× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৯ অক্টোবর ২০২০, বৃহস্পতিবার

যুক্তরাষ্ট্রে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে আরো এক বছর লাগতে পারে: ফাউচি

দেশ বিদেশ

মানবজমিন ডেস্ক | ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, রবিবার, ৮:৪৪

করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) ফলে সৃষ্ট পরিস্থিতি উৎরে স্বাভাবিক জীবনযাপনে ফিরে যেতে মার্কিনিদের আরো এক বছর সময় লাগতে পারে। শুক্রবার এমন সতর্কতা জানিয়েছেন হোয়াইট হাউসের করোনাভাইরাস টাস্কফোর্সের সবচেয়ে জ্যেষ্ঠ জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ অ্যান্থনি ফাউচি। তিনি বলেছেন, আগামী কয়েক মাসের মধ্যে ভাইরাসটির কোনো টিকা আবিষ্কার হলেও জনজীবন স্বাভাবিক হতে হতে বেশ সময় লাগবে। এমনকি আগামী বছরের শেষের দিক পর্যন্ত সময় লাগতে পারে। এ খবর দিয়েছে দ্য গার্ডিয়ান।
এমএসএনবিসিকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে ফাউচি সতর্ক করেন, করোনা পূর্ববর্তী স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে যেতে ২০২১ সালেরও অনেকটা লেগে যেতে পারে। হয়তো ২০২১ সালের শেষ দিক পর্যন্ত লাগবে।চলতি সপ্তাহে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প দাবি করেন, করোনা পরিস্থিতি থেকে উৎরে যাওয়ার শেষের দিকে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। ট্রাম্পের মন্তব্যের তীব্র সমালোচনা করে ফাউচি বলেন, মহামারির বর্তমান উপাত্ত আদতে খুবই ‘বিরক্তিকর’। ট্রাম্পের মন্তব্যের প্রসঙ্গে তিনি বলেন, দুঃখের সঙ্গে আমাকে দ্বিমত পোষণ করতে হচ্ছে।
মহামারিটির বর্তমান পরিস্থিতির পরিসংখ্যান খুবই বিরক্তিকর। প্রতিদিন আমাদের এখানে ৪০ হাজার নতুন সংক্রমণ শনাক্ত হচ্ছে। মারা যাচ্ছেন প্রায় ১ হাজার মানুষ।
গত সপ্তাহে ফাঁস হওয়া এক অডিও রেকর্ডিংসে প্রকাশ পায় যে, ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রে করোনার ঝুঁকি সম্পর্কে জেনেশুনেও যথাযথ ব্যবস্থা নেননি। গত ফেব্রুয়ারিতেই যুক্তরাষ্ট্রে ভাইরাসটির ঝুঁকি সম্পর্কে অবগত হয়েছিলেন তিনি। তা সত্ত্বেও ‘আতঙ্ক’ এড়াতে এর হুমকির কথা যথাযথভাবে প্রকাশ করেননি তিনি। এ বিষয়ে ফাউচি বলেন, কেউ যখন কোনোকিছুর সত্যতা চেপে রাখে, তখন সেটা সত্যিকারের হুমকি হয়ে দাঁড়ায়, আর তা ভালো জিনিস নয়।
প্রসঙ্গত, এখন অবধি যুক্তরাষ্ট্রে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৬৩ লাখ ছাড়িয়েছে। পুরো বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ হয়েছে দেশটিতে। করোনায় মৃত্যুও সবচেয়ে বেশি হয়েছে সেখানে। এখন অবধি মারা গেছেন প্রায় ২ লাখ মানুষ।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর