× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৬ নভেম্বর ২০২০, বৃহস্পতিবার

দেশে ফিরছেন না পি কে হালদার

অনলাইন

অনলাইন ডেস্ক | ২৪ অক্টোবর ২০২০, শনিবার, ১০:০০

হাজার কোটি টাকা আত্মসাত করে বিদেশে পালিয়ে যাওয়া প্রশান্ত কুমার হালদার (পিকে হালদার) দেশে ফেরার ইচ্ছাপোষণ করলেও এখন তিনি আসবেন না। ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স সার্ভিস লিমিটেডের (আইএলএফএসএল) আইনজীবী ই-মেইল করে অ্যাটর্নি জেনারেলের কার্যালয় ও দুর্নীতি দমন কমিশনকে পিকে হালদারের এই সিদ্ধান্ত পাল্টানোর কথা জানিয়েছেন। আইনজীবীরা জানিয়েছেন, পিকে হালদার এখন দেশে ফিরছেন না। শনিবার অ্যাটর্নি জেনারেল আমিন উদ্দিন গণমাধ্যমকে বলেন, আইএলএফএসএলের আইনজীবী মাহফুজুর রহমান মিলন জানিয়েছেন যে, পিকে হালদার আসবেন না। দুদক এবং অ্যাটর্নি জেনারেল কার্যালয়কে একটা মেইল করেছেন আইনজীবী মিলন। ই-মেইলে তিনি জানিয়েছেন, পিকে হালদার নাকি কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়েছেন। এ বিষয়ে দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান গণমাধ্যমকে বলেন, মাহফুজুর রহমার মিলন মেইল করে দুদককে জানিয়েছেন, পিকে হালদার আসছেন না। শারীরিক অসুস্থতা এবং কোভিড-১৯ এর কারণে তিনি আসছেন না।
কখন আসবেন পরে জানাবেন। উল্লেখ্য, আইএলএফএসএল গ্রাহকদের অভিযোগের মুখে চলতি বছরের শুরুতে বিদেশে পালিয়ে যান পিকে হালদার। বর্তমানে তিনি কানাডায় অবস্থান করছেন। তবে পিকে হালদার পালিয়ে যাওয়ার পরই দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) তার বিরুদ্ধে ৩০০ কোটি টাকার অবৈধ সম্পদের অভিযোগ এনে মামলা দায়ের করে। দুদকের এই মামলার মুখে নিরাপত্তা চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করে আইএলএফএসএল জানায়, আত্মসাত করা অর্থ ফেরত দিতে জীবনের নিরাপত্তার জন্য আদালতের আশ্রয়ে পিকে হালদার দেশে ফিরতে চাইছেন। এনআরবি গেøাবাল ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক পিকে হালদারের জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে আদালতে আবেদন করে ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স সার্ভিস লিমিটেড (আইএলএফএসএল)। এ আবেদন গ্রহণ করে বুধবার বিচারপতি মুহাম্মদ খুরশীদ আলম সরকারের ভার্চুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদেশে আদালত বলেন, পিকে হালদার বিমান থেকে দেশের মাটিতে পা রাখার সঙ্গে সঙ্গে তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশের হেফাজতে নিতে হবে। তিনি যাতে ‘নিরাপদে’ দেশে ফিরে আত্মসমর্পণ করতে পারেন সেজন্য পুলিশ প্রধান, ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ এবং দুর্নীতি দমন কমিশনকে (দুদক) নির্দেশ দেন আদালত।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Jamshed Patwari
২৫ অক্টোবর ২০২০, রবিবার, ১২:০৬

দেশে ফিরে আসলে আরো যারা হোমড়া চোমড়া জড়িত তাদের নামও বেরিয়ে আসবে, তাই তাকে বিদেশে রাখাই হবে হোমড়া চোমড়াদের জন্য সুবিধাজনক।

Faruque Ahmed
২৫ অক্টোবর ২০২০, রবিবার, ১২:০২

কিছু অন্যায় করার জন্য সে টাকা পায়। যে কেউ তাকে এটি করতে প্রভাবিত করে, তারা অনুভব করে যে তিনি যদি ফিরে আসে তবে এটি ঝুঁকিপূর্ণ হবে। মিডিয়া তার শাস্তি প্রকাশ করে ফিরে না আসার বিষয়টি নিশ্চিত করে!!!!এস কে সিনহা এর আরেকটি উদাহরণ!!!!

Nasir Uddin Ahmed
২৫ অক্টোবর ২০২০, রবিবার, ১১:৩৪

Is he will come for returning the looted money ? He wants to come to hand over his all property and taking balance hiding money . It's a trap. Government can issue a international warrant thru Interpol. Bring him back along with his family and directly shoot him in a open place in front of his family and sell all his properly in his name or others to recover the looted money.

Md. Harun al-Rashid
২৫ অক্টোবর ২০২০, রবিবার, ১০:৪৯

তার অবস্হান যখন জানা আছে তাহলে ইন্টারপোলের সহযোগিতায় দেশে ফেরানোর চেষ্টা করা হলে ভাল হতো।

Kazi
২৪ অক্টোবর ২০২০, শনিবার, ৮:৫৩

চোর চোর চোর। দেশে ফেরার সাহস নাই।

Banglar Manush
২৫ অক্টোবর ২০২০, রবিবার, ২:৫০

In civilized world, his arrest warrant would been classified. In Bangladesh, it was widely publicized purposely so that he would know about his arrest on arrival at the airport and therefore, he would not travel to Bangladesh.

অন্যান্য খবর