× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৬ নভেম্বর ২০২০, বৃহস্পতিবার

প্রেমিকের হাত ধরে পালিয়ে যাওয়া গৃহবধূ ফিরলেন লাশ হয়ে

এক্সক্লুসিভ

মখলিছ মিয়া, বানিয়াচং (হবিগঞ্জ) থেকে | ২৬ অক্টোবর ২০২০, সোমবার, ৮:০২

হবিগঞ্জের বানিয়াচঙ্গে গৃহবধূর লাশ রাস্তায় ফেলে রেখে পালিয়ে যাওয়ার সময় জনতার হাতে আটক হয়েছে প্রেমিক। খবর পেয়ে লাশ উদ্ধারসহ আটক অনিককে গ্রেপ্তার করেছে বানিয়াচং থানা পুলিশ। গত শনিবার বিকালে হবিগঞ্জ-বানিয়াচং সড়কের শুকটি ব্রিজের দক্ষিণ পাশে এ ঘটনাটি ঘটেছে। নিহত জোনাকী আক্তার (২১) উপজেলা সদরের রঘু চৌধুরীপাড়া গ্রামের আবু মিয়ার মেয়ে ও কুতুবখানী গ্রামের অপু মিয়ার স্ত্রী। নিহত জোনাকীর তন্বী নামে তিন বছর বয়সী এক মেয়ে ও বায়েজীদ নামে ৬ বছর বয়সী এক ছেলে রয়েছে। আটক ঘাতক প্রেমিকের নাম অনিক পাণ্ডে (৩২)। সে একই উপজেলার কাষ্টগড় গ্রামের মৃত মৃণাল ওরফে মানিক পাণ্ডের পুত্র। নিহতের মা হেনা বেগম জানান, প্রায় দেড় মাস পূর্বে স্বামী ও পুত্র সন্তানকে রেখে কন্যা সন্তানসহ জোনাকী প্রেমিক অনিক পাণ্ডের হাত ধরে পালিয়ে যায়।
গত শনিবার বিকাল অনুমান আড়াইটার দিকে হেনা বেগমকে অনিক ফোন করে জানায়, তার মেয়ে জোনাকী সিলিং ফ্যানের আঘাতে মারা গেছে। সে এম্বুলেন্সে করে লাশ পাঠাচ্ছে। এর কিছুক্ষণের মধ্যে হবিগঞ্জ-বানিয়াচং সড়কে চলাচলকারী যাত্রী সাধারণের দৃষ্টিগোচর হয় যে একটি ছোট মেয়ের পাশে একজন মহিলার লাশ পড়ে রয়েছে। ওই সময় এম্বুলেন্সের চালক লাশ রেখে চলে যায়। অভিযুক্ত অনিক পাণ্ডে পার্শ্ববর্তী খাল পেরিয়ে হাওরের দিকে চলে যাওয়ার সময় ওই রাস্তায় চলাচলকারী যাত্রীরা তাকে আটক করে পুলিশের হাতে সোপর্দ করে। এ ব্যাপারে নিহতের মা হেনা বেগম জানান, সে আমার মেয়ের ও তার সন্তানদের জীবন নষ্ট করেছে। আমি আমার মেয়ে হত্যার বিচার চাই। অনিক পাণ্ডে গৃহবধূ জোনাকী আক্তারকে নিয়ে নেত্রকোনার ৯নং ওয়ার্ডের বলাইনকুয়া গ্রামের সুনীতি নন্দীর ভাড়াটিয়া বাসায় থাকতেন। এ বিষয়ে অনিক পাণ্ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে সে জানায়, সকাল অনুমান ৮টার দিকে ওই বাসার রুমে ঘরের সিলিং ফ্যানের সঙ্গে উড়না দিয়ে গলায় ফাঁস লাগিয়ে মারা যায় জোনাকী আক্তার। বানিয়াচঙ্গের রাস্তায় পড়ে থাকা নিহত জোনাকী আক্তারের নিথর দেহের পাশে মা মা করে আর্তনাদ করছিল শিশু তন্বী। মর্মস্পর্শী এ দৃশ্যটি দেখে রাস্তায় চলাচলকারী অনেকেই চোখের পানি ফেলেন। এ সময় চলাচলকারী যাত্রী সাধারণের মধ্যে এক হৃদয়বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয়। অনেকেই এ নৃশংস ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন। গতকাল হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিহত জোনাকী আক্তার এর মরদেহ ময়নাতদন্ত শেষে তার গ্রামের বাড়ি রঘুচৌধুরী পাড়া এলাকায় নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে জানাজার নামাজ শেষে পারিবারিক কবরস্থানে লাশ দাফন করা হয়। এ বিষয়ে বানিয়াচং থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ এমরান হোসেনের সঙ্গে আলাপকালে তিনি জানান, এ ঘটনায় ইতিমধ্যে নিহত জোনাকী আক্তারের মা হেনা বেগম বাদী হয়ে অনিক পাণ্ডেসহ অজ্ঞাত আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আসামি অনীক পাণ্ডের কাছ থেকে গুরুত্বপূর্ণ অনেক তথ্য পাওয়া গেছে। সব কিছু মাথায় রেখেই আমরা এ মামলার তদন্তকাজ চালিয়েছি। অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ডের আবেদন করে গতকাল অনিক পাণ্ডেকে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Kazi
২৫ অক্টোবর ২০২০, রবিবার, ২:১০

গণধোলাই না দিয়ে পুলিশে । আইন মেনেছে জনতা । কিন্তু যে দেশে যে ব্যবস্থা । তা হওয়াও কিছু দরকারী ।

অন্যান্য খবর