× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, সোমবার
কলকাতা কথকতা

করোনা আবহেও পশ্চিমবঙ্গে দুর্গাপুজাে হবে, ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর

কলকাতা কথকতা

জয়ন্ত চক্রবর্তী, কলকাতা | ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, মঙ্গলবার, ৯:৩২

বৃহস্পতিবার মহালয়া। তারপর মলমাস পরায় নজিরবিহীনভাবে একমাস ব্যাবধানে দুর্গাপুজো। এবার এই অতিমারির কালে বাংলায়  বাঙালির সেরা উৎসবটি হবে কিনা তাই নিয়ে অনিশ্চয়তার সৃষ্টি হয়েছিল। সোমবার নবান্নে দুর্গাপূজার উদ্যোক্তাদের  সঙ্গে বৈঠকের পর মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় ঘোষণা করলেন,  এবারও দুর্গাপুজো হবে। তবে,  সামাজিক দূরত্ব মেনে,  করোনা বিধি অনুসরণ করে। এই ঘোষণার আগে মুখ্যমন্ত্রী গ্লোবাল অ্যাডভাইসারি কমিটির সঙ্গে পুজো নিয়ে বৈঠক করে নেন। পুজো কি ভাবে হবে,  প্যান্ডেল কত বড় হবে,  প্রতিমা কিরকম হবে,  দর্শনার্থীরা কতজন একসঙ্গে প্যান্ডেলে ঢুকবেন এই সমস্ত গাইডলাইন  রাজ্য সরকার নির্দিষ্ট করে দেবে পঁচিশ সেপ্টেম্বর পুজো কমিটিগুলির সঙ্গে দ্বিতীয় দফার বৈঠকের শেষে। অবশ্য মুখ্যমন্ত্রী পুজো উদ্যোক্তাদের ইতিমধ্যেই নির্দেশ দিয়েছেন,  প্যান্ডেল খোলামেলা রাখতে।
যাতে ভাইরাস এর সংক্রমণ না ছড়াতে পারে। একসঙ্গে পঁচিশ জনের বেশি দর্শনার্থী মণ্ডপে ঢুকতে পারবে না। সানিটাইজেসন  টানেল ও থার্মাল গান বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে। মাস্ক ছাড়া কাউকে মণ্ডপে ঢুকতে দেওয়া হবেনা। পুরোহিত মন্ত্রোচ্চারণ করবেন মাস্ক পরেই।এছাড়াও আরও কিছু বিধিনিষেধ আসছে যা পঁচিশ সেপ্টেম্বর প্রকাশ করা হবে। আসোচেম এর দেওয়া হিসেব অনুযায়ী গতবছর বাংলায় দুর্গাপুজোয় মোট  ব্যায় হয়েছিল বেয়াল্লিশ হাজার কোটি টাকা। এই টাকা অনেককেই ভাত রুটি যোগায়। বাঙালির অর্থনীতিতে একটা বড় ভূমিকা থাকে দুর্গাপুজোর। এবার অর্থনীতি বেশ কিছুটা ধাক্কা খাবে। তবে,  বাঙালি বিষয়টিকে নেই মামার থেকে কানা মামা বলেই ধরে নিচ্ছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর