× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৫ অক্টোবর ২০২০, রবিবার

হাটহাজারী মাদরাসার বহিস্কৃত ৪ শিক্ষককে পুন:নিয়োগ, নতুন ২ জনকে বহিষ্কার

বাংলারজমিন

হাটহাজারী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি | ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, বুধবার, ১:১৭

সম্প্রতি টানা দু’দিনের ছাত্র আন্দোলনে হাটহাজারী দারুল উলূম মইনুল ইসলাম চিত্র অনেক কিছুই পাল্টে গেছে। মজলিসে শুরায় যোগ হয়েছে আরো ৬ জন সিনিয়র মুহাদ্দিস। পরিবর্তন এসেছে কিতাব বণ্টনেও। সব মিলিয়ে নতুনভাবে পথচলা শুরু করেছে দেশের বৃহত্তর কওমী আঁতুড়ঘর হাটহাজারী মাদরাসা।


হেফাজত ইসলামের আমীর, সদ্যপ্রয়াত আল্লামা আহমদ শফী কর্তৃক নিয়োগকৃত শিক্ষকদের গতকাল মঙ্গলবার দিবাগত রাতে বহিষ্কার করে পূর্বের বহিষ্কৃত শিক্ষকদের পুননিয়োগ করেছেন মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ।


কুরবান ঈদের পরপর বিনা নোটিশে হঠাৎ করে বহিষ্কার করা হয় তিন শিক্ষককে। তারা হলেন, মাওলানা সাঈদ আহমদ, মাওলানা আনওয়ার শাহ আজহারী, মাওলানা হাসান।


সর্বশেষ তথ্যানুযায়ী, ছাত্রদের দাবি মানার অংশ হিসেবে তাদের সবাইকে পুন:নিয়োগ দিয়েছে মাদরাসা কর্তৃপক্ষ। তাদের সঙ্গে মাওলানা মনসুরুল হক নামক অপর এক কর্মকর্তাকেও পুন:নিয়োগ দেয়া হয়েছে। যিনি পূর্বে হিসাব বিভাগে কর্মরত ছিলেন। তবে আর কাউকে পুন:নিয়োগ দেয়া হবে কিনা, বিগত কত বছরের অব্যাহতি পাওয়া শিক্ষকদের পুন:নিয়োগ দেয়ার পরিকল্পনা বা সুযোগ আছে সেটা কেউ পরিষ্কার করছে না।
অন্যদিকে ‘বিতর্কিত’ নিয়োগের ২ শিক্ষককে বহিষ্কার করা হয়েছে। তারা হলেন, মাওলানা মোহাম্মদ উসমান ও মাওলানা তকি উদ্দিন আজিজ।

তবে ছাত্রদের দাবির একাংশ মানা হলেও অপর অংশটি পরিপূর্ণ মানা হয়নি বলে মনে করছেন অনেকে। মাদরাসা ছুটির পর থেকে অর্থাৎ গত ছয় মাসে যাদের বিতর্কিত নিয়োগ দেয়া হয়েছে তাদের ২ জনকে গতকাল অব্যাহতি দেয়া হলেও অন্যদের ব্যাপারে এখনো সিদ্ধান্ত নেয়নি কর্তৃপক্ষ। যাদের সবাই বর্তমান সিনিয়র শিক্ষকদের ছেলে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
ড. হায়দার
২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, বুধবার, ৭:৩৯

কাউকে বহিস্কার বা পুন নিয়োগের ক্ষেত্রে প্রতিহিংসা বাস্তবায়নের গন্ধ থাকে। তাই বলবো ঐ সময় যোগ্য কাউকে নিয়োগ দেয়া হয়ে থাকলে তাকে যেন বহিস্কার করা না হয়। ঠিক তেমনি যৌক্তিক কারনে যদি কেউ বহিস্কার হয়ে থাকে তাকে যেন পুন বহাল করা না হয়। মনে রাখতে হবে শত্রুর বিরুদ্ধেও যেন ইনসাফ ভুলে না যাই।

Md. Harun al-Rashid
২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, বুধবার, ৪:২৮

উপযুক্ততা প্রমানের সুযোগ দিন। বর্থ্যতায় পদচ্যূত করুন। ফিকহ ও নীতিজ্ঞানের উচ্চ শিক্ষায় মুফতি ইসমাঈল মেন্ক এঁর মত বিদেশী শিক্ষক খন্ড কালীন বা Visiting মোহাদ্দীস হিসাবে আমন্ত্রন করুন। আধুনিক শিক্ষিত যুবকদের ফিকহ শাস্রসহ আন্তধর্ম সম্পর্ক ও তুলনামূলক ধর্মতত্তে পিএইছডি করার সুযোগ করে দিন।

রুহুল আমীন যাক্কার
২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, বুধবার, ১:৫৩

দেশের সর্ববৃহৎ ও প্রাচীনতম এই দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির উত্তরোত্তর সফলতা কামনা করি। মহান আল্লাহ এই নববী কাননটি কিয়ামত পযর্ন্ত টিকিয়ে রাখুন। আমীন।

অন্যান্য খবর