× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, মঙ্গলবার

ধামরাইয়ে পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে চা বিক্রেতার জিডি

অনলাইন

ধামরাই (ঢাকা) প্রতিনিধি | ১১ আগস্ট ২০২০, মঙ্গলবার, ১০:৩৮

ঢাকার ধামরাইয়ে এক পুলিশ কর্মকর্তা ও তার ভাইয়ের বিরুদ্ধে এক চা বিক্রেতা নিরাপত্তা চেয়ে ধামরাই থানায় জিডি করেছে। ধামরাইয়ের চৌহার ইউনিয়নের মুন্সিচর গ্রামের চা বিক্রেতার স্ত্রী সামেলা খাতুন বাদি হয়ে দোকান ঘর ভাঙ্গার হুমকির অভিযোগ এনে  সোমবার পুলিশ কর্মকর্তা আনিসুর রহমান ও তার ভাই মুন্সিরচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক শহিদুর রহমানের বিরুদ্ধে এ জিডি করেন।
জানা গেছে, ধামরাইয়ের মুন্সিরচর গ্রামের মোকাদ্দেস আলী ও তার স্ত্রী সামেলা খাতুন তাদের জমিতে বসতবাড়ি এবং একটি দোকান ঘর উত্তোলন করে স্বামী স্ত্রী মিলে চা-সিঙ্গারা বিক্রি করে কোন ভাবে জীবনযাপন করে আসছেন। তাদের জমির পাশেই দেড় মাস আগে ৪.১৮ শতাংশ  জমি ক্রয় করেন পুলিশের এসআই আনিসুর রহমান সহ তার দুই ভাগ্নে কালাম সিকদার ও সালাম সিকদার। এরপর থেকেই সামেলা ও তার দ্বিতীয় স্বামী মোকাদ্দেস আলীর বসতঘর ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেয়া ও চায়ের দোকান উচ্ছেদ করে দখলের অব্যাহত হুমকি দিয়ে আসছে এস আই আনিসুর রহমান ও তার ভাই শহিদুর রহমান, ভগ্নিপতি ঠান্ডু মিয়াসহ কয়েকজন। এতে আতঙ্কিত হয়ে পড়ছেন গোটা পরিবার।

সামেলা খাতুন জানান, আমার প্রথম স্বামীর ভিটেতে বসবাস করে আসছি প্রায় ৩০ বছর ধরে। স্বামী মারা যাওয়ার পর শিশু কন্যাকে নিয়ে অসহায় অবস্থায় বিয়ে করি মোকাদ্দেস আলীকে।
তাকে নিয়েই প্রায় ২০ বছর ধরে পূর্বের স্বামীর ভিটাতে চায়ের দোকান করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছি। দারোগা আনিসসহ তার দলবল আমার সেই বসতবাড়ি থেকে উচ্ছেদ করে দখল নিতে মরিয়া হয়ে অব্যাহত হুমকি দিতেছে।
উচ্ছেদের হুমকি দেয়ার কথা অস্বীকার করে ঢাকার রমনা থানায় কর্মরত এস আই আনিসুর রহমান বলেন, সামেলা বা মোকাদ্দেসকে স্থানীয় মাতবরদের মাধ্যমে সরে যেতে বলেছি। তাদের ঘর ভাঙ্গার খরচ বাবদ মাদবরদের কাছে ১০ হাজার টাকাও দিয়েছি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর