× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২০ অক্টোবর ২০২০, মঙ্গলবার

আহমদ শফীর জানাজায় অংশগ্রহণ, জামায়াত আমীরের ব্যাখ্যা

অনলাইন

অনলাইন ডেস্ক | ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, সোমবার, ২:৪৫

হেফাজতে ইসলামের আমীর আল্লামা শাহ আহমদ শফীর জানাজায় বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর নেতাদের অংশগ্রহণ নিয়ে আলোচনা-সমালোচনার জন্ম দিয়েছে। এ অবস্থায় আজ সংগঠনটির কেন্দ্রীয় আমীর ডা. শফিকুর রহমান এক বিবৃতি দিয়েছেন। এতে তিনি উল্লেখ করেন, অতিসম্প্রতি বাংলাদেশের বিশাল মাপের একজন সম্মানিত দ্বীনি ব্যক্তিত্ব আল্লামা শাহ আহমদ শফী রাহিমাহুল্লাহু দুনিয়া থেকে বিদায় নিয়েছেন। তার ইন্তিকালে গোটা দেশের মুসলমানেরা শোকাহত। সকলেই তাকে গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছেন। এই মহান ব্যক্তির জানাজায় শরিক হওয়া সত্যিই একটি সৌভাগ্যের ব্যাপার ছিল। যারা শরিক হতে পারেননি তারাও আল্লাহর দরবারে উনার জন্য দোয়া করছেন। এই বিষয়টিকে কেন্দ্র করে কোনভাবেই নেতিবাচক কোন চর্চা একান্তই দুঃখজনক বলে উল্লেখ করেন তিনি।
সমালোচনার প্রেক্ষাপটে সকলকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, আমরা সকল মহলের সকল দ্বীনি ভাইদের প্রতি আন্তরিক অনুরোধ জানাই, আসুন, পরস্পরের ব্যাপারে সকল প্রকার নেতিবাচক ধারণা ও চর্চা পরিহার করি।
পরস্পরের ব্যাপারে একান্ত শ্রদ্ধাবোধ, সু-ধারণা, ভালোবাসা এবং সম্প্রীতির চর্চা করি। একে অন্যের প্রতি অন্তরের অন্তস্তল থেকে মহান প্রভুর দরবারে পারস্পরিক কল্যাণ কামনা করি। সকল প্রকার জুলুম ও জুলমাত থেকে আমাদের প্রিয় জাতিকে রক্ষা করার জন্য মহান আল্লাহ তায়ালার সাহায্য চেয়ে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করি। পরস্পর ভাই হিসেবে একে অন্যকে ক্ষমা করি। কুরআন-সুন্নাহর দেখানো পথে পরস্পরের সহযোগী ও সহযাত্রী হই। আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তায়ালা আমাদেরকে তার সন্তুষ্টির পথে চলার জন্য তাওফিক দান করুন। আমীন।
বিবৃতিতে ডা. শফিকুর রহমান বলেন, আল্লামা শফীসহ অতীতে যে সমস্ত আল্লাহর নেক বান্দাগণ সীমাহীন ত্যাগ-কোরবানী ও নেক আমলের নজরানা পেশ করে দুনিয়া থেকে বিদায় নিয়েছেন, মহান প্রভুর দরবারে দোয়া করি তিনি তাদের সকলের ভুল-ক্রটি ক্ষমা করে দিয়ে নেক আমলগুলো কবুল করে জান্নাতের উচ্চ মাকাম দান করুন এবং আমাদেরকে আল্লাহ তায়ালার সন্তুষ্টির পথে পরিচালিত করুন।
প্রসঙ্গত, গত ১৮ই সেপ্টেম্বর শুক্রবার আল্লামা শাহ আহমদ শফী মৃত্যুবরণ করেন। পরের দিন শনিবার লাখো মানুষের উপস্থিতিতে তার জানাজা সম্পন্ন হয়। জানাজায় জামায়াতে ইসলামীর শীর্ষ নেতারাও উপস্থিত ছিলেন। দলটির এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল মিয়া গোলাম পরওয়ার, ইসলামী ছাত্র শিবিরের কেন্দ্রীয় সেক্রেটারি জেনারেল সালাউদ্দীন আইয়ুবী, চট্টগ্রাম মহানগর জামায়াতের নায়েবে আমির ও সাবেক এমপি শাহজাহান চৌধুরী, চট্টগ্রাম মহানগর জামায়াতের সেক্রেটারি মুহাম্মদ নজরুল ইসলামসহ জামায়াত-শিবিরের বেশ কয়েকজন শীর্ষ নেতা জানাজায় অংশ নেন। জানাজার আগে হাটহাজারী মাদ্রাসার মূল ফটকের সামনে বক্তব্যও দেন জামায়াত নেতারা। সেখানে প্রয়াত আহমদ শফীকে ‘জাতির অভিভাবক’ বলেও অভিহিত করা হয়। কওমী ধারার সঙ্গে জামায়াতে ইসলামীর ধারার মতপার্থক্য থাকায় এ নিয়ে অনেকে সামালোচানা করেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
শরীফ হুসাইন
২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৪:৫৪

হাটহাজারী মাদ্রাসার সামনে তারা বক্তব্য দেন, সংবাদটি মনে হয় যথাযথ নয় ! কারণ হাটহাজারী মরহুম হযরত আল্লামা শাহ আহমদ শফী রহমতুল্লাহি আলাইহি এর জানাজা কে কেন্দ্র করে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে আগত শীর্ষস্থানে ওলামায়ে কেরামগণ উপস্থিত হওয়া সত্ত্বেও যেখানে কোন ধরনের আলোচনা বক্তিতা দেয়া পরিহার করে নির্দিষ্ট সময়ে জনগণ সংঘটিত হওয়ার জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে সেখানে জামায়াত নেতাদের সামনে বক্তব্য দেন বিষয়টি সঠিক নয়!

শাহ
২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, সোমবার, ৯:৪২

সঠিক কাজটি করেছে জামায়াতের বর্তমান নেতৃত্ব। দেশে একজন শ্রেষ্ট সন্তানের জানাযায় অংশ গ্রহন করে ভালো কাজ করেছে।এখন যারা দলটির নেতৃত্বে আছেন তাদের উচিৎ ৭১ এর ভুমিকার জন্য জাতির কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করা।

Dr.NM Shafique
২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, সোমবার, ৯:৫৬

Those who criticizes against attending janaja are not perfect Muslims.

A.M.Sjddiqui
২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, সোমবার, ৭:২২

I don't understand why this question raised. Ahmed Shafi was an Islamic scholar and as a muslim we should attend(if possible) to any Muslim's janaja irrespective of our Political views. Jamat's members are also Muslim( na ki kono sondeho achse). so why would not they join. No body is pursuing to other religious believer do attending janaja. In fact the question is raised by stupid( eder shahosh dekhe monehoy eta kader deshe boshobash kori)

Mahmud
২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, সোমবার, ৭:৫৪

সাহাবাদের রাঃ ( নবীজির সহচর ) এর প্রতি যাদের শ্রদ্ধাবোধ, সু-ধারণা, ভালোবাসা নাই তাদের মুখে "পরস্পরের ব্যাপারে একান্ত শ্রদ্ধাবোধ, সু-ধারণা, ভালোবাসা এবং সম্প্রীতির চর্চা করি" কোনোভাবেই মানেনা। যারা সাহাবাদের সমালোচনা করে তাদের প্রতি কোনো সম্মান নাই, তাদের সাথে জীবন গেলেও সহাবস্থান নাই সম্প্রীতি নাই বরং অন্তরের অন্তস্তল থেকে তাদের কে ঘৃণা করি ও তারা যেন তওবা করে মুসলমান হয় সেই দোয়া করি।

Abdullah Al Mamun
২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, সোমবার, ৫:৩৩

আমি মনে করি এখানে জামায়াতে ইসলামীর নেতৃবৃন্দ উদারতা দেখিয়েছেন। যা তাদের রাজনীতির আসল চরিত্র। সমালোচনা না করে এটাকে পজিটিভ হিসেবে নিন।

এ. আর. খান
২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, সোমবার, ৫:২৮

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী এদেশের সবচেয়ে বড় ইসলামী সংগঠন। এই পরিচয়ের গণ্ডি পেরিয়ে এ দলটি এদেশের ক্ষমতাসীন সরকারের অন্যতম প্রধান পতিপক্ষ। সেই দলের সেক্রেটারি জেনারেল মাওলানা শাহ আহমাদ শফী সাহেবের জানায় অংশগ্রহণ করেছেন কেবলমাত্র আলেমদের মধ্যকার সম্পর্ক জোরদার করার জন্য। জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেলের সাথে সেখানে উপস্থিত ছিলেন সাবেক একজন সাংসদ, এদেশের সর্ববৃহৎ ছাত্র সংগঠনের সেক্রেটারি জেনারেল। এসমস্ত নেতৃবৃন্দ ভ্রাতৃত্বের খাতিরে সেখানে উপস্থিত থেকে অনেক বড় উদারতার পরিচয় দিয়েছিলেন।

এ. আর. খান
২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, সোমবার, ৫:১৬

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী এদেশের সবচেয়ে বড় ইসলামী সংগঠন। এই পরিচয়ের গণ্ডি পেরিয়ে এ দলটি এদেশের ক্ষমতাসীন সরকারের অন্যতম প্রধান পতিপক্ষ। সেই দলের সেক্রেটারি জেনারেল মাওলানা শাহ আহমাদ শফী সাহেবের জানায় অংশগ্রহণ করেছেন কেবলমাত্র আলেমদের মধ্যকার সম্পর্ক জোরদার করার জন্য। জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেলের সাথে সেখানে উপস্থিত ছিলেন সাবেক একজন সাংসদ, এদেশের সর্ববৃহৎ ছাত্র সংগঠনের সেক্রেটারি জেনারেল। এসমস্ত নেতৃবৃন্দ ভ্রাতৃত্বের খাতিরে সেখানে উপস্থিত থেকে অনেক বড় উদারতার পরিচয় দিয়েছিলেন।

আনোয়ার হোছাইন
২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, সোমবার, ৪:৫৫

জামায়াতের উদারতা সবসময়ই প্রশংসার দাবীদার।

Enaytullah
২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, সোমবার, ৪:৫৫

খাটলি ধরা নিয়ে বিতর্ককারীরা যে নিম্ন মানসিকতার এবং যারা ধরেছে তারা যে উদার মানসিকতার তা আবারও প্রমানিত

Zahir Islam
২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, সোমবার, ৪:৩২

This is a good sign for Muslim Ummah

Munir Hossain
২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, সোমবার, ৩:১০

একজন মহান আলেমেদীনের জানাজায় আশা নিয়েও যারা সমালোচনা করে। তারা মুরগি কবীর এর চেতনা দারী

আশরাফ
২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, সোমবার, ৩:০৩

জামায়াতে ইসলামীর মত উদার কোন সংগঠন আছে কি আপনাদের জানামতে

A ,R ,Sarker
২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, সোমবার, ২:১৯

Those who criticizes against attending janaja are not perfect Muslims.

অন্যান্য খবর