× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৬ নভেম্বর ২০২০, বৃহস্পতিবার

চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙরে পণ্য খালাস শুরু

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম থেকে | ২৪ অক্টোবর ২০২০, শনিবার, ৬:৫৫

 নৌ শ্রমিক ধর্মঘট ও নিম্নচাপের প্রভাবে সৃষ্ট বৈরী আবহাওয়ার কারনে টানা চার দিন পর চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙরে পণ্য খালাস শুরু হয়েছে। শুক্রবার দুপুর সাড়ে ১২টার পর থেকে শ্রমিকরা বন্দরের বহিনোঙরে পণ্য খালাস শুরু করে। লাইটার জাহাজ তদারককারী প্রতিষ্ঠান ওয়াটার ট্রান্সপোর্ট সেলের যুগ্ম সচিব আতাউল করিম রঞ্জু (অপারেশন) জানান, বেতনসহ ১১ দফা দাবি আদায়ে চলমান ধর্মঘট প্রত্যাহারের পর শুক্রবার বহির্নোঙর থেকে পণ্য খালাসের জন্য ৪০টি লাইটার জাহাজ যাওয়ার জন্য প্রস্তুত ছিল। কিন্তু বৈরী আবহাওয়ার কারণে তা ব্যাহত হয়। শনিবারও সর্তকতা সংকেত তিন থাকায় বহির্নোঙরে পণ্য খালাস বন্ধ ছিল দুপুর ১২ টা পর্যন্ত। পরে সংকেত নামিয়ে ফেললে বন্দর কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা পেয়ে লাইটার জাহাজগুলো বহির্নোঙরে রওনা দেয়। চট্টগ্রাম বন্দর সচিব ওমর ফারুক বলেন, সমুদ্র বন্দর থেকে আবহাওয়া অফিস সর্তকতা সংকেত নামিয়ে ফেলায় বহির্নোঙর থেকে বন্ধ থাকা পণ্য খালাস শুরু হয়েছে। শনিবার দুপুর সাড়ে ১২ টার পর থেকে লাইটার জাহাজগুলো পণ্য খালাসের জন্য বহির্নোঙরের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়।
বন্দরের বহির্নোঙরে গত চার দিনের বেশি পণ্য খালাস বন্ধ থাকায় বাড়তি জরিমানা গুণতে হচ্ছিল পণ্যবাহী জাহাজগুলোকে। তবে বহিনোঙরে পণ্য খালাস বন্ধ থাকলেও বন্দর জেটিতে জাহাজে কনটেইনার উঠানামা স্বাভাবিক ছিল।
এর আগে বেতন-ভাতার সুযোগ-সুবিধাসহ ১১ দফা দাবি আদায়ে ১৯শে অক্টোবর মধ্যরাত থেকে নৌ শ্রমিক ধমর্ঘটে অচল হয়ে পড়ে চট্টগ্রাম বন্দরের বহিনোঙর। যা শুক্রবার স্থগিত ঘোষণা করে পণ্য খালাস শুরুর প্রক্রিয়া শুরু করার প্রস্তুতি নিচ্ছিল। কিন্তু নিম্নচাপের প্রভাবে ঝড়ো-হাওয়া শুরু হওয়ায় পণ্য খালাস শুরু করতে পারেনি নৌ শ্রমিকরা। এভাবে টানা চারদিন পর শনিবার দুপুরে পণ্য খালাস শুরু করে নৌ শ্রমিকরা।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর