× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, সোমবার

দ্বিতীয় দফা সংক্রমণের ঝুঁকি সত্ত্বেও স্কুল খোলায় জোর জনসনের

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ৯ আগস্ট ২০২০, রবিবার, ৬:১৪

আগামী মাসে স্কুল খুলে দেওয়াকে একটি সামাজিক, অর্থনৈতিক ও নৈতিক আবশ্যকতা বলে দাবি করেছেন বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) মহামারির ঝুঁকি থাকা সত্ত্বেও তিনি জোর দিয়ে বলেছেন, বৃটিশ সরকার নিরাপদভাবে স্কুল পরিচালনা করতে পারবে। এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।
খবরে বলা হয়, জনসন এমন সময় স্কুল খোলার প্রতি জোর দিলেন, যখন বৃটেনে করোনার দ্বিতীয় দফা সংক্রমণের আশঙ্কা বাড়ছে। চলতি মাসের শুরুতে প্রকাশিত এক গবেষণা প্রতিবেদনে সতর্ক করা হয়েছে যে, আগামী শীতে বৃটেনে করোনার পুনরুত্থান ঘটতে পারে। করোনা পরীক্ষা ও শনাক্ত পদ্ধতি উন্নত করা না হলে, দ্বিতীয় দফা সংক্রমণ প্রথম দফার তুলনায় দ্বিগুণ বেশি হবে।
তবে গবেষণা প্রতিবেদনের সতর্কতা অগ্রাহ্য করে, রোববার দ্য ডেইলি মেইলে প্রকাশিত এক নিবন্ধে জনসন লিখেন, স্কুল খুলে দেওয়া জাতীয় অগ্রাধিকারে পরিণত হয়েছে। ভবিষ্যতে লকডাউন আরোপ করা হলেও, স্কুলগুলো বন্ধ হবে সবার শেষে। অন্য একটি পত্রিকায় তাকে উদ্ধৃত করে বলা হয়েছে, গত বৃহস্পতিবার এক বৈঠকেও স্কুল খোলার জোর দিয়েছেন তিনি।
উল্লেখ্য, ইংল্যান্ডে গত মার্চ থেকে করোনা মহামারি মোকাবিলায় আরোপিত লকডাউনের আওতায় স্কুল বন্ধ রয়েছে।
গত জুনে সীমিত পরিসরে কিছু স্কুল খুলে দেওয়া হয়। বৃটিশ সরকার সকল শিক্ষার্থীর জন্য স্কুল খুলে দেওয়ার পরিকল্পনা করছে। জনসন বলেছেন, এটা একটা জাতীয় অগ্রাধিকার।
দ্য মেইলে জনসন লিখেন, আমাদের স্কুলগুলো একেবারে আবশ্যক না হলে, আর এক মুহুর্ত বন্ধ রাখা সামাজিকভাবে অসহনীয়, অর্থনৈতিকভাবে অস্থিতিশীল ও নৈতিকভাবে অন্যায্য। তিনি সতর্ক করেন, স্কুল বন্ধ থাকায় যেসব বাবা-মায়েরা কাজ করতে পারছেন না, তাদের অবস্থা বেগতিক হয়ে পড়ছে। তাছাড়া, শিশুরা শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হলে তা দেশের জন্য আরো বড় সমস্যা তৈরি করবে।
বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী লিখেন, মহামারি শেষ হয়নি, এই অবস্থায় আমাদের পক্ষে খামখেয়ালি আচরণ করা সম্ভব নয়। কিন্তু আমরা শিশুদের জন্য নিরাপদ পরিবেশে স্কুল খুলে দেওয়ার জন্য পর্যাপ্ত জানি। এটা করা আমাদের নৈতিক দায়িত্ব।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর