× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, সোমবার

মেয়ের সঙ্গে কথা বলায় যুবকের হাত-পা ভেঙে দিলো পিতা

বাংলারজমিন

পঞ্চগড় প্রতিনিধি | ১৩ আগস্ট ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৭:৩৬

রং নাম্বারে পরিচয় হওয়া এক কিশোরীর সাথে সাক্ষাতে দেখা করতে গিয়ে কিশোরীর বাবার নির্যাতনে এখন পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে কাতরাচ্ছে এক যুবক। আর কিশোরীর বাবার অপহরণ মামলার আসামী হয়ে হাসপাতালে ভর্তি থাকায় সেখানে রয়েছে পুলিশ পাহারা। চাঞ্চল্যকর এ ঘটনাটি ঘটেছে পঞ্চগড় সদর উপজেলার গড়িনাবাড়ি ইউপি’র মাটিগাড়া গ্রামে। নির্যাতনে আহত ওই যুবক চাঁদপুর জেলার পল্লী বিদ্যুতের লাইম্যানের কাজ করে।
মামলার এজাহার ও পুলিশ সূত্র জানায়, গত বুধবার বিকেলে পঞ্চগড় সদর উপজেলার গড়িনাবাড়ি ইউনিয়নের সিপাইপাড়া গ্রামের আইবুল হকের ছেলে রাকিব হোসেন (১৮) একই ইউনিয়নের মাটিগাড়া গ্রামে যায়। সে ওই গ্রামের বজলার রহমানের ৯ম শ্রেণিতে পড়–য়া কিশোরী মেয়েকে অপহরণ করে তুলে নিয়ে যায়। পরে আটোয়ারীর উপজেলার ধামোর এলাকা থেকে ওই যুবক ও কিশোরীকে উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে আসে কিশোরীর বাবা ও তার পরিবারের সদস্যরা। বাড়িতে আনার পর কিশোরীর বাবা ওই ছেলেকে মারধরও করে।
রাতে পঞ্চগড় থানায় বিষয়টি জানালে থানা পুলিশ সেখান থেকে আহত অবস্থায় ওই যুবককে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। কিশোরীর বাবা রাতেই পঞ্চগড় থানায় ওই যুবকের নামে একটি অপহরণ মামলা করলে পুলিশের তত্ত্বাবধানে ওই যুবককে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন যুবক রাকিব জানায়, রং নাম্বারে ওই কিশোরীর সাথে আমার পরিচয় হয় এক মাস আগে। কিন্তু কোনদিন সাক্ষাতে তার সাথে কথা হয়নি। বুধবার সকালে সে আমাকে এসএমএস করে তার বাসায় আসতে বলে। আমি সরল মনে তাদের বাড়িতে যাই এবং ওই মেয়েকে নিয়ে বাড়ির পার্শে¦ বেড়াতে যাই। কিছুক্ষণ পর মেয়েটির বাবাসহ কয়েকজন আমাদের নিয়ে তাদের বাড়িতে নিয়ে যায়। সেখানে মেয়ের বাবা নিজেই গাছের ডাল দিয়ে আমার বেধরক নির্যাতন করে। এতে করে আমার হাত ও পা ভেঙ্গে যায়। আমি প্রচন্ড ব্যথায় কাতরাতে থাকি। রাতে পুলিশ আমাকে উদ্ধার করে থানায় আনে। রাতেই আমাকে হাসপাতালে ভর্তি করে। শুনেছি আমার নামে নাকি অপহরণ মামলা হয়েছে। আমি তো তাকে অপহরণ করতে যাইনি। সেই তো আমাকে এসএমএস করে তাদের বাড়ি যেতে বলেছে। আর আমি তাকে নিয়ে তাদের বাড়ির পাশেই কথা বলছিলাম।
রাকিবের মা রোকেয়া বেগম জানান, আমার ছেলে একেবারে সহজ সরল ও নির্দোষ। আমরা আজ (বৃহস্পতিবার) সকালে খবর পাই যে, রাকিবকে পঞ্চগড় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। হাসপাতালে এসে দেখি আমার ছেলের হাত-পা ভেঙ্গে দেয়া হয়েছে। উল্টো তারাই আমার ছেলের নামে অপহরণ মামলা করেছে। আমি তার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার এবং আমার ছেলের নির্যাতনের বিচার চাই।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও পঞ্চগড় সদর থানার উপ পরিদর্শক ফিরোজ বলেন, খবর পেয়ে আমরা সন্ধ্যার পর গড়িনাবাড়ি থেকে ওই ছেলেকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসি। রাতেই মেয়ের বাবা থানায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের করে তাকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। সে মামলার আসামী হওয়ায় সেখানে পুলিশ পাহারা দেয়া হচ্ছে। সে সুস্থ্য হলে তাকে আদালতে নেয়া হবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর