× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৬ অক্টোবর ২০২০, সোমবার
কক্সবাজারে ৩৬ ঘণ্টার শ্বাসরুদ্ধকর অভিযান

দেড় মাস আটকে রেখে ধর্ষণ কিশোরী উদ্ধার, গ্রেপ্তার ৪

এক্সক্লুসিভ

স্টাফ রিপোর্টার, কক্সবাজার থেকে | ১৮ অক্টোবর ২০২০, রবিবার, ৮:৩৩

কক্সবাজারে ধর্ষণের অভিযোগে প্রধান আসামি ও তার অপর তিন সহযোগীকে আটক করেছে র‌্যাব। কক্সবাজার শহরের কস্তুরা ঘাট ও খুরুশকুল এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। শুক্রবার রাতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন  র‌্যাব-৭ এর সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) মো. মাহমুদুল হাসান মামুন। তিনি জানান, এক কিশোরীকে দীর্ঘদিন আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগে ৪ জনকে আটকের পাশাপাশি ভিকটিম মেয়ে শিশুকেও উদ্ধার করা হয়েছে। তিনি জানান, সমপ্রতি ভিকটিমের মা র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম এ অভিযোগ করেন গত ১লা সেপ্টেম্বর মো. শাহাবুদ্দিন (২৮) ও তার ৩ জন সহযোগী মিলে তার ছোট মেয়েকে অপহরণ করে নিয়ে প্রায় দেড় মাস যাবৎ অজানা স্থানে আটকে রেখে ধর্ষণ করছে। ওই অভিযোগের ভিত্তিতে র‌্যাব-৭ ঘটনার সত্যতা যাচাই এবং আসামিদের গ্রেপ্তারের লক্ষ্যে ছায়া তদন্ত শুরু করে। একপর্যায়ে র‌্যাব-৭ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারে যে, ওই ধর্ষণকারী ও তার সহযোগীরা কক্সবাজার জেলার সদর থানাধীন এলাকায় অবস্থান করছে। ওই তথ্যের  ভিত্তিতে টানা ৩৬ ঘণ্টার শ্বাসরুদ্ধকর অভিযানে ভিকটিমকে উদ্ধার এবং প্রধান আসামি মো. শাহাবুদ্দিন ও তার অপর তিন সহযোগীকে আটক করতে সক্ষম হয় র‌্যাব-৭।
আসামিরা তাদের অবস্থান পরিবর্তন করায় তাদের আটকের কাজটি ছিল কষ্টসাধ্য। এক পর্যায়ে র‌্যাব-৭ জানতে পারে আসামিরা কক্সবাজার জেলার সদর থানাধীন কস্তুরা ঘাট এলাকায় অবস্থান করছে। ওই তথ্যের ভিত্তিতে গত ১৫ই অক্টোবর রাতে র‌্যাব-৭ এর একটি আভিযানিক দল বর্ণিত স্থানে অভিযান পরিচালনা করলে র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে র‌্যাব সদস্যরা প্রধান আসামি খরুলিয়ার চেয়ারম্যানপাড়া এলাকার আব্দুল গনির ছেলে শাহাব উদ্দিনকে আটক করে। পরবর্তীতে তার দেয়া তথ্য মতে অপর ৩ আসামি পেকুয়ার পশ্চিম উজানটিয়া পাড়ার বাসিন্দা আরমান হোসেন (২৭), খুরুশকুলের হাটখোলাপাড়ার মো. নুরুল আলম (৩৮) ও দক্ষিণ পেঁচারঘোনার লোকমান হাকিম (৩৪)কে খুরুশকুল এলাকা থেকে আটক করে। এসময় ঘটনাস্থল থেকে ভিকটিমকে উদ্ধার করা হয়। আসামি মো. শাহাবুদ্দিন (২৮) অপর ৩ জন আসামিকে নিয়ে ভিকটিমকে অপহরণ ও ধর্ষণের কথা স্বীকার করে। গ্রেপ্তারকৃত আসামি এবং উদ্ধারকৃত ভিকটিমকে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য কক্সবাজার সদর মডেল থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
নাসির
২৩ অক্টোবর ২০২০, শুক্রবার, ১২:১৩

জনগন দেশের মালিক। জনগনের ইচ্ছা ৭ দিনের মধ্যে জানয়ারগুলিকে ফাসি দেন। অন্তত নুনু কেটে জানয়ারদের খাচায় রাখুন।

Adnan
১৯ অক্টোবর ২০২০, সোমবার, ৫:৩৩

May Allah grant blessings to the associated RAB officers and soldiers.

অন্যান্য খবর