× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৭ নভেম্বর ২০২০, শুক্রবার

আরএমপি গোয়েন্দা শাখার পরিদর্শক বরখাস্ত

বাংলারজমিন

স্টাফ রিপোর্টার, রাজশাহী থেকে | ২০ অক্টোবর ২০২০, মঙ্গলবার, ৯:০২

রাজশাহী মহানগর পুলিশের (আরএমপি) গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) পুলিশ পরিদর্শক খাইরুল ইসলামকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। পুলিশ সদর দপ্তরের এক আদেশে গত সোমবার তাকে সিলেট রেঞ্জে সংযুক্ত করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন আরএমপি’র মুখপাত্র অতিরিক্ত উপ-কমিশনার গোলাম রুহুল কুদ্দুস। সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানায়, গত ১৩ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় রাজশাহী নগরীর উপকণ্ঠ বায়া পালপাড়া এলাকায় নওহাটা  পৌরসভার এক সহকারী প্রকৌশলীকে নারীসহ আটক করেন পুলিশ পরিদর্শক খাইরুল ইসলাম। এরপর ওই প্রকৌশলীর কাছে পাঁচ লাখ টাকা দাবি করেন তিনি। দেনদরবারের একপর্যায়ে ১ লাখ ৯৫ হাজার টাকা নগদ এবং ৩ লাখ টাকার চেক নেওয়ার পর ওই প্রকৌশলীকে ছেড়ে দেন পুলিশ পরিদর্শক খাইরুল। বিষয়টি নিয়ে গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়। এরপর বিষয়টি নিয়ে তদন্ত শুরু করে আরএমপি। আরএমপির উপ-পুলিশ কমিশনার পর্যায়ের এক কর্মকর্তা খাইরুলের বিরুদ্ধে অভিযোগের বিষয়ে তদন্ত করে সত্যতা পান।
এরপর তদন্ত রিপোর্ট পুলিশ সদর দপ্তরে পাঠানো হলে সোমবার খাইরুল ইসলামকে সাময়িক বরখাস্তের নির্দেশ আসে। তাকে আরএমপি ডিবি থেকে সিলেট রেঞ্জে সংযুক্ত করা হয়।

পুলিশের একাধিক সূত্র জানায়, খাইরুল ইসলামের বিরুদ্ধে মাদকসেবন, মাদক ব্যবসায়ীদের সঙ্গে সখ্যতা, মামলার ভয় দেখিয়ে টাকা আদায় ও ফাঁসিয়ে দেয়ার ভয় দেখানো, শৃঙ্খলাবিরোধী কর্মকাণ্ড লিপ্ত থাকাসহ নানা অভিযোগ রয়েছে। এরআগে ২০১৪ সালে বোয়ালিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) হিসেবে দায়িত্ব পালনকালে দুই শিক্ষার্থীকে নির্যাতনের অভিযোগে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছিল। আরএমপির মুখপাত্র অতিরিক্ত উপ-কমিশনার গোলাম রুহুল কুদ্দুস বলেন, আরএমপিতে মাদক ব্যবসা কিংবা অসৎ পুলিশ কর্মকর্তার স্থান নেই। যেটি পুলিশ কমিশনার স্যার যোগদান করার পর থেকেই বলে আসছেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর