× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৬ নভেম্বর ২০২০, বৃহস্পতিবার

নড়াইলে কলেজ শিক্ষককে গলা কেটে হত্যা

বাংলারজমিন

নড়াইল প্রতিনিধি | ২৪ অক্টোবর ২০২০, শনিবার, ৭:৪৩

নড়াইল সদর উপজেলার তুলারামপুর ইউনিয়নের বেনাহাটি গ্রামে অবসরপ্রাপ্ত কলেজ শিক্ষক অরুন কুমার রায়কে (৭২) গলা কেটে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। নিহত অরুন রায় মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর খুলনা অঞ্চলের উপ-পরিচালক নিভা রাণী পাঠকের স্বামী। শনিবার (২৪ অক্টোবর) বিকেলে বেনাহাটি গ্রামে তার লাশের সৎকার করা হয়। তাকে শেষ বারের মত দেখতে হাজার গাজার মানুষের ঢল নামে। শুক্রবার (২৩ অক্টোবর) সন্ধ্যায় তার স্ত্রী নিভা রানী পাঠক খুলনা থেকে বাড়িতে এসে স্বামীকে ডাকাডাকি করেন। কোন সাড়া শব্দ না পেয়ে ঘরের মধ্যে গিয়ে স্বামীর রক্তাক্ত মরদেহ দেখতে পান স্ত্রী নিভা রাণীসহ পরিবারের সদস্যরা।
শিক্ষা অধিদপ্তরের খুলনা বিভাগীয় কার্যালয়ের উপ-পরিচালক নিভা রাণী পাঠক জানান, করোনা ভাইরাসের প্রকোপ বৃদ্ধির পর থেকে তার স্বামী গ্রামের বাড়ি বেনাহাটিতে একাই থাকতেন। চাকুরির কারণে তিনি খুলনায় থাকেন।
তবে দুর্গাপূজা উপলক্ষে শুক্রবার সন্ধ্যায় ছেলে, বউমা সহ (ছেলের স্ত্রী) ঢাকা থেকে গ্রামের বাড়িতে আসে। বাড়িতে এসে বাবাকে অনেক ডাকাডাকির পরও ঘর থেকে কোনো সাড়া না পেয়ে ছাদ দিয়ে ভেতরে যান নিহত অরুন রায়ের ছেলে ইন্দ্রজিৎ রায়। ঘরে গিয়ে বাবার গলাকাটা রক্তাক্ত মরদেহ দেখতে পান তিনি।
নিভা রাণী পাঠক বলেন, ঘরে প্রবেশের মূল ফটক তালাবদ্ধ অবস্থায় পেয়েছেন। দুর্বৃত্তরা কীভাবে ঘরে প্রবেশ করেছে, তা এই মুহূর্তে বোঝা যাচ্ছে না। তবে ছাদ দিয়ে ঘরে প্রবেশের জায়গা খোলা ছিল। এছাড়া ঘরের পেছনের একটি প্রবেশ পথও খোলা দেখা গেছে। ঘর থেকে কোনো কিছু খোয়া গেছে কি-না, তা এ মুহূর্তে জানাতে পারছেন না বলে জানান। তাদের ছেলে ইন্দ্রজিৎ রায় কান্না জড়িত কণ্ঠে বলেন, তার বাবা একজন নিরীহ মানুষ। কারো সাথে কোন শত্রুতা ছিল না। কে বা কারা এমন হত্যাকান্ড ঘটালো কিছুই বুঝতে পারছেন না। তিনি এ হত্যাকান্ডে জড়িতদের কঠোর শাস্তির দাবি জানান।  
পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, খুলনার বাটিয়াঘাটা ডিগ্রি কলেজ থেকে ২০০৮ সালের নভেম্বরে অবসরে যান অরুণ রায়। স্ত্রী নিভা রাণী পাঠকের চাকুরিও শেষ পর্যায়ে। ছেলে প্রকৌশলী ইন্দ্রজিৎ রবি মোবাইল কোম্পানীর কর্মকর্তা। মেয়ে চিকিৎসক।
নড়াইল সদর থানার ওসি ইলিয়াস হোসেন পিপিএম জানান, কে বা কারা অরুন রায়কে হত্যা করেছে। তা এই মুহূর্তে বলা যাচ্ছে না। আবার ঘর থেকে মূল্যবান কিছু খোয়া গেছে কি-না সেটাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর