× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২১ অক্টোবর ২০২০, বুধবার

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ভারতীয় দূতের বিদায়ী সাক্ষাৎ রোববার

শেষের পাতা

মিজানুর রহমান | ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, বুধবার, ৯:২৯

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে ভারতের বিদায়ী হাইকমিশনার রীভা গাঙ্গুলী দাসের সাক্ষাতের সময়ক্ষণ নির্ধারিত হয়েছে। আগামী রোববার কাঙ্ক্ষিত সেই সাক্ষাৎ। তার আগে ২৪শে সেপ্টেম্বর পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম এমপি এবং সচিব মাসুদ বিন মোমেনের সঙ্গে বিদায়ী বৈঠক হবে তার। দিল্লির পররাষ্ট্র মন্ত্রকে সচিব হিসাবে পূর্ব এশিয়ার দেশগুলো দেখভালের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব নিতে আগামী ১লা অক্টোবর রীভা গাঙ্গুলী ঢাকা ছেড়ে যাচ্ছেন। এখানে দেড় বছরের মতো ছিলেন তিনি। বাংলাভাষী দূত হিসাবে বাংলাদেশকে বুঝতে এবং সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে যোগাযোগে পূর্বসূরি অনেকের চেয়ে বাড়তি সুবিধা পেয়েছেন হাই কমিশনার রীভা। যদিও শেষ সময়ে এসে তিনি প্রধানমন্ত্রীর দেখা পাচ্ছেন না মর্মে দিল্লি এবং ঢাকার মিডিয়ায় ‘কথিত খবর’ চাউর হলে খানিকটা বিব্রতকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। কিন্তু সেই সংবাদের সত্যতা খোদ ভারতের বিদেশ মন্ত্রকই নাকচ করে।
এটাকে ‘বানোয়াট গল্প’ বলেও অভিহিত করে সাউথ ব্লক। ঢাকার তরফে অবশ্য কোনো প্রতিক্রিয়া দেখানো হয়নি। তবে গণমাধ্যমে এই বার্তা দেয়া হয় যে, সরকার প্রধানের সঙ্গে ভারতীয় হাইকমিশনারের ‘কথিত’ সাক্ষাৎ না হওয়ার প্রশ্নে যখন উভয় দেশের মিডিয়া সরগরম ঠিক সেই মুহূর্তে (জুলাইয়ের তৃতীয় সপ্তাহে) ঢাকাস্থ ভারতীয় হাইকমিশনের তরফে সেগুনবাগিচায় একটি নোটভারবাল পাঠিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ অর্থাৎ অ্যাপয়েনমেন্ট চাওয়া হয়। আগে কোনো অ্যাপয়েনমেন্টই চাওয়া হয়নি। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দক্ষিণ এশিয়া অনুবিভাগ রাষ্ট্রাচার অনুবিভাগের মাধ্যমে ওই নোট প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরের বিবেচনায় পাঠায়। যার প্রেক্ষিতেই ২৭শে সেপ্টেম্বর ভারতীয় দূতের বিদায়ী সাক্ষাতের শিডিউল মিলেছে। সূত্র বলছে, প্রেসিডেন্ট আবদুল হামিদের সঙ্গেও সাক্ষাৎ চেয়েছেন ভারতীয় দূত। বিদায়ী সাক্ষাতের রেওয়াজও রয়েছে। গত ১৬ই সেপ্টেম্বর একটি তারিখও হয়েছিল, কিন্তু অনিবার্য কারণে চূড়ান্ত মুহুর্তে তা স্থগিত হয়ে যায়। বিদ্যমান বাস্তবতায় প্রেসিডেন্টের সুবিধাজনক সময় খোঁজা হচ্ছে। উল্লেখ্য, ২৯শে সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ-ভারত পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের জয়েন্ট কনসালটেটিভ কমিশন জেসিসি’র ভার্চ্যুয়াল বৈঠক হবে। পরদিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেনের সঙ্গে ভারতীয় দূতের বিদায়ী বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
ash
২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, বৃহস্পতিবার, ২:৪২

JAO DOFFA HOWWWWWWW

ash
২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, বৃহস্পতিবার, ২:৪১

JAO DOFFA HOWWWWWWW

অন্যান্য খবর