× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৫ অক্টোবর ২০২০, রবিবার

কঙ্গনাকে কটাক্ষ

বিনোদন

বিনোদন ডেস্ক | ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, শনিবার, ২:১৩

প্রতিদিনই নানা খবরের শিরোনাম হচ্ছেন বলিউড অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাউত। সোশ্যাল মিডিয়ায় তিনি যেমন সরব, তেমনি তারও পিছু ছাড়ছে না অনেকে। যেমন কঙ্গনারই করা এক টুইটের সূত্র ধরে এ বার তাকে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় গিয়ে চিনের সেনাকে পিছু হটিয়ে দেশকে রক্ষা করার ‘উপদেশ’ দিয়ে কটাক্ষ ছুড়লেন পরিচালক অনুরাগ কশ্যপ। চুপ করে থাকার পাত্রী নন কঙ্গনাও। পাল্টা টুইটে অনুরাগকে ‘নির্বোধ’ আখ্যা দিয়ে অভিনেত্রী বলেছেন, তিনি সীমান্তে গেলে অনুরাগও যেন পরের বার অলিম্পিকস-এ নাম লেখান! যদিও প্রশ্ন উঠেছে যে, এত কিছু থাকতে একজন পরিচালককে কেন অলিম্পিক্স-এ নাম লেখাতে বললেন বিজেপি-ঘনিষ্ঠ এই অভিনেত্রী। সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যু রহস্য ঘিরে প্রথম দিন থেকেই ঝড় তুলেছে কঙ্গনার টুইট। তরজা চলেছে। শুরু হয়েছে বিতর্কও।
সেই রেশ টেনেই এ বার টুইট যুদ্ধে জড়ালেন কঙ্গনা-অনুরাগ। ১৭ই সেপ্টেম্বর এক টুইটে কঙ্গনা লিখেছিলেন, আমি একজন ক্ষত্রিয়। গর্দান দিতে পারি, কিন্তু মাথা নিচু করতে পারব না। দেশের সম্মানের স্বার্থে সব সময়েই মুখ খুলব। আত্মসম্মানের সঙ্গে বেঁচে এসেছি এবং গর্বের সঙ্গে জাতীয়তাবাদী হয়েই বেঁচে থাকব। কখনই নিজের নীতির সঙ্গে আপস করব না। জয় হিন্দ। যার জবাবে কটাক্ষ ছুড়ে অনুরাগ লেখেন, বোনটি, তুমি একাই! একমাত্র মণিকর্ণিকা! চার-পাঁচ জনকে সঙ্গে নিয়ে চিনের সঙ্গে লড়াই করো। দেখ চিন দেশের কতটা ভিতরে ঢুকে পড়েছে। দেখিয়ে দাও তাদেরও যে, যখন তুমি রয়েছ, তখন কেউ ভারতের এক চুলও ক্ষতি করতে পারবে না! তোমার বাড়ি থেকে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখার ওই অঞ্চলে পৌঁছতে মাত্র এক দিন সময় লাগে। যাও বাঘিনী। জয় হিন্দ। কটাক্ষের জবাবে কঙ্গনার পাল্টা টুইট, ঠিক আছে, আমি সীমান্তে যাচ্ছি। আপনিও সামনের বছর অলিম্পিকস-এ চলে যান, দেশের স্বর্ণপদক প্রয়োজন...আপনি তো দেখছি রূপকেও আক্ষরিক অর্থ খুঁজছেন। এত নির্বোধ হয়ে গিয়েছেন কবে থেকে? আমরা যখন বন্ধু ছিলাম, তখন তো বেশ বুদ্ধিমান ছিলেন! এর পরে অবশ্য চুপ করে থাকেননি অনুরাগও। তার টুইট, বোনটি, তোমার জীবনটাই এখন রূপকের রূপ নিয়েছে! সঙ্গে রাজনৈতিক খোঁচাও জুড়ে দেন তিনি। এরপর এই তর্কে ইতি টানার পক্ষেই সওয়াল করেন কঙ্গনা। তবে খানিক পরে আলাদা একটি টুইটে তিনি বলেন, আমাকে হয়তো অনেকের খুব লড়াকু মনে হতে পারে। তবে তা একেবারেই সত্যি নয়। কখনও কোনও যুদ্ধ আমি নিজে থেকে শুরু করিনি। যদি তেমনটা কেউ প্রমাণ করতে পারে, আমি টুইটার ছেড়ে দেব। আমি কখনও লড়াই শুরু করি না। তবে শেষ করি। ভগবান কৃষ্ণ বলেছেন, কেউ যদি যুদ্ধ চায়, তা হলে প্রত্যাখান করতে নেই।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর