× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৪ নভেম্বর ২০২০, মঙ্গলবার

ঈশ্বরদীতে সাংবাদিকদের সঙ্গে ওসির অসৌজন্যমূলক আচরণ

বাংলারজমিন

ঈশ্বরদী (পাবনা) প্রতিনিধি | ২০ অক্টোবর ২০২০, মঙ্গলবার, ১২:১৭

অবরুদ্ধ পরিবারের সংবাদ সম্মেলনে বাধা, পিস্তল উঁচিয়ে হুমকি ও সাংবাদিকদের সাথে ওসি’র অসৌজন্য আচরণের ঘটনায় ঈশ্বরদী প্রেস ক্লাবে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার রাতে প্রেস ক্লাবে অনুষ্ঠিত এই প্রতিবাদ সভায় এনএম ইসলাম নামে কথিত অস্ত্রধারীর অস্ত্র ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে উদ্ধার ও গ্রেপ্তার এবং ঈশ্বরদী থানার ওসি শেখ নাসির উদ্দিনের অসৌজন্য আচরণের প্রতিবাদে ৭২ ঘণ্টার মধ্যে তাকে প্রত্যাহারের দাবী জানানো হয়।
প্রেস ক্লাবের জরুরি সভায় বলা হয়, সোমবার সন্ধ্যা সাতটার দিকে ঈশ্বরদী শহরের রেলগেট ট্রাফিক মোড় সংলগ্ন আহম্মেদ মঞ্জিলে একটি অবরুদ্ধ নির্যাতিতা পরিবারের সাহিনা আক্তার নামে এক বিধবা নারীর পক্ষ থেকে তাঁর নিজের বাড়িতে সাংবাদিক সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। সাংবাদিকরা যথা সময়ে সেখানে উপস্থিত হলে ওই বাড়ির জনৈক ব্যক্তি নুরুল ইললাম ওরফে এমএন ইসলাম বাড়ির প্রধান দরজায় সাংবাদিকদের প্রবেশে বাধাগ্রস্ত করে এবং প্রেস ক্লাবের সভাপতি স্বপন কুমার কুন্ডু ও সিনিয়র সাংবাদিক এম এ কাদেরকে ধাক্কা মেরে পিস্তল উঁচিয়ে বলেন, ‘এই মুহূর্তে আপনারা না গেলে গুলি করে মেরে ফেলবো।’ এ সময় উপস্থিত সকল সাংবাদিক ঘটনার প্রতিবাদ জানালে এমএন ইসলাম ও তার ছেলে প্রীতম আরও উগ্র হয়ে উঠে। বিষয়টি ঈশ্বরদী থানার ওসিকে ফোনে জানানো হলে তিনি ঘটনাস্থলে এসে এমএন ইসলামের পক্ষ নিয়ে সাংবাদিকদের অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও অসৌজন্যমূলক আচরণ করে বের হয়ে যেতে বলেন।
এ ঘটনায় সাংবাদিকরা প্রেস ক্লাবে তাৎক্ষণিক এক জরুরি সভায় করে । সভায় এনএম ইসলাম নামে কথিত অস্ত্রধারীর অস্ত্র ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে উদ্ধার ও গ্রেপ্তার এবং ঈশ্বরদী থানার ওসি শেখ নাসির উদ্দিনের অসৌজন্য আচরণের প্রতিবাদে ৭২ ঘণ্টার মধ্যে তাকে প্রত্যাহারের দাবী জানানো হয়েছে। দাবী মানা না হলে সাংবাদিকরা বৃহত্তর আন্দোলনের কর্মসূচি ঘোষণা করবেন বলে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।
এ ঘটনায় পাবনা প্রেসক্লাবের সভাপতি এ বি এম ফজলুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক সৈকত আফরোজ, ভাঙ্গুড়া প্রেস ক্লাবের সভাপতি অধ্যাপক মাহবুবুল আলম, আটঘোরিয়া প্রেস ক্লাবের সভাপতি খাইরুল ইসলাম বাসিদ, ফরিদপুর প্রেস ক্লাবের সভাপতি হাফিজুর রহমান ঈশ্বরদী প্রেস ক্লাবের সাংবাদিকদের সিদ্ধান্তের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করে ঘটনার নিন্দা জানিয়েছেন। ।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর