× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, বৃহস্পতিবার

মনু নদীর দুঃখ অচিরেই ঘুচবে-পানি সম্পদ সচিব

বাংলারজমিন

স্টাফ রিপোর্টার, মৌলভীবাজার থেকে | ১৪ আগস্ট ২০২০, শুক্রবার, ৮:১৭

 পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব কবির বিন আনোয়ার বলেছেন প্রধানমন্ত্রী দেশের সকল নদ-নদী রক্ষায় ডেল্টা প্ল্যান ঘোষণা করেছেন। এই ডেল্টা প্ল্যানে হাওর অধ্যুষিত ৬টি জেলাকে আলাদাভাবে চিহ্নিত করা হয়েছে। ডেল্টা প্ল্যানে দেশকে ৬ টি ভাগে ভাগ করা হয়েছে। ভৌগোলিক এবং পানি সম্পদ ব্যবস্থাপনার খাতিরে চিন্তা করে এই ডেল্টা প্ল্যান করা হয়েছে। তাতে এই হাওর অঞ্চলকে আলাদাভাবে ভাগ করা হয়েছে। সেখানে বেশ বড় বড় কয়েকটি প্রকল্প পাশ হয়েছে। আরো কয়েকটি প্রকল্প অনুমোদনের অপেক্ষায় আছে। গত বুধবার দুপুরে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড (বাপাউবো) মৌলভীবাজার জেলা কার্যালয়ের আয়োজনে জেলার কুলাউড়ার ব্রাহ্মণবাজার ফানাই নদীর ব্রীজ সংলগ্ন এলাকায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর জন্মশতবর্ষ উপলক্ষে আয়োজিত বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব কবির বিন আনোয়ার উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।
তিনি বলেন, সারাদেশের নদ-নদী ও খালের পাশে প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষায় দশ লক্ষ চারা গাছ রোপন করার উদ্যোগ নিয়েছে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়। এরই ধারাবাহিকতায় মৌলভীবাজারের কুলাউড়ার ফানাই নদীর পাড়ে বৃক্ষরোপন করা হয়েছে। তিনি বলেন মৌলভীবাজার বাসীর দুঃখ হিসেবে অভিহিত মনু নদীর দুঃখ অচিরেই ঘুচবে। মৌলভীবাজার সদর উপজেলা, কুলাউড়া ও রাজনগর উপজেলায় মনু নদী রক্ষায় ৯৯৬ কোটি টাকার প্রকল্প একনেকে পাশ হয়েছে। আগামী শুষ্ক মৌসুমে মনু নদীর রক্ষায় প্রকল্পের কাজ শুরু হবে। এই প্রকল্প বাস্তবায়ন হওয়ার পর আশা করছি মনু নদীকে নিয়ন্ত্রণ করা যাবে। নদী কেন্দ্রিক চলমান সকল সমস্যাও কমে যাবে। যখন-তখন বন্যাও কমে যাবে। মনু নদীর নাব্যতা বৃদ্ধিতে খনন কাজ চলমান রয়েছে। প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় ছোট-বড় খালবিল খনন করা হবে। নদী ও খালের পাড়ে গাছ লাগানোর মধ্যে দিয়ে তীরের মাটি রক্ষার জন্য ন্যাচার বেইজ পদ্ধতিতে প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষায় গাছ লাগানো হবে। সবকিছু মিলিয়ে প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত ডেল্টা প্ল্যান বাস্তবায়ন হলে দেশে ৬০ ভাগ নদী ভাঙ্গন রোধ সম্ভব হবে। বৃক্ষরোপণ কর্মসূচিতে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মৌলভীবাজারের জেলা প্রশাসক মীর নাহিদ আহসান, পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রধান প্রকৌশলী এস এম শহীদুল ইসলাম, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান একেএম সফি আহমদ সলমান,পানি উন্নয়ন বোর্ডের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী (মৌলভীবাজার সার্কেল) প্রকাশ কৃষ্ণ সরকার, মৌলভীবাজার পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী রণেন্দ্র শংকর চক্রবর্তী,উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এটিএম ফরহাদ চৌধুরী, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) নাজরাতুন নাঈম, পৌর মেয়র শফি আলম ইউনুছ, কুলাউড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইয়ারদৌস হাসান, পাউবো’র উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী খালিদ বিন অলীদ, মো. খোরশেদ আলম, মো. মোখলেছুর রহমান, উপ-সহকারী প্রকৌশলী সরওয়ার আলম চৌধুরী, মো. আব্দুল বাতেনসহ স্থানীয় এলাকার জনপ্রতিনিধি, গণমান্য ব্যক্তিবর্গ ও গণমাধ্যকর্মীরা।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর