেখা গেছে, ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে বিভিন্ন পণ্য রপ্তানি করে ৩৯১ কোটি (৩.৯১ বিলিয়ন) ডলার আয় করেছে দেশ।
এর মধ্যে ১০ কোটি ৩৫ লাখ ১০ হাজার ডলার এসেছে পাট ও পাটপণ্য রপ্তানি থেকে। সার্বিক হিসেবে পাট রপ্তানি থেকে আয় ৩ শতাংশের নিচে হলেও আগের বছরগুলোর তুলনায় এই অঙ্কে আশা দেখছেন সংশ্লিষ্টরা। গত মাসে পাট সুতা (জুট ইয়ার্ন) রপ্তানি হয়েছে ৭ কোটি ৩০ লাখ ডলারের; প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৪৬ শতাংশ। কাঁচাপাট রপ্তানি হয়েছে ১ কোটি ৩ লাখ ৭০ হাজার ডলার; আয় বেড়েছে ৫৮.৫৬ শতাংশ। পাটের তৈরি বস্তা, চট ও থলে রপ্তানি হয়েছে ১ কোটি ২২ লাখ ডলারের। আয় বেড়েছে ৪৬.১৬ শতাংশ। এ ছাড়া পাটের তৈরি অন্যান্য পণ্য রপ্তানি হয়েছে ৮০ লাখ ডলারের।
গত ২০১৯-২০ অর্থবছরে পাট ও পাটজাত পণ্য রপ্তানি করে বাংলাদেশ মোট ৮৮ কোটি ২৩ লাখ ৫০ হাজার ডলার আয় করেছে। ওই অঙ্ক ছিল আগের ২০১৮-১৯ অর্থবছরের চেয়ে ৮.১০ শতাংশ বেশি। লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে আয় বেশি এসেছিল ৭ শতাংশ। গত অর্থবছরে পাট সুতা রপ্তানি থেকে ৫৬ কোটি ৪৬ লাখ ডলার আয় হয়েছিল। অর্থাৎ মোট রপ্তানি ৬৪ শতাংশই এসেছিল পাট সুতা রপ্তানি থেকে। কাঁচাপাট রপ্তানি থেকে আয় হয়েছিল ১৩ কোটি ডলার। পাটের তৈরি বস্তা, চট ও থলে রপ্তানি হয়েছিল ১০ কোটি ৬৫ লাখ ডলারের। এ ছাড়া পাটের তৈরি বিভিন্ন ধরনের পণ্য রপ্তানি হয়েছিল ১৯ কোটি ডলারের। এর মধ্য দিয়ে সাম্প্রতিক ইতিহাসে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশের রপ্তানি বাণিজ্যে চামড়াকে ছাড়িয়ে দ্বিতীয় স্থানে উঠে আসে পাট খাত। সংশ্লিষ্টদের মতে, বিশ্বব্যাপী পাট পণ্যের চাহিদা বাড়ছে। এখন শুধু বস্তা, চট ও থলে নয়, পাট সুতাসহ পাটের তৈরি নানা ধরনের পণ্য বাংলাদেশ থেকে রপ্তানি হচ্ছে। সুষ্ঠু তদারকির মাধ্যমে পাট খাতে আবারো সুদিন ফিরিয়ে আনা সম্ভব।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর